দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারতে গেল ১৬ টন ইলিশ

ঠিকানা অনলাইন : শারদীয় দুর্গা উৎসব উপলক্ষে ৪৯ প্রতিষ্ঠানকে রপ্তানির অনুমতি দেওয়ার পর প্রথম চালানে ১৬ টন ইলিশ পাঠানো হয়েছে ভারতে।

৫ সেপ্টেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় বেনাপোল বন্দর দিয়ে এই ইলিশ রপ্তানি করে বরিশালের মাহিমা এন্টারপ্রাইজ। এই মাছ আমদানি করে এসআর ইন্টারন্যাশনাল নামে এক ভারতীয় প্রতিষ্ঠান।

প্রতি কেজি ইলিশ ১০ মার্কিন ডলারে রপ্তানি হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছেন বেনাপোল বন্দরের মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুল্লা আলম।

তিনি জানান, পর্যায়ক্রমে আড়াই হাজার টন ইলিশ ভারতে রপ্তানি হবে। গত রোববার মন্ত্রণালয়ের রপ্তানি-২ শাখার উপসচিব তানিয়া ইসলাম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে ৪৯ রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানকে ভারতে ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়। পরে আমদানি ও রপ্তানি প্রধান নিয়ন্ত্রককে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ৫০ টন করে মোট ২ হাজার ৪৫০ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অনুমতি পাওয়া প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ঢাকার ১৮টি, চট্টগ্রামের ৩টি, যশোরের ৯টি, নড়াইলের ১টি, খুলনার ৩টি, বরিশালের ৩টি, পাবনার ৯টি, নওগাঁর ১টি ও সাতক্ষীরার ১টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

বেশির ভাগ ইলিশ বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে রপ্তানি হবে বলে রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলোর সূত্রে জানা গেছে।

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শর্ত সাপেক্ষে রপ্তানির এই আদেশ কার্যকর থাকবে। আবার সরকার প্রয়োজন মনে করলে রপ্তানির এই আদেশ যেকোনো সময় বন্ধও করতে পারবে। তবে সরকার মৎস্য আহরণ ও পরিবহনের ক্ষেত্রে কোনো বিধিনিষেধ আরোপ করলে তা কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এ অনুমতির মেয়াদ শেষ হবে বলে অনুমোদনের শর্তে বলা হয়েছে।

ইলিশ রপ্তানিতে শর্ত দেওয়া হয়েছে, রপ্তানি নীতি ২০২১-২০২৪ এর বিধিবিধান অনুসরণ করতে হবে। শুল্ক কর্তৃপক্ষ দ্বারা রপ্তানি করা পণ্যের কায়িক পরীক্ষা করাতে হবে। প্রতিটি কনসাইনমেন্ট রপ্তানি শেষে রপ্তানি-সংক্রান্ত কাগজপত্র রপ্তানি-২ অধিশাখায় দাখিল করতে হবে। অনুমোদিত পরিমাণের চেয়ে বেশি ইলিশ পাঠানো যাবে না। এ অনুমতি কোনোভাবেই হস্তান্তরযোগ্য নয়। অনুমোদিত রপ্তানিকারক ব্যতীত সাব-কন্ট্রাক্টে এই রপ্তানি করা যাবে না।

ঠিকানা/এনআই