পাবলিক চার্জে পড়লে গ্রিনকার্ড আবেদনকারীকে জমা দিতে হবে আই-৯৪৪ ও আই-৮৬৪ ফরম

মঈনুদ্দীন নাসের : ট্রাম্প প্রশাসন আমেরিকার পাবলিক চার্জ বা সরকারি সাহায্য নির্ভরতার আইনকে ইমিগ্রেশন নিয়ন্ত্রণের কৌশল হিসেবে ব্যবহার করছে। এ বিধির প্রভিশন অনুযায়ী আমেরিকায় কারা থাকার উপযুক্ত নয়, তার বিশদ বিবরণী ফেডারেল রেজিস্টারে প্রকাশ করা হয়েছে। এ বিধি আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে চালু হলে গ্রিন কার্ডের আবেদনকারীকে ফরম আই-৪৮৫-এর সাথে আবেদনকারীর আর্থিক সংকুলান সম্পর্কিত আই-৯৪৪ নামে একটি নতুন ফরম পেশ করতে হবে। এ ফরমে মূলত আবেদনকারীর আর্থিক সঙ্গতি বিশ্লেষণ করা হবে। পাবলিক চার্জ সম্পর্কিত তথ্যের স্বচ্ছ হিসাবের জন্য এ ফর্ম ব্যবহৃত হবে। পাবলিক চার্জ সম্পর্কিত নতুন বিধি নিয়ে এ পর্যন্ত আড়াই লাখেরও বেশি মানুষ মন্তব্য করেছে।
ফেডারেল রেজিস্টারে প্রদত্ত পাবলিক চার্জ বিধি ইমিগ্রেশন অনুসারে কারা ১. ভিসা পাওয়ার অনুপযুক্ত; ২. আমেরিকার প্রবেশাধিকার পেতে অনুপযুক্ত এবং ৩. হোমল্যান্ড সিকিউরিটি, স্টেট ডিপার্টমেন্ট অথবা জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক যেকোনো সময় পাবলিক চার্জে পড়তে পারে, তারা তাদের স্ট্যাটাস এডজাস্ট কিংবা গ্রিন কার্ড পাওয়ার জন্য উপযুক্ত নয়, সেসব বিষয়ে বিশ্লেষণ করা হয়েছে। এ স্ট্যাটিউটে অবশ্য পাবলিক চার্জ টার্ম সংজ্ঞায়িত করা হয়নি। কিন্তু কংগ্রেসের মতে জাতীয় নীতি হচ্ছে- ১. যেসব পরদেশি আমেরিকার সীমান্তের মধ্যে তাদের প্রয়োজন মেটাতে পাবলিক সম্পদের ওপর নির্ভর নয়, কিন্তু নিজেরা নিজেদের সামর্থ্যরে ওপর এবং তাদের পরিবারের, তাদের স্পন্সরদের এবং বেসরকারি সংগঠনের ওপর নির্ভরশীল এবং ২. পাবলিক বেনিফিট, যা কোনো আমেরিকান ইমিগ্রেশনের জন্য কোনো ইনসেনটিভ হিসেবে দেয়া হয় না, তাদের পাবলিক চার্জে পড়েছে কিংবা সরকারি সম্পদের ওপর নির্ভর হয়েছে বলা যাবে না। অ্যাসাইলাম বা রিফিউজিরা পাবলিক চার্জে পড়বে না।
তাছাড়া পাবলিক চার্জ স্ট্যাটিউটে বলা হয়, যে এজেন্সি এই স্ট্যাটিউট নির্ধারণ করবে, তাদের প্রবেশাধিকার নাকচ করার সময় অবশ্যই ন্যূনপক্ষে এলিয়েন বা ভিনদেশিদের স্বাস্থ্য, পারিবারিক স্ট্যাটাস, স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ও আর্থিক অবস্থা এবং শিক্ষা ও দক্ষতা সম্পর্কে বিবেচনা করতে হবে। এজেন্সি যেকোনো এফিডেভিট অব সাপোর্ট ফরম আই-৮৬৪, যা ভিনদেশিদের পক্ষ থেকে প্রদান করা হয়, তাও বিবেচনায় নিতে হবে।
