খুনির প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করলেন নিহতের বাবা

তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতায় ফিরে আসার পর প্রথমবারের মতো প্রকাশ্যে একজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে। ছবি : সংগৃহীত

ঠিকানা অনলাইন : তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতায় ফিরে আসার পর প্রথমবারের মতো প্রকাশ্যে একজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে। যার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে, তিনি একজনকে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত ছিলেন। বুধবার তার মৃত্যুদণ্ড নিজ হাতে কার্যকর করেছেন হত্যার শিকার হওয়ার ব্যক্তির বাবা। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

তালেবানের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিম ফারাহ প্রদেশের একটি জনাকীর্ণ ক্রীড়া স্টেডিয়ামে ভুক্তভোগীর বাবা তিনটি গুলি করে অভিযুক্তর মৃত্যু নিশ্চিত করেছেন। গুলি করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার সময় তালেবানের বেশ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন।

তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হিবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা গত মাসে একটি আদেশ জারি করেছিলেন। আদেশে তিনি প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড, অঙ্গচ্ছেদ এবং পাথর নিক্ষেপের মতো শাস্তি অন্তর্ভুক্ত করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। তাঁর এ নির্দেশনার কয়েক সপ্তাহ পরেই প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হলো।

বিবিসি জানিয়েছে, কোন কোন অপরাধের ক্ষেত্রে এ ধরনের শাস্তি প্রদান করা হবে তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি তালেবান সরকার। তবে সম্প্রতি আফগানিস্তানের বেশ কয়েকটি জায়গায় অপরাধীদের প্রকাশ্যে বেত্রাঘাত করা হয়েছে।

তালেবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ জানিয়েছে, বুধবার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার সময়ে সুপ্রিম কোর্টের বেশ কয়েকজন বিচারপতি, সামরিক কর্মী এবং বিচার, পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন। তবে প্রধানমন্ত্রী হাসান আখুন্দ উপস্থিত ছিলেন না।

তালেবানের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, হেরাত প্রদেশের বাসিন্দা তাজমি প্রায় পাঁচ বছর আগে মোস্তফা নামে এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছিলেন। পরে তালেবানের তিনটি আদালতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হোন। মোল্লা আখুন্দজাদা তার মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন করেন।

ঠিকানা/এসআর