নিউইয়র্কে সোনালী ব্যাংকের এমডি আফজাল : বাংলাদেশে রিজার্ভ সংকট নেই

নিউইয়র্ক : মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখছেন সোনালী ব্যাংকের এমপি মো. আফজাল করিম। মঞ্চে কনসাল জেনারেল ড. মনিরুল ইসলামসহ সোনালী এক্সচেঞ্জের কর্মকর্তাবৃন্দ।

ঠিকানা রিপোর্ট : বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়াত্ত সোনালী ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ আফজাল করিম কোনো প্রকার গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, বাংলাদেশে রিজার্ভ নিয়ে কোনো সঙ্কট নেই। তিনি হুন্ডি পরিহার করে বৈধপথে দেশে অর্থ পাঠানোর জন্য প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। ২৫ নভেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় অনুষ্ঠিত ‘বৈদেশিক রেমিট্যান্স এবং বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা জানান মোহাম্মদ আফজাল করিম।
মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল ড. মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম। সোনালী এক্সচেঞ্জের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) দেবশ্রী মিত্রের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির অন্যতম পরিচালক মোহাম্মদ আতাউর রহমান।
আফজাল করিম বলেন, সরকার দেশ, জাতি ও প্রবাসীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে যারা দেশে বৈদেশিক মূদ্রা পাঠান তাদের জন্য শতকারা আড়াই ভাগ প্রণোদনা দিচ্ছে এবং এখন রেমিট্যান্স পাঠাতে কোন ফি লাগছে না।
যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঘরে ঘরে সেবা দিতে সোনালী এক্সচেঞ্জ আধুনিক অনলাইন ব্যবস্থা চালু করেছে উল্লেখ করে সোনালী ব্যাংকের এমডি বলেন, অচিরেই অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে ঘরে বসেই গ্রাহকেরা দেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন। প্রবাসীদের সেবার মান বাড়াতে প্রয়োজনে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি অধ্যুষিত রাজ্যগুলোতে নতুন শাখা খোলা বা এজেন্ট নিয়োগ করা হবে, জানান তিনি।
বন্ধ হয়ে যাওয়া সোনালী এক্সচেঞ্জের যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলেস শাখা অচিরেই খোলা হবে জানিয়ে আফজাল করিম বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে সোনালী ব্যাংকের পূর্ণাঙ্গ শাখা খোলার বিষয়টিও সরকারের সক্রিয় বিবেচনায় রয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রে সোনালী ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান সোনালী এক্সচেঞ্জ আয়োজিত এই মতবিনিময় সভা পরিচালনা করেন সোনালী এক্সচেঞ্জ ম্যানহাটান শাখার ম্যানেজার শাহাদৎ হোসেন। সভায় কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ সহ সোনালী এক্সচেঞ্জ জ্যামাইকা শাখার ম্যানেজার মনিউর রহমান, ওজনপার্ক শাখার ম্যানেজার কবীর হোসেনসহ প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় উপস্থিত সুধীবৃন্দ দেশে বিনিয়োগের নিশ্চয়তা, দেশ থেকে অর্থ আনার ক্ষেত্রে জটিলতা, এনআইডি বিড়ম্বনা, প্রবাসে থাকায় নিয়মিত লেনদেন না করায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রভৃতি সমস্যার কথা তুলে ধরলে এমডি মোহাম্মদ আফজাল করিম তা সমাধানের আশ্বাস দেন এবং কোনো কোনো বিষয় সরকারের এখতিয়ারভুক্ত বলে উল্লেখ করেন।
কনসাল জেনারেল ড. মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম তার বক্তব্যে বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, বৈধভাবে অর্থ পাঠালে দেশের অর্থনীতির চাকা শক্তিশালী হয়। তিনি প্রবাসীদের সেবার জন্য কনস্যুলেট সবসময় খোলা এবং সেবার মান বাড়াতে তিনি সাধ্যমতো চেষ্টা চালানোর আশ্বাস দেন।
সভার শেষ পর্যায়ে এমডি মোহাম্মদ আফজাল করিম ও কনসাল জেনারেল ড. মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম উপস্থিত প্রবাসীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।
উল্লেখ্য, এমডি মোহাম্মদ আফজাল করিম সংক্ষিপ্ত এক সফরে গত ২৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্র সফরে আসেন। তিনি এক সপ্তাহের মতো যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করবেন। এসময় সোনালী ব্যাংক ও সোনালী এক্সচেঞ্জের অফিসিয়াল কর্মকাণ্ড প্রত্যক্ষ এবং কয়েকটি শাখা পরিদর্শন করার কথা রয়েছে তার।
মতবিনিময় সভার আগে মোহাম্মদ আফজাল করিম জ্যামাইকার হিলসাইড অ্যাভিনিউর সোনালী এক্সচেঞ্জের জ্যামাইকা অফিস পরিদর্শন এবং সেখানে কিছু সময় অতিবিাহিত করেন। এসময় গ্রাহক সেবা পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি গ্রাকদের সঙ্গে কথাও বলেন তিনি।