চলতি সপ্তাহেই স্টিমুলাসের অর্থ পাচ্ছেন আমেরিকানরা

ঠিকানা রিপোর্ট : ১০ মার্চ বুধবার হাউজে সংশোধনী পাস হলেই চলতি সপ্তাহেই স্টিমুলাসের অর্থ পেতে শুরু করবেন আমেরিকানরা। সিনেটে সংশোধসনহ বিলটি পাসের পর মঙ্গলবার হাউজে পদ্ধতিগত ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে ২১৯-২১০ ভোটে পদ্ধতিগতভাবে বিলটি পাস হয়েছে। রিপাবলিকান কোনো সদস্য বিলটির পক্ষে ভোট না দিলেও মেইন রাজ্য থেকে নির্বাচিত একজন ডেমোক্রেট সদস্য বিলটির বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন। তবে পদ্ধতিগতভাবে পাস হওয়ায় চূড়ান্তভাবে বিলটি পাসে আর কোনো বাধা থাকলো না।
এদিকে বুধবার সকালে বিলটি পাস হলে এদিনই এতে স্বাক্ষর করতে পারেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। প্রেসিডেন্ট স্বাক্ষর করলেই ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের করোনা রিলিফ প্যাকেজ বিলটি ১৩ মার্চ থেকে কার্যকর হতে পারে। অর্থাৎ চলতি সপ্তাহ থেকেই স্টিমুলাসের ১৪০০ ডলার করে অর্থ পেতে শুরু করবেন আমেরিকানরা। ফলে দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান হতে যাচ্ছে আমেরিকানদের।
জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের করোনা রিলিফ প্যাকেজ ঘোষণা করেন। প্যাকেজটিতে রয়েছে নগদ সহায়তা, সাথে বেকারদের জন্য বেকার ভাতার পাশাপাশি ফেডারেল সহায়তা, জনপ্রতি ১০ হাজার ২০০ ডলার পর্যন্ত আন-এমপ্লয়মেন্টে ট্যাক্স মওকুফ, ম্যারিড ফাইলিং জয়েন্টলি হলে ২০ হাজার ৪০০ ডলার পর্যন্ত ট্যাক্স মওকুফ। ১৭ বছরের নিচের শিশুদের জন্য ৩০০০ ডলার এক বছরে, যেটি মাসে ২৫০ ডলার করে দেওয়া হবে। এছাড়া ছয় বছরের নিচের শিশুর জন্য দেওয়া হবে ৩৬০০ ডলার। মাসে ৩০০ ডলার করে দেওয়া হবে। এসব সুযোগ-সুবিধা যত দ্রুত সম্ভব সরকার থেকে দেওয়ার ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য এই প্যাকেজ নিঃসন্দেহে আনন্দ বয়ে এনেছে। করোনাকালে বর্তমানে মানুষ অনেক কঠিন সময় পার করছেন। অর্থের অভাবে অনেকেই বাসা ভাড়া দিতে পারছেন না। ন্যূনতম প্রয়োজনগুলোও তেমনভাবে মেটাতে পারছেন না। এসব মানুষের জন্য এই স্টিমুলাস বিল স্বস্তি বয়ে এনেছে।
এদিকে আগামী ১৪ মার্চ শেষ হচ্ছে বেকার ভাতার সাথে দেওয়া ৩০০ ডলার করে প্রতি সপ্তাহের সহায়তা। এই প্রোগ্রাম শেষ হওয়ার পর মানুষের যাতে সমস্যা না হয়, সেজন্য এই সহায়তা প্রদান করা হবে চলতি বছরের ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। সরকার চেষ্টা করছে ১৪ মার্চের আগে দেওয়া ভাতা শেষ হলেও মানুষ যাতে পরবর্তী সপ্তাহ থেকেই এই সুবিধা পায় এবং তাদের ভোগান্তি না হয়। পাশাপাশি তারা এটাও চেষ্টা করছে, যাতে সেপ্টেম্বরের মধ্যে মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে। বেকার ভাতা পাচ্ছেন এমন কয়েকজন বলেছেন, এই ভাতার পরিমাণ প্রতি সপ্তাহে ৪০০ ডলার হলেই ভালো হতো। অন্তত একটি পরিবারের বাসা ভাড়া হয়ে যেত।
বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, করোনা রিলিফ প্যাকেজ অর্থনীতিতে ইতিবাচক ফল বয়ে আনবে।