ক্যাপিটলে ধূমপান ‘স্বাধীনতার বিষয়’

ঠিকানা রিপোর্ট : প্রতিনিধি পরিষদে জিওপি সদস্যদের ধূমপান সম্পর্কিত কয়েকটি প্রতিবেদন প্রকাশের পরিপ্রেক্ষিতে রিপাবলিকান প্রতিনিধি ট্রয় নেহলস বলেছেন, মার্কিন ক্যাপিটলে সিগারেট খাওয়া ‘স্বাধীনতার বিষয়’।
টেক্সাসের ২২ তম কংগ্রেসনাল ডিস্ট্রিক্টের প্রতিনিধি নেহলস গত ১৩ জানুয়ারি শুক্রবার এ বিষয়ে ফক্স নিউজের টাকার বই স্বাধীনতার বিষয়। এটা খুবই আকর্ষণীয় যে অসৎ মিডিয়া এবং যারা আমার ধূমপানের বিষয়ে অভিযোগ করতে চায়- তারা মুদ্রাস্ফীতি, অপরাধ ও দক্ষিণ সীমান্ত নিয়ে কথা বলতে চায় না।’
তিনি বলেন, উইনস্টন চার্চিল থেকে শুরু করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রু জ্যাকসন, থিওডোর রুজভেল্ট, নিক্সন, জেএফকেসহ দেশ-বিদেশের নেতারা ধূমপান করতেন। এমনকি এক সময় বিল ক্লিনটনও সিগারেট টানতেন।
২০০৭ সালে হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বেশিরভাগ ক্যাপিটলে ধূমপান নিষিদ্ধ করেন।
নেহলস ব্যাখ্যা করেন, নিষেধাজ্ঞার অর্থ হলো আপনি হাউস ফ্লোরে বা কমিটির শুনানিতে ধূমপান করতে পারবেন না। তবে এতে সদস্যের অফিস অন্তর্ভুক্ত নয়। তাই, সদস্যের হাউস অফিসে আমরা সবসময় ধূমপান করি। তিনি বলেন, ‘সিগার ককাসে আমাদের মধ্যে প্রায় ৩০ জন আছেন আমরা যারা অফিসে ধূমপান করি।’
১৯৯৭ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন এক নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন যা ফেডারেল ভবনগুলোতে ধূমপান সীমিত করে এবং ২০০৭ সালে পেলোসি স্পীকার লবিসহ বেশিরভাগ ক্যাপিটল থেকে ধূমপান নিষিদ্ধ করেন।
ক্যাপিটল ভবনের সিনেটের পাশে এবং স্পিকারের লবির দিকে ধূমপানের অনুমতি নেই। ১৮৭১ সালে হাউস ফ্লোরে এবং ১৯১৪ সালে সিনেট ফ্লোরে ধূমপান নিষিদ্ধ করা হয়।