টেলিফোনে যা ফাঁস হলো

বিভাষ বাড়ৈ : খালেদা জিয়ার কাছের নেতা হিসেবে পরিচিত বিএনপির তিন নেতার টেলিফোন আলাপে ফাঁস হয়ে গেছে নির্বাচনকে সামনে রেখে হত্যা, নাশকতা এমনকি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ঘুষ দিয়ে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার পরিকল্পনা। যারা তাদের নেতাকর্মীদের টেলিফোনে নাশকতার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। ফাঁস হওয়া ফোনালাপ ফেসবুক, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ঘটনা নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। নাশকতার পরিকল্পনায় জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবি উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
সূত্র বলছে, গত সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) রাত ও মঙ্গলবার (২৫ ডিসেম্বর) সকালে ফাঁস হওয়া টেলিফোন আলাপের ঘটনায় ফেঁসে যেতে পারেন বিএনপির তিন নেতা। বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও নোয়াখালী-১ আসনে দলটির প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের ফাঁস হওয়া ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ফোনালাপে শোনা যায়, নুরনবী চৌধুরী নামে এক দলীয় কর্মীকে লাঠি-বাঁশ নিয়ে প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দিচ্ছেন তিনি। গত ২৪ ডিসেম্বর রাতে ওই অডিও ক্লিপটি ছড়িয়ে পড়ে।
খোকন ও নুরনবীর ফোনালাপের কিছু অংশ তুলে ধরা হলো:
বিএনপি কর্মী নুরনবী চৌধুরী : নজরুলের পোলাপাইন এখানে ইয়ে করতেছে। আমি হয়ত কাল রাতে রওনা দিব।
ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন : কাল রওনা দেবে তো ? কালকে বাঁশ-টাশ কেটে নিতে বলো। সব রেডি করতে বলো।
নুরনবী : আচ্ছা, ঠিক আছে।
খোকন : সাহেদের সঙ্গে যোগাযোগ করবে, ঠিক আছে ? সাহেদের সঙ্গে কথা বলিও ঠিক আছে ?
নুরনবী : আচ্ছা ঠিক আছে।
খোকন : সে তো ডেনজারাস, হ্যাঁ।
নুরনবী : হ্যাঁ, তার সঙ্গে যোগাযোগ করব। আর রিয়াজও আছে, মঠখোলার রিয়াজ।
খোকন : হ্যাঁ। জাহাঙ্গীরের লোক আছে না?
নুরনবী : হ্যাঁ।
খোকন : ডা. শিপনের সঙ্গে কথা বলবে, ঠিক আছে ?
গত ২৫ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার, ফাঁস হয় রাজশাহী-৫ আসনে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী বিতর্কিত নেতা নাদিম মোস্তফা ও রেজাউল করিম নামে দলটির এক কর্মীর টেলিফোন আলাপ। যেখানে নাদিম মোস্তফা ওই কর্মীকে হামলার নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, পারলে আজকেই বসাইয়ে দাও। রেজাউল ফোন করে জানতে চান- ভাই ৫ জন আছে বাজারে। আমরা কি করব? এরপরই নাদিম মোস্তফা বলেন, পারলে আজই বসাইয়ে দাও। মাইরে তারাই দাও। সিনক্রিয়েট করে দাও। নির্দেশের পর রেজাউল করিম বলেন, ঠিক আছে।
এরপর ফাঁস হয় খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা বিএনপি নেতা এ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন ও বরিশালের মুলাদী উপজেলার মো. আবুল কালাম নামে বিএনপির এক কর্মীর ফোন আলাপ। জয়নাল আবেদীন বরিশাল-৩ আসনে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী। টেলিফোন আলাপে কর্মী আবুল কালামকে দিয়ে থানার ওসি ও দুই এসআইকে একটি খামে ভরে টাকা পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন বলে বেরিয়ে এসেছে। আবুল কামাল জয়নাল আবেদিনের কাছে জানতে চান কাকে কত টাকা দেবেন ? জয়নাল আবেদিন বলেন, একটা খামে করে টাকা নিয়ে যাও। ৩০ মিল করে দিয়ে আস। এরপর আবুল কালাম বলেন, না তিনজনকে হলে ৩৫ হাজার দিতে হবে। ওসিকে ১৫ আর বাকিদের ২০। এরপর জয়নাল আবেদীন বলেন, দিয়ে আস। কর্মী বলেন, ঠিক আছে তাহলে।