নিউ আমেরিকান ডেমোক্র্যাটিক ক্লাবের বার্ষিক ডিনার

মূলধারার রাজনীতিকদের মিলনমেলা

নিউ আমেরিকান ডেমাক্র্যাটিক ক্লাবের বার্ষিক ডিনারে অতিথিরা।

ঠিকানা রিপোর্ট : নিউ আমেরিকান ডেমাক্রেটিক ক্লাব, নিউ আমেরিকান ইয়ুথ ফোরাম ও নিউ আমেরিকান ওমেন্স ফোরামের ১১তম বার্ষিক ডিনার এবং মিট ও গ্রিট অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৫ জানুয়ারি রোববার কুইন্সের গুলশান টেরেসে অনুষ্ঠিত বার্ষিক ডিনারে যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। বর্ণাঢ্য এ অনুষ্ঠানে নিউইয়র্ক স্টেটের কম্পট্রোলার থমাস ডি’নেপোলি, নিউইয়র্ক সিটি কম্পট্রোলার ব্রাড ল্যান্ডার, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য ইভ্যাট ডি ক্লার্ক, নিউইয়র্ক স্টেট সিনেটর জন ল্যু ও জেসিকা গঞ্জালেজ, নিউইয়র্ক স্টেট অ্যাসেম্বলি সদস্য ডেভিড ওয়েপ্রিন, জেনিফার রাজকুমার ও ক্যাটালিনা ক্রুজ, সিটি কাউন্সিলম্যান শেখর কৃষ্ণানসহ বিপুল জনপ্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। তাদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানটি মূলধারার রাজনীতিক ও জনপ্রতিনিধিদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন নিউ আমেরিকান ডেমোক্রেটিক ক্লাব-এর প্রতিষ্ঠাতা মোর্শেদ আলম। মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন নিউ আমেরিকান ইয়ুথ ফোরামের প্রেসিডেন্ট আহনাফ আলম। এছাড়াও বক্তব্য দেন একুশে পদকপ্রাপ্ত লেখক, বিজ্ঞানী, নিউজার্সির প্লেইন্স বরো টাউনশিপের কাউন্সিলম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. নূরুন নবী, নিউইয়র্ক সিটি মেয়রের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-পরিচালক দিলীপ চৌহান ও এশিয়ান বিষয়ক উপদেষ্টা ফাহাদ সোলায়মান, প্রবীণ সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ, নিউ আমেরিকান ইয়ুথ ফোরামের নির্বাহী পরিচালক মুশরাত শাহীন অনুভা। শুভেচ্ছা বক্তব্য পর্বে সকলেই অভিবাসনের স্বপ্ন পূরণে আরো জোরালোভাবে মূলধারায় জড়িয়ে পড়ার আহ্বান জানান। নিউইয়র্কে বাংলাদেশিরা যেভাবে বেড়েছে, সে তুলনায় মূলধারায় নিজেদের স্থান করে নিতে এখন পর্যন্ত সক্ষম হননি। এই অভাব দূর করতে হবে। তবে সকলেই মোর্শেদ আলমের আন্তরিক আগ্রহের প্রশংসা করেছেন। কমিউনিটিতে বিশেষ অবদানের জন্যে অনুষ্ঠানে ডেমোক্রেটিক পার্টি কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট লিডার অ্যাট লার্জ অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী, ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির চ্যান্সেলর আবুবকর হানিপ, হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ চৌধুরী মঞ্জুরুল হাসান, ডিএনসি মেম্বার খোরশেদ খন্দকারসহ বেশ কয়েকজনকে ‘বিশেষ সম্মাননা ক্রেস্ট’ প্রদান করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানে নিউ আমেরিকান ওমেন্স ফোরামের নেত্রী অধ্যাপিকা হুসনে আরা এবং সালমা ফেরদৌসকে সিনেট মেজরিটি লিডার চাক শুমারের অফিস থেকে প্রক্লেমেশন প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে নিউ আমেরিকান ডেমোক্রেটিক ক্লাব, নিউ আমেরিকান ওমেন্স ফোরাম এবং ইয়ুথ ফোরামের সর্বস্তরের সদস্যগণকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। তারা দীর্ঘদিন ধরেই মূলধারায় কমিউনিটির সম্পৃক্ততা বৃদ্ধিকল্পে কাজ করছেন। আহনাফ আলম, নুসরাত আলম, পল গোপাল এবং অ্যাডভোকেট রুবাইয়া রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে মার্টিন লুথার কিং জুনিয়রের প্রতি সম্মান জানানোর আগে দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়।
অনুষ্ঠানে কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঠিকানার প্রধান সম্পাদক মুহম্মদ ফজলুর রহমান, বাঙালী সম্পাদক কৌশিক আহমেদ, বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভির সিইও আবু তাহের, ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির চ্যান্সেলর ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিপ, বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রব মিয়া, সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দীন দেওয়ান, নারী নেত্রী অধ্যাপিকা হুসনে আরা, বিশিষ্ট আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদার, ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন, কাজী আজম, মাকসুদুল এইচ চৌধুরী, আকাশ রহমান, লায়ন আহসান হাবিব, খলিলুর রহমান, অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান প্রমুখ।