তৈয়বুর রহমান টনির ভাই নজীবুর রহমানের ইন্তেকাল

যুক্তরাষ্ট্র আ’লীগের শোক

নিউইয়র্ক : এক মাসের ব্যবধানে আপন দুই বড় ভাই-কে হারালেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক ও মোড়েলগঞ্জ উপজেলা সোসাইটি ইউএসএ’র সাধারণ সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনি। তার বড় ভাই বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও রাষ্ট্রপক্ষের মামলা পরিচালনায় নিয়োজিত ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট নজীবুর রহমান গত ২৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ঢাকায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নাল্লিাহি ওয়া ইন্না ইলাইহ রাজেউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র ও তিন কন্যা এবং ২ ভাই ও ২ বোনসহ সহ বহু আতœীয়-স্বজন রেখে যান।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনির আরেক বড় ভাই, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রাজনীতিবিদ মাহাবুবুর রহমান রানা (৬৩) গত ২৩ নভেম্বর শুক্রবার সকালে আকস্মিক হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকাস্থ জিগাতলায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন।
এদিকে তৈয়বুর রহমান টনির আপন ভাইয়ের ইন্তেকালে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছে। দলের পক্ষ থেকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহবুবুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন দেওয়ান এক বিবৃতিতে অ্যাডভোকেট মো. নজীবুর রহমানের ইন্তেকালে শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করে মরহুমের বিদেহী আতœার মাগফেরাত কামনা করেন।
জানা গেছে, অ্যাডভোকেট নজীবুর রহমান ২৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ঢাকায় ধানমন্ডিতে নৌকার মিছিলে গিয়ে রাস্তায় ঢলে পড়েন। পরে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঢাকা-১০ আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস তার নির্বাচনী এলাকায় মিছিল করছিলেন। এই মিছিলে ছিলেন নজীবুর রহমান। মিছিলটি ধানমন্ডির সীমান্ত স্কয়ারে (রাইফেল স্কয়ার) আসার পর তিনি রাস্তায় ঢলে পড়েন। সাথে সাথে তাকে ল্যাবএউড হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, নজীবুর রহমান মিছিলের মাঝে হার্ট অ্যাটাক করে মারা যান।
এদিকে সুপ্রিম কোর্ট সূত্রে জানা গেছে, নজীবুর রহমানের প্রথম জানাজা হয় শুক্রবার জুমার নামাজের পর। এরপর দ্বিতীয় জানাজা হয় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে হয়। পরে তাকে আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা কথা হয়েছে। তৈয়বুর রহমান টনি তার ভাইয়ের ইন্তেকালে সবার দোয়া কামনা করেছেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।