আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে তুরাগতীরে মানুষের ঢল

ঠিকানা অনলাইন : আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে সারাদেশ থেকে মানুষের ঢল নেমেছে টঙ্গী এলাকায়। আজ ২২ জানুয়ারি (রবিবার) সকাল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে থেকে বাসে, রিকশায়, ভ্যানে চড়ে কিংবা পায়ে হেঁটে মোনাজাতে অংশ নিতে ইজতেমার উদ্দেশ্যে যেতে দেখা যায় মুসল্লিদের।

বাদ ফজর ভারতের দিল্লির মোরসালিন নিজামুদ্দিনের বয়ানের মধ্য দিয়ে ইজতেমার তৃতীয় দিন শুরু হয়। সকাল ১০টার পর আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে দ্বিতীয় পর্ব।

তাৎক্ষণিকভাবে বয়ান বাংলায় তরজমা করেন মাওলানা আশরাফুল। বয়ানের পর নাস্তার বিরতি দিয়ে সকাল ৯টা থেকে মাওলানা মোশাররফ তালিম করেন। সাড়ে ৯টা থেকে শুরু হয় হেদায়েতের কথা। আখেরি মোনাজাত ও হেদায়েতি বয়ান করবেন ইজতেমায় আদি তাবলিগের শীর্ষ মুরব্বি দিল্লির মাওলানা সাদ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ কান্ধলভী।

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জমায়েত ৫৬তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে আখেরি মোনাজাত ভারতের মাওলানা সাদ কান্ধলভিকে ছাড়াই অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাঁকে নিয়ে বিতর্ক ওঠার পর মাওলানা সাদ এবারেও ইজতেমায় অংশ নিতে বাংলাদেশে আসেননি। তবে তাঁর তিন ছেলে ও জামাতা ইজতেমা ময়দানে এসেছেন।

এপর্বের ইজতেমার শেষদিনে আজ মাওলানা সাদ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ কান্ধলভী আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন। মোনাজাতের আগে তিনি হেদায়েতি বয়ানও করবেন। আজ সকাল ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে আখেরি মোনাজাত হবে। মোনাজাতে বাংলাদেশসহ সারা দুনিয়ার মানুষের সুখ, শান্তি ও কল্যাণ কামনা করে দোয়া করা হবে বলে জানিয়েছে ইজতেমা কর্তৃপক্ষ।

দ্বিতীয় পর্বের দ্বিতীয় দিনে গতকাল শনিবার টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে লাখো মুসল্লির উদ্দেশে চলে পবিত্র কোরআন-হাদিসের আলোকে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান। আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় লাখো মুসল্লি যোগ দিয়েছেন এবারের বিশ্ব ইজতেমায়। ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে শিল্পনগরী টঙ্গী ধর্মীয় নগরীতে পরিণত হয়েছে। মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের ব্যাকুলতায় দ্বীনের দাওয়াতে মেহনত করার জন্য ইসলামের মর্মবাণী সর্বত্র পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা দলে দলে ছুটে আসছেন টঙ্গীর তুরাগতীরে। ইজতেমায় আগত মুসল্লিরদের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে। শনিবারও টঙ্গী অভিমুখী বাস, ট্রাক, ট্রেন, লঞ্চসহ বিভিন্ন যানবাহনে ছিল মানুষের ভিড়। শনিবার সকালেই টঙ্গী শহর এবং ইজতেমাস্থল ও এর আশপাশ এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে।

ঠিকানা/এসআর