এবার বহুবিবাহের বিরুদ্ধে নামছে ভারতীয় নারীরা

বিশ্বচরাচর ডেস্ক : ভারতীয় পার্লামেন্টের নি¤œকক্ষ লোকসভায় তিন তালাক বাতিলের বিল পাসের পর এবার বহুবিবাহ বাতিলের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন দেশটির মুসলিম নারীরা। এ বিষয়ে আইনি লড়াইয়ে যুক্ত নারীরা তিন তালাকের চেয়ে বহুবিবাহকে ‘আরও জঘন্য’ বলে মন্তব্য করেছেন। এ জন্য তিন তালাকের পাশাপাশি বহুবিবাহকেও বাতিলের জোর দাবি জানাচ্ছেন তারা। খবর এনডিটিভির।
গত ২৮ ডিসেম্বর লোকসভায় ভোটাভুটিতে কোনো সংশোধনী ছাড়াই পাস হয় তিন তালাক বিল। বিলটি এবার পাসের জন্য উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় পাঠানো হবে। এখানেও বিলটি সহজেই পাস হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তিন তালাক বেআইনি ঘোষণা সংক্রান্ত সরকারি পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন মুসলিম নারী সমাজকর্মীরা। কিন্তু এতে তারা পুরোপুরি সন্তুষ্ট নন। তাদের বক্তব্য, মুসলিম ব্যক্তিগত আইনে সংস্কার আনার বিরাট সুযোগ নষ্ট করল কেন্দ্র। তিন তালাকের সঙ্গে বহু বিবাহও নিষিদ্ধ করা উচিত ছিল তাদের।
সমাজকর্মী রিজওয়ানা ও রাজিয়ার সঙ্গে তিন তালাক নিষিদ্ধকরণের দাবিতে মামলা লড়েছিলেন আইনজীবী ফারাহ ফয়েজ। তিনি বলেন, ‘মুসলিম নারীরা বিয়ের ক্ষেত্রে তখনই পুরোপুরি স্বাধীন হবেন, যখন মাথার ওপর স্বামীর একাধিক বিবাহের খাঁড়া ঝুলবে না।’ সমাজকর্মী রিজওয়ানা নিজেই বহুবিবাহ প্রথার শিকার।
তিনি বলেন, তিন তালাক বেআইনি ঘোষণাকে সংস্কার প্রক্রিয়ার একটি অংশ হিসেবে দেখা উচিত, সম্পূর্ণ সংস্কার নয়। নিকাহ হালালার মধ্যযুগীয় প্রথা থেকে মুসলিম মেয়েদের উদ্ধার করার সময় এসেছে। তাদের আশঙ্কা, তিন তালাক বেআইনি ঘোষণার পর মুসলিম সমাজে বহু বিবাহ এবার কয়েকগুণ বেড়ে যাবে। প্রকাশ্যেই একাধিক বিয়ে করবেন মুসলিম পুরুষরা। আর এ প্রথা বজায় থাকতে তিন তালাক নিষিদ্ধ হলেও খুব বেশি উপকার পাবেন না মুসলিম মেয়েরা।
১৬ বছরে বিয়ের পিঁড়িতে বসা রাজিয়া বলেন, আমার স্বামী ফোনে আমাকে তিন তালাক দিয়েছিলেন। এমনকি আমাদের দুই সন্তানের দায়িত্ব নিতে অস্বীকার করে সে। ক্ষোভের সঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘তিন তালাক একটি অপরাধ, এটি আমার জীবনকে ধ্বংস করে দিয়েছে। আমি আশা করব, তিন তালাকের পাশাপাশি বহুবিবাহ বাতিলের ব্যাপারেও সরকার সোচ্চার হবে।’