কুইন্সে সকল ভাষার মানুষের বসবাসকে নিরাপদ করার অঙ্গীকার

বার্ষিক ভাষণে কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট মিলিন্ডা ক্যাটজ

ঠিকানা রিপোর্ট: কুইন্স হচ্ছে পুরো আমেরিকার মধ্যে একটি অন্যতম সেরা বরো। এই বরোতে বিশ্বের প্রায় ১৯০টি দেশের সকল ধর্ম-বর্ণের ২০০ ভাষার মানুষের বসবাস। আমরা সবাই সৌহার্দ্য- সম্প্রীতিতে বসবাস করতে চাই। আর সবাই যাতে নিরাপদ ও শান্তিতে বসবাস করতে পারি সেটাই আমি নিশ্চিত করছি। আমরা সবার সমান অধিকার নিশ্চিত করতে চাই। সবাই যেন তাদের ধর্ম- কর্ম পালন করতে পারে। যদিও মাঝে মধ্যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মাধ্যমে আমাদের সৌহার্দ্য- সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০২০ এর সেনসাসের ফর্মে সেই ধরনের একটি প্রশ্ন রেখেছেন। প্রশ্নটি হচ্ছে আপনি সিটিজেন কি না? এই প্রশ্ন থাকলে আমিও সেনসাসে অংশগ্রহণ করবো না। প্রয়োজনে আমি নিজে (বাকি অংশ ৮০ পাতায়)
কুইন্সে সকল ভাষার মানুষের বসবাসকে নিরাপদ করার অঙ্গীকার
(শেষের পাতার পর) এর বিরুদ্ধে লড়াই করবো। গত ২৫ জানুয়ারি সকালে লাগোয়ার্ডিয়া কলেজ অডিটোরিয়ামে বার্ষিক ভাষণে কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট মিলিন্ডা ক্যাটজ এ সব কথা বলেন।
লাগোয়ার্ডিয়া কম্যুনিটি কলেজের প্রেসিডেন্ট ড. মিলোকে ধন্যবাদ জানান অনুষ্ঠানের আয়োজন করার জন্য। তিনি বলেন, লাগোয়ার্ডিয়া কলেজ এখন বিশ্ব কলেজে রূপান্তরিত হয়েছে। এই কলেজে বর্তমানে প্রায় ১৫০টি দেশের ৯৬ ভাষার ৪৫ হাজার ছাত্রছাত্রী লেখা পড়া করছে। এই কলেজের উন্নয়নে ৫.৬ বিলিয়ন ডলারের কাজ চলছে। এ কাজে আমার সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। তিনি অনুষ্ঠানে আসার জন্য কুইন্স বরোতে বসবাসকারী ২.৩৫ মিলিয়ন মানুষের পক্ষে সবাইকে ধন্যবাদ জানান। তিনি স্মরণ করেন ভিয়েতনাম যুদ্ধে যে সব ফাইটার নিহত হয়েছেন এবং যারা অনুষ্ঠানে এসেছেন তাদের। তিনি ভিয়েতনাম যুদ্ধে যারা নিহত এবং আহত হয়েছেন তাদের স্মরণে এলেমহাস্ট পার্কে ২.৮ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি পুনরায় ব্যক্ত করেন। যদিও প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয় ২০১৮ সালের ২৯ নভেম্বর। তিনি আরো স্মরণ করেন সাবেক কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট কার্লি সুলম্যান, নিউইয়র্ক সিটির সাবেক স্পীকার পিটার বেলুন জুনিয়ার এবং নিউইয়র্ক সিটির কম্পোটোলার স্কট স্ট্রিংগার। সেই সাথে তাদের যারা আমার সাথে কাজ করছেন।
তিনি আরো বলেন, ২০১০ সালের পর থেকে কুইন্স বরো বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ১ লাখ ৪৫ হাজার ইমিগ্র্যান্টকে স্বাগত জানিয়েছে। আমরা এই বরোর সকল ধর্ম এবং বর্ণের মানুষের শান্তিতে বসবাস নিশ্চিত করতে চাই। আমি মনে করি আমরা সবাই একটি পরিবার। এই পরিবারের সবাই যেন সমান অধিকার ভোগ করতে পারে এবং নতুন প্রজন্মের শিশু- কিশোররা তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারে। যদিও মাঝে মধ্যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মাধ্যমে আমাদের সৌহার্দ্য- সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০২০ এর সেনসাসের ফর্মে সেই ধরনের একটি প্রশ্ন রেখেছেন। প্রশ্নটি হচ্ছে আপনি সিটিজেন কি না? এই প্রশ্ন থাকলে আমিও সেনসাসে অংশগ্রহণ করবো না। প্রয়োজনে আমি নিজে এর বিরুদ্ধে আইনী লড়াই করবো। তিনি বলেন, আমরা যারা নির্বাচিত প্রতিনিধি তাদেরই মানুষের অধিকার এবং সকল সুযোগ- সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি আমেরিকায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী হামলা এবং বন্দুক হামলার নিন্দা জানান। তিনি বলেন, আমাদের শক্তি হচ্ছে ঐক্য। সেই ঐক্য আমাদের বজায় রাখতে