নিউইয়র্ক সেন্ট্রাল পার্কের ভাস্কর্য নিয়ে নতুন বিতর্ক শুরু

ঠিকানা অনলাইন : নিউইয়র্ক সেন্ট্রাল পার্কের ভাস্কর্য নিয়ে নতুন করে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়েছে। কর্তৃপক্ষ পার্কের পুরুষ ভাস্কর্যের জায়গায় বিখ্যাত নারীদের মূর্তি নির্মাণে ঘোষণা দেয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে শুরু হয়েছে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা বিতর্ক। চূড়ান্তভাবে পার্কের ভাস্কর্যগুলির ভাগ্যে কী ঘটতে যাচ্ছে তা নিয়ে দেখা দিয়েছে ধোঁয়াশা।

চলতি বছরের জুনে অভিনেত্রী জেসিকা চেস্টেইন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে একটি ভিডিওর মাধ্যমে নিউ ইয়র্ক সেন্ট্রাল পার্কে কোন নারীমূর্তি না থাকার বিষয়টি এভাবেই সবার সামনে তুলে ধরেন।

১৮৫৭ সালে প্রতিষ্ঠিত পার্কটিতে রাজনীতিবিদ এবং অর্থনীতিবিদ আলেক্সান্ডার হ্যামিল্টন থেকে শুরু করে বিভিন্ন ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব, কবি, শিল্পী, সাহিত্যিক, যুদ্ধজয়ী মহানায়কদের পাশাপাশি গল্প উপন্যাসের কাল্পনিক চরিত্র ও বিভিন্ন জন্তু জানোয়ারের ভাস্কর্য থাকলেও নারীমূর্তি না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। ভাইরাল হওয়া ঐ ভিডিওতে ব্যঙ্গ করে অপ্রাহ উইনফ্রের আবক্ষমূর্তি নির্মাণেরও পরামর্শ দেন তিনি।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা সমালোচনার মধ্যেই সম্প্রতি নিউ ইয়র্কের পাবলিক ডিজাইন কমিশনের চিত্রশিল্পী হাঙ্ক উইলিস থমাস, উদ্যানে কয়েকটি পুরুষ আবক্ষমূর্তি ভেঙে সেখানে বিখ্যাত নারীদের ভাস্কর্য নির্মাণের প্রস্তাব দেন। স্কটিশ কবি রবার্ট বার্ন্স কিংবা ক্রিস্টোফার কলম্বাস কয়েকশ’ বছর ধরে যথেষ্ট সম্মানিত হয়েছেন উল্লেখ কোরে তাদের জায়গায় নারী ভাস্কর্য স্থাপনের প্রস্তাব করেন তিনি।

৮শ’ ৪৩ একর আয়তনের জায়গা জুড়ে অবস্থিত পার্কটিতে থাকা ২৩টি পুরুষ ভাস্কর্যের মধ্যে কয়েকটি ভেঙে নারী অধিকার আন্দোলনের অগ্রদূত এলিজাবেথ কেডি স্ট্যান্টন এবং সুজান বি এন্থোনির ভাস্কর্য স্থাপনের কথা জানান সিটি কমিশনার। তবে থমাসের দেয়া প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাসিও। ভাস্কর্য ভেঙে নয় বরং নতুন করে মূর্তি নির্মাণের পক্ষে তিনি।

থমাসের এই প্রস্তাবের সমালোচনা করেছেন টুইটার ব্যবহারকারীরাও। সিটি কমিশনারের প্রস্তাবনায় কোন অশ্বেতাঙ্গ নারীর নাম থাকায় ক্ষোভ জানিয়েছেন তারা।

অনেকে আবার ভাস্কর্য নিয়ে দেখা দেয়া সঙ্কটের সমালোচনা করেছেন। তারা বলছেন, শহরের কোন কোন সমস্যার দিকে অগ্রাধিকার দেয়া প্রয়োজন তাই জানেনা কর্তৃপক্ষ। ভাস্কর্যের চেয়ে শহরের গৃহহীন ও স্যানিটেশন সমস্যা সমাধানের দিকে মনোযোগ দেয়ার আহ্বান তাদের।