চলে গেলেন নাচের গুরু অনুপ কুমার

ঠিকানা রিপোর্ট: কম্যুনিটির অত্যন্ত পরিচিত মুখ, নাচের গুরু, নৃত্য শিল্পী, বাফার শিক্ষক এবং অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অনুপ কুমার দাস। তিনি গত ২০ জুলাই সোমবার ভোরে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৫৬ বছর। মৃত্যুকালে তিনি বাবা- মা, ভাই- বোন, আত্মীয়- স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। শিল্পী অনুপ কুমার দাসের ভগ্নিপতি বিশিষ্ট কলামিস্ট শিতাশু গুহ ঠিকানাকে জানান, শিল্পী অনুপ কুমার দাস ১৯৯৫ সালে আমেরিকায় এসেছিলেন। আমেরিকায় আসার পর তিনি তার পরিবারের সাথে ব্রঙ্কসেই থাকতেন। এক সময় তিনি ইয়াংকি স্টেডিয়ামের পাশে ১৫-১৫ মেকোগ রোডের একটি বাসায় থাকতেন। বাফার প্রেসিডেন্ট ফরিদা ইয়াসমীন ঠিকানাকে জানান, অনুপ কুমার দাস বাফার একজন অন্যতম ফাউন্ডার। তিনি ১৮ জুলাই জুমের মাধ্যমে ক্লাস নেন। ১৯ জুলাই তার সাথে কারো যোগাযোগ ছিলো না। অনুপা দাসের একজন বন্ধু ছিলেন। তার নাম ব্রুশ। ব্রুশই অনুপকুমার দাসের দেখা শুনা করতেন। ইয়াংকি স্টেড়িয়ামের পাশের ঐ বাসায় শিল্পী প্রায় ১৭ বছর যাবত বসবাস করতেন। তিনি আরো জানান, অনুপ কুমার দাস প্রায় ১০ বছর ধরে কিডনী সমস্যা ভুগছেন। তিনি নিজেই ডায়লসিস নিতেন। ফরিদা ইয়াসমীন আরো জানান, ২০ জুলাই সোমবার সকাল ১১টা থেকে ১২ টার দিকে তার বন্ধু ব্রুশ তাকে দেখতে গিয়েছিলেন। দেখতে গিয়ে দেখন যে অনুপ কুমার দাসের নিথর দেহটি ফ্লোরে পড়ে রয়েছে। ব্রুশ সাথে সাথে ৯১১-এ কল করেন। এ্যাস্বুলেসের লোকজন পরীক্ষা করে নিশ্চিত হন যে অনুপ কুমার দাস আর নেই। তার লাশ ম্যানহাটনের একটি পরীক্ষাগারে নিয়ে যায়। সেখানেই পরীক্ষা করা হয়।

শিতাংশু গুহ আরো জানান, শিল্পী অনুপ কুমার দাসের দেশের বাড়ি চট্টগ্রামের হাটহাজারিতে। তার বড় ভাই অসীম দাস কুইন্সের ওজনপার্কে থাকেন। তার ছোট ভাই টুটুল দাস ব্রঙ্কসে থাকেন। অনুপের বাবা- মা ব্রঙ্কসে থাকেন। বাব মা দুইই অসুস্থ যে কারণে তারা ব্রঙ্কসের একটি নাসিং হোমে রয়েছেন। তার একমাত্র বোন অল্পনা গুহ কুইন্সভিলেজে থাকেন। তিনি জানান, অনুপ কুমার ১৭ জুলাই তার বাবা- মা সাথে ফোনে কথা বলেছিলেন। তার কিডনী সমস্যা দীর্ঘদিনের। সে নিজেই ডায়লসিস করতেন। ধারণা করা হচ্ছে তিনি ডায়লসিস অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি আরো জানান, ম্যানহাটন থেকে অনুপের লাশ করোনার কোপনী সেমিস্ট্রিতে নেয়া হবে। সেখানে তার লাশ দেখানোর ব্যবস্থা করা হবে এবং সেখানেই দাহ করা হবে। আজকে লাশ পাওয়া গেলে ২২ জুলাই তার লাশ দাহ করার সম্ভাবনা রয়েছে।

নিউইয়র্কে থাকা অবস্থায় চিরকুমার অনুপ কুমার দাস বাফাসহ বিভিন্ন সংগঠনের নাচের শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। তা ছাড়া তিনি নিজেও মূলধারার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। শিল্পী অনুপ কুমার দাস ফোবানা, ড্রামা সার্কেল, বিপাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত ছিলেন। নিউইয়র্কের বিটিভিসহ অনেক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। নিউইয়র্কে যে ক’জন নাচের শিকক্ষক রয়েছেন তার মধ্যে অনুপ কুমার ছিলেন অন্যতম। তিনি ছিলেন নিউইয়র্কের একজন জনপ্রিয় শিল্পী। তার মৃত্যুতে পুরো বাংলাদেশী কম্যুনিটিতে শোকের ছায়া নেমে আসে। ফরিদা ইয়াসমীনসহ অনেকেই জানিয়েছেন, অনুপ কুমার দাস যে এভাবে এত তাড়াতাড়ি চলে যাবেন তা বিশ্বাসই করতে পারছি না। বলতে গেলে তিনি ছিলেন আমাদের পরিবারের একজন সদস্য। যে কারণে কষ্টের পাথর বুকের মধ্যে চেপে বসে আসে। তিনি অনুপ কুমারের আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং সবাইকে প্রার্থণার অনুরোধ জানান।