কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী অফিসের উদ্যোগে দ্বিতীয় সুযোগ

ঠিকানা রিপোর্ট: কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী অফিসের উদ্যোগে দ্বিতীয় সুযোগ নামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানটি গত ২০ অক্টোবর উডসাইডের ইউনিভার্সেল চার্চে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। যারা ছোটখাট অপরাধ করেছেন এবং নানা কারণে ঝুলে আছেন তাদের জন্যই এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ব্যতিক্রমী এই অনুষ্ঠানে প্রায় ৪ শতাধিক মানুষ অংশগ্রহণ করে। যার মধ্যে প্রায় ৩৬০ জন মানুষ মুক্তি পেয়েছেন। এদের মধ্যে এশিয়ানরাও ছিলেন। দ্বিতীয় সুযোগের অনুষ্ঠানের রীতিমত কোর্টের মত আদালত বসে। আদালতে যেভাবে শুনানী অনুষ্ঠিত হয় সেভাবেই শুনানী শেষে সিদ্ধান্ত দেয়া হয়। যারা অপরাধ থেকে মুক্ত হয়ে গিয়েছেন তারা আইনজীবীও নিয়েছেন। কারণ ঐখানে আইনজীবী এবং বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ছিলেন। ছিলেন মাননীয় জজ, আইনজীবী এবং পুলিশ।

এই অনুষ্ঠানের সহযোগিতায় ছিলেন কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট মেলিন্ডা ক্যাটস, লিগ্যাল এইড সোসাইটি, নিউইয়র্ক সিটির পুলিশ বিভাগ এবং স্প্যানিস ল’ইয়ার্স এসোসিয়েশন। কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী রিচার্ড ব্রাউন বলেন, ছোটখাট অপরাধের কারণে অনেকেরই উপর গ্রেফতারের সমন রয়েছে। তাদের দিনের পর দিন কোর্টে যেতে হচ্ছে। এ সব মানুষের সুবিধার জন্যই দ্বিতীয়বারের মত অস্থায়ী আদালত বসানো হয়। এর ফলে প্রায় ৪ শতাধিক মানুষ অংশগ্রহণ করেন এবং প্রায় ৩৬০ জন মানুষ মুক্তি পেয়ে যান। অর্থাৎ তারা এখন ফ্রি। তাদের উপর গ্রেফতারের খড়গ নেই, পুলিশি নজরদারিও নেই। রিচার্ড ব্রাউন এই উদ্যোগে সগযোগিতার জন্য মিলিন্ডা ক্যাটর্জ, লিগ্যাল এইড সোসাইটি, স্প্যানিক ল’ ইয়ার এসোসিয়েশন, ভলেন্টিয়ার, আইনজীবী এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলোর কর্মকর্তা, প্যাস্টর অস্কার রেমেজ ও অংশগ্রহণকারীদের ধন্যবাদ জানান। তিনি আরো বলেন, প্রথমবার অনুষ্ঠান আয়োজন করে সফলতার কারণেই দ্বিতীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান সফল করার জন্য তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানান।
সকাল ৯টায় অনুষ্ঠান শুরু হলেও মানুষজন সকাল থেকেই আসতে থাকেন। এক সময় লম্বা লাইন হয়ে যায়। রেজিস্ট্রেশনের পর সবাইকে আলাদা আলাদা করে ডেকে নেয়া হয়। এবং একটি কক্ষে কোর্ট বসিয়ে সেখানেই শুনানীর ব্যবস্থা করা হয়। শুনানীর পর সাথে সাথেই রায় ঘোষণা করা হয়। সার্বক্ষণিক তদারকি করেন সহকারি ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী জেসি স্লাই।