টানা ৬ ম্যাচ হারল ঢাকা ডমিনেটরস

ছবি সংগৃহীত

ঠিকানা অনলাইন : তুলনামূলক অনভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের দল নিয়ে এবারের বিপিএলে প্রথম ম্যাচটাই জিতেছিল ঢাকা ডমিনেটরস। কিন্তু এর পরই খেই হারিয়ে ফেলল নবীন দলটি। ঢাকা পর্বের প্রথম অংশ ও চট্টগ্রাম পর্ব মিলিয়ে হারল ৫ ম্যাচ। এবার ঢাকা পর্বের দ্বিতীয় অংশের প্রথম ম্যাচেও হারল স্বাগতিক দল। তাতে ৭ ম্যাচের ৬টি হেরে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে নাসির হোসেনের দল।

মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে ২৩ জানুয়ারি সোমবার ঢাকাকে ৬০ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। হ্যাটট্রিক হারে টুর্নামেন্ট শুরু করার পর এ নিয়ে টানা চতুর্থ জয় পেল কুমিল্লা। আর তাতে ৮ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে চলে এসেছে ইমরুল কায়েসের দল।

কুমিল্লার দেওয়া ১৬৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই স্ট্রাগল করেছে ঢাকার ব্যাটাররা। দলীয় ১০ রানে প্রথম উইকেট হারানোর পর ৬ রানের ব্যবধানে আরও ৩ উইকেট হারায় দলটি। চতুর্থ উইকেটে উসমান ঘনিকে নিয়ে কিছুটা চেষ্টা চালিয়েছেন অধিনায়ক নাসির হোসেন। কিন্তু ১৫ বলে ১৭ রান করে নাসির ফিরলে এরপর আর ম্যাচেই ফিরতে পারেনি ঢাকা। ১০৪ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ইনিংস শেষ করে স্বাগতিক দল।

ঢাকার হয়ে সর্বোচ্চ ৩৩ রান করেন উসমান ঘনি। বিপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই ৪ উইকেটের ঝলক দেখিয়েছেন নাসিম শাহ।

এর আগে মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ক্রিজে থিতু হয়েও ফিরে যান লিটন দাস। ডানহাতি এই ওপেনার করেন ২০ রান। অবশ্য সাময়িক চাপ সামলে নেয় ইমরুল-চার্লস জুটি। তবে ব্যক্তিগত ২৮ রান করে ইমরুলের বিদায়ের পর চার্লস ফেরেন ৩২ রান করে।

অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও পাননি রানের দেখা, ফিরেছেন ৯ রান করে। খুশদিল ১৭ বলে ৩০ রান করে বিদায় নেন। তখনো দলের রান দেড় শর ঘর ছোঁয়নি। তবে শেষ দিকে জাকের আলি অনিকের ২০ এবং আবু হায়দার রনির ১১ রানে ভর করে কুমিল্লার দলীয় রান গিয়ে দাঁড়ায় ১৬৪।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন কুমিল্লার খুরশিদ শাহ।

ঠিকানা/এনআই