একান্ত সাক্ষাৎকারে নৌপরিবহনমন্ত্রী : শাজাহান খান কেউ কাউকে মাইনাস করতে পারে না

নিজস্ব প্রতিনিধি : আগাম নির্বাচনের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান এমপি বলেছেন, দেশে আগাম নির্বাচনের কোনো সম্ভাবনা নেই। আগাম নির্বাচনের কোনো কারণ দেখি না। সে প্রয়োজনীয়তাও নেই। কেউ যদি নির্বাচনে অংশ না নেয়, তার জন্য নির্বাচন থেমে থাকবে না। সংবিধানসম্মতভাবে নির্বাচন হবে। তাতে কে এল আর কে এল না, সে বিবেচনা তাদের।
গত ১৯ ফেব্রæয়ারি সচিবালয়ে মন্ত্রীর কক্ষে সাপ্তাহিক ঠিকানার সঙ্গে এক একান্ত সাক্ষাৎকারে শাজাহান খান এ কথা বলেন। বিদ্যমান রাজনৈতিক পরি¯িতি, দÐিত খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণা, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও শেখ হাসিনাবিহীন নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার, সবার অংশগ্রহণে নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু নির্বাচনসহ বিভিন্ন বিষয়ে খোলামেলা কথা বলেন মন্ত্রী।
বিএনপির চেয়ারপারসনকে সরকার পরিকল্পিতভাবে সাজানো মামলা দিয়ে দÐিত করে তাকে মাইনাস ও রাজনীতি থেকে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করছে বলে বিএনপির অভিযোগ সম্পর্কে আওয়ামী নেতা শাজাহান খান বলেন, কেউ কাউকে মাইনাস করতে পারে না। নিজেদের কর্মকাÐে নিজেরাই মাইনাস হয়ে যান। বিএনপি ও খালেদা জিয়া সন্ত্রাস ও জঙ্গিদের লালন করে যে ভয়ংকর কর্মকাÐ করেছেন, তার কারণেই রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে তাদের মাইনাস হতে হবে। জনগণের জন্য নয়, বিএনপির মূল রাজনীতিই হলো খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে দুর্নীতি, সন্ত্রাসী মামলা থেকে রক্ষা করা।
প্রদত্ত ভোটের ৩২ শতাংশ ভোটারের প্রতিনিধিত্বকারী দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক শক্তি বিএনপিকে বাইরে রেখে সব দলের অংশগ্রহণে বিশ্বাসযোগ্য, জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কী করে সম্ভব? ২৪ জানুয়ারির মতো না হলেও কিছুটা ভিন্ন আদলে, বিএনপিকে বিভক্ত করে সমমনাদের নিয়ে নির্বাচন করে কি দেশে ¯িতিশীলতা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব?
জবাবে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, কেউ নির্বাচনে অংশ না নিলে নির্বাচন হবে না, এমন কোনো কথা নেই। নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। সংবিধান অনুযায়ী আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে নির্বাচন হতে হবে। কেউ নির্বাচনে না এলে সে বিবেচনা তাদের। সরকার বিএনপিকে বিভক্ত করতে যাবে কেন? বিএনপিকে দুর্বল করার জন্য বিএনপিই যথেষ্ট। দেশ ও জনগণের স্বার্থে আশা করি সবাই শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে আসবে।
মন্ত্রী বলেন, বিএনপি সহায়ক সরকারের কথা বলছে। কখনো বলেছে তত্ত¡াবধায়ক সরকার, কখনো নির্দলীয় সরকার। সর্বশেষ এখন বলছে সহায়ক সরকারের কথা। জনগণের ইচ্ছার ওপরই সবকিছু নির্ভর করছে। তাদের দাবির পক্ষে জনগণকে তারা সম্পৃক্ত করতে পারেনি। তার প্রমাণ সীমিত সংখ্যক কর্মী ছাড়া তাদের দাবির পক্ষে তারা জনগণকে মাঠে নামাতে পারেনি। মন্ত্রী বলেন, মানুষ ভুল করলে তার খেসারত দিতে হয়। রাজনীতি যদি জনগণের জন্য হয় নিরীহ মানুষকে হত্যা করে রাজনৈতিক সফলতা আসে না। ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত তারা তা-ই করেছিল বলে আজকে তাদেরকে তারই মাশুল দিতে হচ্ছে। ২০১৪-এর নির্বাচন না করে বিএনপি যে ভুল করেছিল, আজকে তারই খেসারত দিচ্ছে। সন্ত্রাসী, জঙ্গি কর্মকাÐ দিয়ে মানুষের কল্যাণ করা যায় না। পবিত্র কোরআনের সুরা ইউনুুসের ৮১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, আল্লাহ তায়ালা সন্ত্রাস, ফ্যাসাদ সৃষ্টিকারীদের কর্মকাÐ সফল করেন না। এই আয়াতের সত্যতাই প্রমাণিত হয়। শেখ হাসিনার সরকারকে উৎখাত করতে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি-জামায়াত-২০ দল দেশে যে তাÐব, নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছিল আয়াতের উল্লেখ করে নৌমন্ত্রী বলেন, তাই তাদের সফলতা আসেনি। দেশের মালিক জনগণ। নির্বাচনের মাধ্যমে তারাই রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করবেন, এটাই বিধান। বিএনপির উচিত আগামী নির্বাচনে অংশ নিয়ে জনগণের প্রত্যাশিত নির্বাচন সফল করা। খেলার মাঠে যেমন হার-জিত থাকে, নির্বাচনেও হার-জিত থাকবে। ফল যা-ই হোক, সকল পক্ষকে তা মেনে নিতে হবে। এর ব্যতিক্রম হলে স্বাভাবিকভাবেই নিজেদের ক্ষতি নিজেরা ডেকে আনবে।
নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, ৯ বছরে রাষ্ট্র পরিচালনায় শেখ হাসিনা প্রমাণ করেছেন, তিনি দক্ষ, অভিজ্ঞ, অতুলনীয়। দেশের মানুষ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষ শক্তিকে ক্ষমতায় বসিয়ে তার সুফল ভোগ করছে। উন্নয়নের মহাসড়কে দেশ এগিয়ে চলেছে। বিশ্বাস করি, আগামী নির্বাচনেও দেশের মানুষ শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় এনে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবেন এবং দেশ থেকে সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদকে চিরতরে নির্মূল করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে রাষ্ট্রকে এগিয়ে নেবেন। বঙ্গবন্ধুর আজীবন লালিত স্বপ্ন সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করবেন।