ডিজি যেনো কানে তুলা না দিয়ে থাকেন

সওগাত আলী সাগর: ‘আমি বলব দুর্নীতির দায় আমাদের সবার। আমরা যদি শুধু সরকারের দিকে আঙুল তুলি, সেটা হবে সবচেয়ে বড় বোকামি। আমরা সবাই এই দুর্নীতির অংশ।’- স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নতুন ডিজি অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমের বক্তব্য এটি। ডিজি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর এটি তার প্রথম প্রতিক্রিয়া।
অধ্যাপক খুরশীদ আলমের বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক করার সুযোগ আছে, অস্বীকার করার সুযোগ নেই। সরকারের দিকে আমাদের আঙুল তুলতেই হয়, সামনেও তুলতে হবে, সেটা সরকারের নিষ্ক্রিয়তার জন্য। ‘সবার দায়িত্ব’ মানে- জনগণের দায়িত্ব সেটাই, দুর্নীতিতে তাদের অংশও সেটাই। প্রতিবাদ অব্যাহত রাখা, দুর্নীতির প্রতি, দুর্নীতিবাজদের প্রতি আঙুল উঁচিয়েই রাখতে হবে। ‘আমরা সবাই’ কখন এই ‘দুর্নীতির অংশ’ হয়ে পড়ি? – যখন আঙুল নামিয়ে রাখি কিংবা মুখ, চোখ বন্ধ রাখি।
স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতিতে মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য বিভাগ, ঠিকাদার- কতিপয় মিডিয়া- সবারই অংশগ্রহণ আছে, সবারই সম্পৃক্ততা আছে। ইন্টারভিউ করতে গিয়ে কোনো রিপোর্টার (সবাই নন), রিপোর্ট করতে গিয়ে কোনো রিপোর্টার ( সবাই নন) কোনো কোম্পানির জন্য তদবির শুরু করেন সেটাও দুর্নীতি। আবার দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তার ব্রিফ নিয়ে ঘটনাকে টুইস্ট করে দুর্নীতি বানিয়ে দেয়াটাও দুর্নীতি। স্বাস্থ্যখাতে এসব হয়েছে।
‘আমরা সবাই এই দুর্নীতির অংশ’- অধ্যাপক খুরশীদ আলমের এই বক্তব্যটাকে আমি ইতিবাচক হিসেবে নিতে চাই। সাধারণ নাগরিক হিসেবে আমরা আমাদের দায়িত্ব- দুর্নীতির বিরুদ্ধে আঙুল তোলা, কথা বলা- সেটা আমরা অব্যাহত রাখব। ডিজি হিসেবে অধ্যাপক খুরশীদ যেনো তাঁর অংশটুকু পালন করেন। অধিদপ্তরের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর থাকেন। আমরা যখন দুর্নীতির কথা বলবো, তিনি যেনো তখন কানে তুলো না দিয়ে থাকেন। নাগরিকদের অংশটুকুর প্রতি সম্মান দেখিয়ে তিনি যেনো তার অংশটুকু পালন করেন।
ডিজি হিসেবে অধ্যাপক খুরশীদ আলমের জন্য শুভ কামনা। -কানাডা।