জর্জিয়ায় প্রাইমারি নির্বাচনের পোস্টমোর্টেম

আটলান্টা থেকে এস আলম : আগামী নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী বাছাইয়ের লক্ষ্যে জর্জিয়া রাজ্যে প্রাইমারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ৯ জুন। প্রাইমারিতে উল্লেখযোগ্য প্রার্থী হিসেবে ডেমোক্র্যাটি দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো-বাইডেন নির্বাচিত হয়েছেন। এদিকে প্রাইমারিতে বিনা-প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বাংলাদশি আমেরিকান শেখ রহমান বন্দন পুনরায় স্টেট সিনেটর নির্বাচিত হয়েছেন। জর্জিয়া স্টেট ডিপিক্ট ৫ এ কোনো জি পাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় শেখ রহমান পুনরায় ডেমোক্র্যাটিক দলীয় স্টেট সিনেটর পদে বহাল থাকবেন। শুরু থেকেই শেখ রহমান চন্দন একজন নিষ্ঠাবান, অভিজ্ঞ এবং নিবেদিত প্রাণ ডেমোক্র্যাট দলীয় সদস্য যিনি নিরলসভাবে জর্জিয়া স্টেট সিনেটরের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। মূলধরার রাজনীতিতে অবদান রাখার মধ্য দিয়ে একজন বাংলাদেশি আমেরিকান বাংলাদেশ তথা প্রবাসে বাংলাদেশ এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে সেতুবন্ধন এটুট রাখার প্রয়াস পাচ্ছেন শেখ রহমান। তিনি ২৭ জুন ডেমোক্র্যাটিক ন্যাশনাল কমিটির নির্বাচনে পুনরায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে জানা গেছে।
বাংলাদেশি আমেরিকানদের মধ্যে জর্জিয়ায় দুইজন ইউএস কংগ্রেস দুইজন জর্জিয়া স্টেট সিনেটর এবং একজন কাউন্টি কমিশনার পদে ৯ জুনের প্রাইমারি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। জর্জিয়া স্টেট সিনেটর পদে জর্জিয়া ডিস্ট্রিক্ট ৪৮ থেকে প্রাইমারিতে অংশগ্রহণ করেন জসিমউদ্দিন। জর্জিয়া তথা উত্তর আমেরিকা বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে জসিমউদ্দিন (জস) একটি অতি পরিচিত নাম। তিনি একাধারে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব জর্জিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ আমেরিকান অ্যাসোসেয়েশন অব জর্জিয়ার প্রেসিডেন্ট, তিনবার ফোবানা সম্মেলনের স্বাগতিক কমিটির কনভেনর এবং ফোবানার প্রাক্তন চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি অ্যাপাকের (APAC) সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে ও দায়িত্ব পালন করছেন। ব্যক্তিগত জীবনে জসিমউদ্দিন আন্তর্জাতিক রোটারি ক্লাবের সক্রিয় সদস্য- বর্তমানে তিনি নর্থ গুইনেট বিউফোর্ড রোটারি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ইলেকট (North Gwinnet BUFORD ROEARY CLUB)। জসিম বলেন, ভবিষ্যতে মূলধারার রাজনীতি চর্চায় তিনি সরব ভূমিকা পালন করবেন।
বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব জর্জিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জর্জিয়া ডিস্ট্রিক্ট ৪১ থেকে স্টেট সিনেটর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ভোট পেয়ে তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর সাথে রান অফ এর সম্ভাবনা থাকলেও পরে তা সম্ভব হয়নি। জাহাঙ্গীর হোসেন ছিলেন জর্জিয়ায় বাংলাদেশিদের কাছের মানুষ। তিনি বাংলাদেশিদের আপদে-বিপদে সর্বদায় সাহায্য-সহযোগিতার জন্য এগিয়ে আসেন। অদূর ভবিষ্যতে মূলধারার কর্মকাণ্ডে নিজেকে আরও বেশি সম্পৃক্ত করে এগিয়ে যাবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।
অন্য দিকে জর্জিয়ায় ইউএস কনগ্রেশনাল ডিস্ট্রিক্ট ৭ থেকে প্রাইমারি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী করেন দুই বাংলাদেশি নাবিলা ইসলাম এবং ড. রশিদ মালিক। দুই বাংলাদেশি একই নির্বাচনী এলাকায় একই পদকে প্রেসম্যান। নির্বাচন করায় স্বাভাবিকভাবে বাংলাদেশি এবং অন্যান্য দেশি ডেমোক্র্যাট ভোটাররা দ্বিধা বিভক্ত যার ফলে দু’জনই পরাজিত হন। ড. রশিদ মালিক ১৯৯৫ সালে ইউনিভার্সিটি অব ক্যানসাস থেকে চাইনিজ পলিটিক্যাল ইকোনোমিতে ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ইউএস কংগ্রেস পদে দু’বার এবং জর্জিয়া স্টেট সিনেটর পদে একবার জর্জিয়া স্টেট কংগ্রেস পদে একবার এ নিয়ে মোট চারবার মূলধারার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু কোনো বারই কৃতকার্য হতে পারেননি। এ দিকে ইউএস কংগ্রেসপদে নাবিলা ইসলামের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা জর্জিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। বাংলাদেশিসহ ভিনদেশি তরুণ ভোটাররা নাবিলাতে সমর্থন করে ভোট প্রদান করেছে। তরুণ প্রজন্মের নাবিলা অল্পসময়ের ব্যবধানে মূলধারার নির্বাচনে ভোটারদের আশানুরূপ সমর্থন পেয়েছেন। আগামীতে নাবিলা যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার রাজনীতিতে একজন সম্ভাবনাময় তরুণ নারী সংগঠক বিবেচিত হবে বলে সংশ্লিষ্ট মহলের প্রত্যাশা।
প্রাক্তন কাউন্টি কাউন্সিলম্যান বাংলাদেশি এমডি নাসের ৯ জুনের প্রাইমারিতে ডিকান কাউন্টি কমিশনার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন; কিন্তু এবার তিনি নির্বাচিত হতে পারেননি। উল্লেখ্য, এমডি নাসের জর্জিয়া রাজ্যে মূলধারার নির্বাচনে প্রথম নির্বাচিত কাউন্সিলম্যান যা ছিল বাংলাদেশ এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের গর্বের বিষয়।
এবারের জর্জিয়া প্রাইমারি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী বাংলাদেশিদের কেউ জয়ী হতে পারেননি। শুধু স্টেট সিনেটে সিনেটর হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত শেখ রহমান। বর্তমান সময়ে মূলধারার নির্বাচনে বাংলাদেশিদের ব্যাপক অংশগ্রহণ একটি অতি ইতিবাচক সংবাদ বলে প্রতিদ্বন্দ্বিদেরকে উৎসাহ প্রদান করছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। আগামীতে এ ধারা অব্যাহত থাকলে প্রবাসে মূলধারার রাজনীতিতে বাংলাদেশি আমেরিকানদের একটি সমৃদ্ধ অবস্থান লক্ষ্য করা যাবে আমাদের প্রত্যাশা।