উদোর পিন্ডি বুধোর ঘাড়ে

ঠিকানা রিপোর্ট: হাতুড়ির আঘাতে বাফেটের শেফ ফুপাই পানকে খুন এবং রেস্টুরেন্টের ম্যানেজার টিএসজেড ম্যাট পাং মালিক খেয়ং এনজি থ্যাংকে গুরুতর আহত করেছে মানসিক ভারসাম্যহীন আক্রমণকারী আর্থার মারটুনোভিচ। অথচ পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর ৩৪ বছর বয়সী ফুপাই পানের খুন এবং ৫০ বছর বয়স্ক শেফ মার পাং ও ৬০ বছর বয়স্ক মালিক থ্যাংকের আহত হওয়ার দায়িত্ব ভয়েসেস অব এভিলের ( শয়তানের কন্ঠস্বরের) চাপানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। ব্রুকলীনের শীপশেড বে ওয়াটার ফ্রন্টের ইস্ট ২১ স্ট্রীটের নিকটবর্তী এমনস এভিনিউর সীপোর্ট বাফেট নামক চায়নিজ রেস্টুরেন্টে ৩৪ বছর বয়স্ক মারটুনোভিচ হাতুড়ির সাহায্যে প্রচন্ড আঘাত করায় ১ ব্যক্তির মাথা অকেজো হওয়ায় তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন এবং গুরুতর আহত বাকি ২ জনের ১ জন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন বলে পুলিশ ২০ জানুয়ারি জানিয়েছেন।
পুলিশ মারটুনোভিচকে গ্রেপ্তার করে কনী আইল্যান্ডের ৬০ প্রেসিঙ্কটে আনয়নের পর মারটুনোভিচ জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানায় যে একদল আগন্তুককে আঘাত করার জন্য দৈব বাণীযোগে তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তার মানসিক অবস্থা মূল্যায়নের জন্য প্রেসিঙ্কট স্টেশন থেকে ৩৪ বছর বয়স্ক মারটুনোভিচকে কিঙস কাউন্টি হাসপাতালে নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। পুলিশ তার বিরুদ্ধে হত্যা, হত্যার প্রচেষ্টা এবং অবৈধ অস্ত্র দখলে রাখার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তাছাড়া পুলিশি প্রহরায় তাকে বাথরুমে নেয়ার সময় মারটুনোভিচ একজন পুলিশ কর্মকর্তাকেও আঘাত করেছে। এছাড়া তাকে মারটুনোভিচকে গ্রেপ্তার করতে গিয়ে কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা কম-বেশি আহত হয়েছেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।
প্রত্যক্ষ দর্শীর বর্ণনানুসারে দুর্ঘটনার সময় মানসিক ভারসাম্যহীন মারটুনোভিচ হাতুড়ি হাতে রুদ্ধশ্বাসে বাফেটে ঢুকে পড়ে ও চিৎকার শুরু করে। তার চিৎকারে বাফেটের স্টাফসহ ক্রেতাসাধারণ ভয়ে চারদিকে ছুটোছুটি শুরু করে। এরপর মারটুনোভিচ ৩ জনের মাথায় হাতুড়ি দিয়ে প্রচন্ড আঘাত করে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ তার পিছু ধাওয়া করে এবং দুর্ঘটনা স্থল থেকে প্রায় ২ ব্লক দূরবর্তী ওসারন এভিনিউর পিডেসট্রিয়ান ব্রিজ থেকে গ্রেপ্তার করে। তথ্যানুযায়ী ২০১৬ সালে মারটুনোভিচ অপর এক ব্যক্তিকে হাতুড়ি পেটা করেছিল। তার জন্য মারটুনোভিচের বিরুদ্ধে কোন মামলা হয়নি কিংবা তাকে গ্রেপ্তার হতে হয়নি।