চলন্ত বাস থেকে বাবাকে ফেলে দিয়ে মেয়েকে হত্যা

সাভার : সাভারের আশুলিয়ায় চলন্ত বাস থেকে বাবাকে ফেলে দিয়ে মেয়ে জরিনা খাতুনকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বাইপাইল আবদুল্লাহপুর মহাসড়কের আশুলিয়ার মরাগাং এলাকা থেকে গত ১০ নভেম্বর ভোরে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। ওই ঘটনায় আশুলিয়া থানায় জরিনার মেয়ে জামাই বাসের চালক ও সহযোগীসহ অজ্ঞাতদের আসামি করে একটি মামলা করেন। পুলিশ বাস ও দোষীদের আটক করতে পারেনি। জরিনা সিরাজগঞ্জের চৌহালী থানার খাস কাওলীয়া গ্রামের আকবর আলীর মেয়ে। তিনি জানান, গত ৯ নভেম্বর বিকেলে জরিনাকে নিয়ে আশুলিয়ার গাজিরচট এলাকায় তার নাতনীর বাসা থেকে নিজ বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। সন্ধ্যার দিকে আশুলিয়ার ইউনিক বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি অজ্ঞাত বাসে ওঠেন তারা। এরপর বাসে থাকা যাত্রীবেশী দুর্বৃত্তরা তাদের মারধর করে মোবাইল ফোন টাকা-পয়সা কেড়ে নেয়। এ সময় ওই বাস টাঙ্গাইলের দিকে না গিয়ে তাদের যাত্রা পথ বদল করে নবীনগর-চন্দ্রা ও আবদুল্লাহপুর-বাইপাইল মহাসড়কে ঘোরাঘুরি করে। একপর্যায়ে চলন্ত বাস থেকে তাকে ফেলে দিয়ে মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। তিনি আরও জানান, এ সময় আহতাবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বিষয়টি টহল পুলিশকে জানান। এরপর প্রায় তিন ঘণ্টা পর পুলিশ চার কিলোমিটার সামনে গিয়ে আশুলিয়ার মরাগাং এলাকার মহাসড়কের পাশ থেকে জরিনার লাশ উদ্ধার করে। আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মনিরুল হক ডাবুল জানান, এ ঘটনায় জরিনার জামাই নুর ইসলাম অজ্ঞাতা কয়েকজনের নামে একটি হত্যা মামলা করেছেন। তিনি আরও জানান, বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই পুলিশ কাজ করছে।