আরচারির জার্মান কোচ ঘুরছেন ঢাকায়

স্পোর্টস রিপোর্ট : ভালোবাসা দিবসে ঢাকা এসেছেন আরচারির জার্মান কোচ ফ্রেডরিখ মার্টিন। জন্ম জার্মানিতে, তবে চিলিয়ান। কাল সারা দিন আরচারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীব উদ্দিন আহমেদ চপলের সঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেছেন। দুই দিন ধরে তীরন্দাজীদের নতুন কোচ ঢাকায়, প্রকাশ্যে ঘুরছেন; কিন্তু অগোচরে মূলত ঘটা করে বিদেশি কোচকে প্রকাশ্যে আনতে চায় আরচারি ফেডারেশন। কেননা ফ্রেডরিক যথেষ্ট হাইপ্রোফাইল কোচ। ছিলেন জার্মান ও চিলি জাতীয় দলের কোচ, তীরন্দাজ জীবনে বিশ্ব আরচারিতে আছে একাধিক সোনালি সাফল্য। রিও অলিম্পিক আরচারির সেরা আট কোচের একজন ছিলেন ফ্রেডরিখ।
জার্মান কোচের বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ আরচারি ফেডারেশনের কোনো কর্মকর্তা। তবে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, এরই মধ্যে কোচ ফ্রেডরিখ-ফেডারেশনের ৫ বছর মেয়াদি চুক্তি পাকা হয়ে গেছে; দিন দুয়েকের মধ্যে আনুষ্ঠানিকতা হবে। ২০২০ টোকিও অলিম্পিককে লক্ষ্য ধরে তীর গ্রুপের সঙ্গে ৫ বছরের পরিকল্পনা নিয়েগো ফর গোল্ড চুক্তি করেছে আরচারি ফেডারেশন। সেই চুক্তিতে আছে বিদেশি কোচ নিয়োগ; ওয়ার্ল্ড আরচারি ও বাংলাদেশের সাবেক ব্রিটিশ কোচ সাবেক রিচার্ড প্রিসনানের সুপারিশে ফ্রেডরিখকে নেওয়া। পারিশ্রমিকও দিতে হচ্ছে বেশ মোটা অঙ্কের। চুক্তি ৫ বছরের হলেও দুই পক্ষকেই প্রতি বছর নবায়ন করতে হবে।
গেল জাতীয় আরচারির আগে নিজ খরচে এক সপ্তাহের সফরে ঢাকা এসে বাংলাদেশে আরচারির সুযোগ-সুবিধা দেখে গেছেন, গাজীপুরে আরচারি একাডেমি দেখেছেন, কিছু পরিবর্তন-পরিবর্ধনের কথা বলেছেন, তীরন্দাজদের কাছে তার প্রত্যাশা জানিয়েছেন; জেনেছেন আন্তর্জাতিক উঠানে লাল-সবুজ তীরন্দাজদের সাফল্য। ফেডারেশনের দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা শুনে বাংলাদেশে কাজ করতে আগ্রহী হয়েছেন ২০১৭ সালের আগস্টে চিলি জাতীয় দলের দায়িত্ব ছাড়া ফ্রেডরিখ।
চিলিয়ান কোচ নেয়া চূড়ান্ত হয়েছিল গত অক্টোবরে ঢাকায় হওয়া ২০তম এশিয়ান আরচারি চলাকালে। বিদায় করে দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশে জন্মলগ্ন থেকে আরচারির সঙ্গে থাকা ভারতীয় কোচ নিশিথ দাস। টুর্নামেন্ট শেষেই তিনি কলকাতা ফিরে গেছেন। ফ্রেডরিখের সহকারী হতে যাচ্ছে ওয়ার্ল্ড আরচারির তালিকাভুক্ত কোচ জিয়াউল হক; যিনি কলম্বিয়া জাতীয় দলের কোচ ছিলেন। ফ্রেডরিখের বাংলাদেশ অধ্যায় শুরু হবে তৃতীয় দক্ষিণ এশিয়া আরচারি চ্যাম্পিয়নশিপে। ১০ বছর পর আবার হতে যাচ্ছে প্রতিযোগিতাটি, হবে ২৪ থেকে ২৮ মার্চ বিকেএসপিতে। আগের দুই আসর হয়েছে ২০০৬ সালে ঢাকায়, ২০০৮-এ ভারতে।
ইসলামিক সলিডারিটি আরচারি দ্বিতীয় আসরও হবে ঢাকায়; গত বছর জানুয়ারিতে এশিয়ার ১৪টি মুসলিম দেশের তীরন্দাজরা অংশ নিয়েছিল প্রথম আসরে। রিকার্ভ ও কম্পাউন্ড মিলিয়ে ৯টি স্বর্ণের মধ্যে ৬টি জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। এর আগে আরচারির গ্র্যান্ডপ্রিক্স খেলতে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন তীরন্দাজরা। বিকেএসপির আট, বিমানবাহিনীর দুই ও তীরন্দাজ ক্লাবের তিনজন অংশ নেবেন ৩ থেকে ৫ মার্চ ব্যাংককে অনুষ্ঠিতব্য টুর্নামেন্টটি।