নারায়ণগঞ্জ সমিতির আরেকটি কমিটি

ঠিকানা রিপোর্ট: দুটো কমিটি হলো প্রবাসের অন্যতম প্রাচীন সংগঠন নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতির। নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতি বিভক্ত হয়ে পড়লো। এক পক্ষ কমিটি ঘোষণা করেছে গত ২৫ আগস্ট। আরেক পক্ষ সাধারণ সভা করে কমিটি ঘোষণা করলো গত ২৯ আগস্ট। বর্তমান কার্যকরি কমিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কয়েক মাস আগে একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করে। সেই কমিটির কোন কোন সদস্যের বিরুদ্ধে কার্যকরি কমিটি অসন্তোষ প্রকাশ করে এবং তাদের অনভিপ্রেত হস্তক্ষেপ এবং গঠনতন্ত্রবিরোধী কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের তিনজনকে বহিষ্কার করে। কিন্তু সেই বহিষ্কারাদেশে কর্ণপাত করেননি নির্বাচন কমিশন। একটি প্যানেলকে নিয়েই তারা নির্বাচন করেন। করিম- দোলন প্যানেল এবং নারায়ণগঞ্জ সমিতির কার্যকরি কমিটি সেই নির্বাচন বর্জন করেন। গত ২৯ আগস্ট তারা সাধারণ সভার মাধ্যমে ২০১৯-২০২০ সালের আরেকটি কমিটি ঘোষণা করেন। সাধারণ সভাটি জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়।
বিপুলসংখ্যক নারায়ণগঞ্জবাসীর উপস্থিতিতে সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব এবং পরিচালনা করেন সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক সভাপতি আজহারুল হক মিলন, সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ মহসীন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক সরকার, সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম হোসেন, আছির উদ্দিন উজ্জ্বল, মুক্তিযোদ্ধা সুরুজ্জামান, আজিজুল ইসলাম আজিম ও কম্যুনিটি এক্টিভিস্ট এ কে এম নুরুল হক।
সাধারণ সভায় সকলের সর্বসম্মতিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতির নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত কমিটির সদস্যরা হচ্ছেন- সভাপতি মোহাম্মদ মঞ্জুরুল করিম, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান হাবিব, সিনিয়র সহ সভাপতি ফয়সাল হক দোলন, সহ সভাপতি রুহুল আমিন সিদ্দিকী, সহ সভাপতি মোস্তফা জামান, সহ সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমান জনি, কোষাধ্যক্ষ মোহম্মদ আব্দুল আওয়াল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বাবলী হক, ক্রীড়া সম্পাদক সোহেল আহমেদ, প্রচার সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, অপ্যায়ন সম্পাদক রমিজউদ্দিন বাবুল, মহিলা সম্পাদিকা কুহিনুর আক্তার, কার্যকরি সদস্য- সাইদি আহমেদ, খালেদ আক্তার, মোহাম্মদ শরীফ হোসেন তনয়, এস এম বাবুল, নিপা জামান এবং নাজমুল হোসেন সোহাগ।