হবে। কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট হিসাবে আমি ঐক্য বজায় রেখেই এগিয়ে যাবো। তিনি কুইন্সে স্কুল, কলেজের উন্নয়ন এবং যাতায়াত ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং সবার স্বাস্থ্য নিশ্চিতের অঙ্গীকার করেন। তিনি বলেন, যে হারে কুইন্সে দিন দিন মানুষ বাড়ছে সেই অনুযায়ী স্কুলের আসন বাড়াতে হবে এবং নতুন নতুন এফর্ডেবল হাউজ আরো বাড়াতে হবে। নতুন করে আরো ৫টি খেলার মাঠ করা হচ্ছে। ১ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে উডসাইডে বিগ বুশ প্লে গ্রাউন্ড তৈরি করা হয়েছে, ১.৫ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ট্রাক এন্ড ফিল্ড, ১.৭ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ফ্লাশিং এ রিচাল কার্সন প্লে গ্রাউন্ড, ৬ লাখ ডলার ব্যয়ে নিউস্টেক পার্কসহ আরো কয়েকটি। তিনি বলেন, কুইন্সের স্কুলগুলোতে এখন ক্যাপাসিটি ১০৬%। কিন্তু ম্যাটহাটন এবং ব্রুকলীনে এই ক্যাপাসিটি হচ্ছে ৮৫%। তিনি কুইন্সে লাইব্রেরির উন্নয়নের কথাও জানান এবং বলেন, লাইব্রেরির উন্নয়নে আমাদের আরো ৪৬ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন। আমি যখন ৫ বছর আগে দায়িত্ব গ্রহণ করি তখন লাইব্রেরিগুলোর অবস্থা ছিলো নাজুক। আমি বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের সাথে আলবেনিতে কাজ করে অবস্থার পরিবর্তন করি। স্কুল, লাইব্রেরির উন্নয়নের পাশাপাশি ক্রিমিনাল জাস্টিস রিফর্ম নিয়ে কাজ করি। তিনি আরো বলেন, ফার রকওয়েলের দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তরা তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছেন। করোনা পার্কে নিউইয়র্ক স্টেট প্যাভেলিয়ন নতুনভাবে সাজানো হয়েছে। ওয়ান্ড ফেয়ার মেরিনাকে নিরাপদ করা হয়েছে। লংআইল্যান্ড সিটি এখন উন্নত নগরী। এখানে ব্যবসা- বাণিজ্য বৃদ্ধি পেয়েছে, মানুষের বসবাস বৃদ্ধি পেয়েছে, যে কারণে ফেরি সার্ভিস চালু করা হয়েছে। এ সব কাজে গভর্নর কুমো, মেয়র বিল ডি ব্লাজিও, সিনেটর স্যাক চুমার, ক্রিস্ট্রিন গিলবার্ড সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছেন। আমাদের এ সব উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, করোনার ১০১ স্ট্রিটে সিনিয়রদের জন্য ৬৮ ইউনিটের এফর্ডেবল হাউজিং করা হচ্ছে। যার মধ্যে হোমলেসদের জন্য রাখা হয়েছে ২১টি। ফ্লাশিং এ ২৩১ ইউনিটের বিল্ডিং করা হচ্ছে। জ্যামাইকায় ১৭৪ ইউনিটের এবং ১৫৯ ইউনিটের বিল্ডিং করা হচ্ছে লো এন্ড মিডল ক্লাশ ফ্যামিলির জন্য। তিনি রিকার্সআইল্যান্ড কারাগার বন্ধে সবার সহযোগিতা কামনা করেন। সেই সাথে জেল সিস্টেম সংস্কার ও আধুনিক জেল বনানোর আহবান জানান। তিনি ধন্যবাদ জানান কুইস বরো পুলিম ডিপার্টমেন্টকে অপরাধ কমানোর জন্য। তিনি বলেন, আমি প্রেসিডেন্ট হবার পর চাকরি বাজার সৃষ্টি করেছি। পাঁচ বছর আগে আনএ্যামপ্লয়মেন্ট ছিলো ৭.৭%, বর্তমানে তা ৩.২%। তিনি আরো বলেন, লাগোয়ার্ডিয়া এবং জেএফকে এয়ারপোর্টকে বিশ্বের অন্যতম এয়াপোর্টে রূপান্তরিত করা হচ্ছে। এখন কাজ চলছে। এই দুটো এয়ারপোর্টই কুইন্সে। জেএফকে এয়ারপোর্ট দিয়ে বছরে ৫৯.৪ মিলিয়ন এবং লার্গোয়াডিয়া এয়ারপোর্ট দিয়ে বছরে ২৯.৫ মিলিয়ন লোক আসা যাওয়া করছে। তিনি বলেন, এ বছরের জুনে ৫০ বছর হবে আমার মায়ের মৃত্যুর। একজন ড্রাঙ্ক ড্রাইভার আমার মাকে গাড়ি চাপায় হত্যা করেছিলো। সুতরাং ড্রিঙ্ক করে কেউ গাড়ি চালাবেন না। তাতে করে অন্যের জীবন চলে যেতে পারে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন লাগোয়ার্ডিয়া কলেজের প্রেসিডেন্ট ড. মিলো এবং মিলিন্ডা ক্যাটজের জীবনী তুলে ধরেন মিউজিশিয়ান আব্দুর রব ড্যানিয়েল।
অনুষ্ঠানটি স্পন্সর করে জেড ব্লু এয়ারলাইন্স। অনুষ্ঠানে বিপুলসংখ্যক মানুষ অংশগ্রহণ করে।