ওভারডোজ মহামারি প্রতিরোধে করণীয়

ঠিকানা রিপোর্ট: আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের সমাজদেহের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ফেন্টানলী, হেরোইন এবং আফিমজাত অন্যান্য মাদকদ্রব্যের ওভারডোজ মহামারির আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। সরকারি পর্যায়ে নানাধরনের প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা নেয়া সত্ত্বেও তেমন সুফল পাওয়া যাচ্ছেনা। ইউএস সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের পরিসংখ্যান অনুসারে নরহত্যা, আত্মহত্যা এবং মোটর দুর্ঘটনায় সম্মিলিতভাবে সকল বয়সী যত আমেরিকান প্রতিবছর মারা যায় তার চেয়ে অনেক বেশি আমেরিকানের ভবলীলা সাঙ্গ হয় শুধুমাত্র ড্রাগ ওভারডোজে। সংস্থাটির পরিসংখ্যান অনুসারে ২০১৬ সালে সমগ্র যুক্তরাষ্ট্রে ৬৪ হাজার আমেরিকানের জীবন লীলার ইতি ঘটেছিল নানা দুর্ঘটনায়। আর এদের তিন-চতুর্থাংশের পঞ্চত্বপ্রাপ্তি ঘটেছিল শুধুমাত্র আফিমজাত ওভারডোজের কারণে। সংস্থাটির পরিসংখ্যান অনুসারে ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে ওভারডোজ জনিত অপমৃত্যু ২১% বৃদ্ধি পেয়েছিল এবং প্রতিবছর এই অপমৃত্যুর হার উত্তরোত্তর বাড়ছে। এমনতর বাস্তবতার পটভ’মিতে ওভারডোজের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা ব্যাপক গণসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে সংস্থাটির পক্ষ থেকে বেশ কিছু সুপারিশ করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে:
বিদ্যালয়, বাস্তুহারা আশ্রয়কেন্দ্র, পার্ক এবং অন্যান্য এলাকায় মাদক দ্রব্যের ব্যবহার এবং নীডলের মাধ্যমে মাদকদ্রব্য রক্তে মিশিয়ে দেয়া প্রতিহতে এবং মাদকাসক্তদের অবধারিত মৃত্যুর কবল থেকে রক্ষার জন্য নালোক্সোন ও নারকান জাতীয় প্রতিষেধকের সরবরাহ নিশ্চিত করার সুপারিশ করা হয়েছে। এছাড়াও মিডল এবং হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের উল্লেখযোগ্য অংশ সাম্প্রতিককালে মাদকদ্রব্যের প্রতি বিশেষভাবে আসক্ত হয়ে পড়ায় আফিমজাত পণ্যের ভয়াবহতা ও বিপদ সম্পর্কে শ্রেণীকক্ষে পাঠদানের প্রতি গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। সংস্থাটির মতে কেবলমাত্র আইন করে মাদকদ্রব্যের ভয়াবহতা থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করা যাবেনা। এজন্য প্রয়োজনীয় গণ-সচেতনতাও বাড়াতে হবে।