জাওয়াহিরি হত্যা : বাইডেন বললেন, ‘ন্যায়বিচার’ হয়েছে

ঠিকানা অনলাইন : আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে মার্কিন ড্রোন হামলায় আল-কায়েদার প্রধান আয়মান আল-জাওয়াহিরি নিহত হয়েছেন। জাওয়াহিরি নিহত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

গত রোববার ড্রোনের মাধ্যমে আফগান রাজধানী কাবুলে ওই হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ। আজ ২ আগস্ট (মঙ্গলবার) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

আল-কায়েদার শীর্ষ নেতাকে হত্যার ঘোষণা দিয়ে বাইডেন বলেন, ‘আমেরিকান নাগরিকদের বিরুদ্ধে হত্যা ও সহিংসতার কাজে দীর্ঘ সময় ধরে জড়িত ছিলেন আয়মান আল-জাওয়াহিরি। এখন ন্যায়বিচার করা হয়েছে এবং এই সন্ত্রাসী নেতা আর নেই।’

মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ গত রোববার যখন ড্রোনের মাধ্যমে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে তখন জাওয়াহিরি একটি সেফ হাউসের বারান্দায় অবস্থান করছিলেন।

তারা আরও বলেছেন, হামলার সময় পরিবারের অন্য সদস্যরা সেখানে (সেফ হাউসে) উপস্থিত ছিলেন। তবে ওই হামলায় তারা অক্ষত রয়েছেন এবং শুধুমাত্র জাওয়াহিরিকেই হত্যা করা হয়েছে।

বাইডেন বলেন, কয়েক মাস ধরে পরিকল্পনার পর ৭১ বছর বয়সি আল-কায়েদা নেতার ওপর ‘নির্ভুল হামলা’ চালানোর চূড়ান্ত অনুমোদন দেন তিনি।

আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেন এবং আল-জাওয়াহিরি এক সঙ্গে আমেরিকার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন এবং ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার আয়োজন করেন বলে অনেকে অভিহিত করেন।

আল-জাওয়াহিরি মিসরের ইসলামি জিহাদ নামক একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। ওসামা বিন লাদেন ২০১১ সালের মে মাসে মার্কিন বাহিনীর হাতে নিহত হবার পর আল-জাওয়াহিরি আল-কায়েদার নেতৃত্ব গ্রহণ করেন।

তার আগে আল-জাওয়াহিরিকে ওসামা বিন লাদেনের ডান হাত আর আল-কায়েদার মূল চিন্তাবিদ বলে গণ্য করা হতো। অনেকে মনে করেন আয়মান আল-জাওয়াহিরিই ছিলেন ১১ সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসী হামলার মূল রূপকার। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড সন্ত্রাসীদের’ একজন ছিলেন।

জাওয়াহিরিকে হত্যার খবর স্বাগত জানাল সৌদি আরব
এদিকে আফগানিস্তানে ড্রোন হামলা চালিয়ে আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরিকে হত্যার যে ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন দিয়েছেন, তাকে স্বাগত জানিয়েছে সৌদি আরব।

সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির বরাতে দেশটির রাষ্ট্রায়াত্ত সংবাদ সংস্থা সোমবার দেশটির সরকারের এ অবস্থানের কথা জানিয়েছে।

সেখানে বলা হয়, যে সন্ত্রাসীরা যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবে ঘৃণ্য সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা এবং তা বাস্তবায়ন করেছে, তাদের একজন নেতা হিসেবেই বিবেচনা করা হয় জাওয়াহিরিকে।

বেসামরিক বিমান ছিনতাই করে ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে ৩ হাজারের বেশি মানুষকে হত্যার ঘটনার অন্যতম পরিকল্পনাকারী হিসেবে বিবেচনা করা হয় মিশরীয় চিকিৎসক জাওয়াহিরিকে, যিনি সে সময় ছিলেন ওসামা বিন লাদেনের শীর্ষ উপদেষ্টা।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে পাকিস্তানে মার্কিন অভিযানে আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেন নিহত হন। লাদেন নিহত হওয়ার পর ২০১১ সালের ১৬ জুন আয়মান আল-জাওয়াহিরিকে আল-কায়েদার নতুন নেতা হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়।

ঠিকানা/এসআর