১৯৯৯ সাল থেকে ইমিগ্রেশন ২৬ মে ১৯৯৯ সালে যে বিধান জারি করেছিল তার ভিত্তিতে ফিল্ড গাইডেন্স বা প্রবেশাধিকার দেয়া কিংবা বের করে দেয়ার বিষয়ে নির্ধারণ করে আসছিল। কিন্তু এখন যে ৪১ হাজার ২৯৫ পৃষ্ঠার বিবরণে পাবলিক চার্জ ব্যাখ্যা করা হয়েছে, তাতে যে ব্যক্তি সরকারি সহায়তার ওপর নির্ভর করে অর্থাৎ সব দায় থেকে নগদ কিংবা সোশ্যাল সিকিউরিটি নিয়ে আয় ব্যবস্থা করেন দীর্ঘ মেয়াদে তাদেরকে বোঝানো হয়েছে। এখন নগদ নয়, এখন এর মধ্যে সম্পূরক পুষ্টি সহায়তা কর্মসূচি (এসএনএপি) বা ফুড স্ট্যাম্প, মেডিকেইড ও হাউজিং ভাউচার যারা নিয়েছেন, তাদের পাবলিক চার্জের আওতায় আনা হবে। তবে অন্যান্য হাউজিং ভর্তুকি এখন কোনো এলিয়েনের ক্ষেত্রে পাবলিক চার্জ হিসেবে ধরা হয় না, ভবিষ্যতে তা পাবলিক চার্জ মনে করা হতে পারে। এসবের মধ্যে সরকারি অনুদান নিয়ে বাড়ি ভাড়ার ব্যবস্থা করাকেও বোঝানো হয়।
হোমল্যান্ড সিকিউরিটি এই পাবলিক চার্জ নীতি পুনর্মূূল্যায়ন করছে, যাতে এলিয়েনরা বা ভিনদেশ আর সরকারি অর্থের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে সচেষ্ট হয়।
কোন অফিসার কীভাবে তা নির্ধারণ করবে, তার জন্য নেতিবাচক ও ইতিবাচক ফ্যাক্টসমূহ বিবেচনায় নেয়া হবে। এসব ফ্যাক্টর বর্ণনার জন্য আই-৯৪৪ ফরম কোন গ্রিন কার্ড আবেদনের বেলায় জমা দিতে হবে, যাতে স্বচ্ছতার সাথে পাবলিক চার্জ নির্ধারণ করা যায়।
হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ১৮ বছরের কমবয়সী ও ৬১ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য পাবলিক চার্জ নেতিবাচক বা না ধরার পক্ষে। আর ১৮ থেকে ৬১ বছর বয়সীদের জন্য ইতিবাচকের পক্ষে, অর্থাৎ তাদের ক্ষেত্রে পাবলিক চার্জ ধরা হবে।
স্ট্যাটাস অ্যাডজাস্টমেন্ট বা গ্রিন কার্ডের আবেদনের জন্য এ বিধিতে আরো ব্যাপক নজির কাঠামো উপস্থাপনের ব্যবস্থা করেছে। যার মাধ্যমে পাবলিক চার্জের কারণে গ্রিন কার্ড বঞ্চিত করা যাবে। আর সে কারণে পাবলিক চার্জে আমেরিকার যাদের থাকতে দেয়া হবে না, তাদের আত্মনির্ভরতার ঘোষণা দিতে ফরম আই-৯৪৪ প্রদান করতে হবে।
তাছাড়া আবেদনকারীদের পাবলিক চার্জে পড়বে না এ মর্মে আই-৮৬৪ এফিডেভিট অব সাপোর্ট ফরম দিতে হবে। যারা আই-৪৮৫, আই-৯৪৪ ও ফরম আই-৮৬৪ ইমিগ্রেশন আইনের সেকশন ২১২(এ)(৪)(সি) অথবা (ডি) মোতাবেক জমা দিতে পারবে না, তাদের গ্রিন কার্ড আবেদন নাকচ করা হবে। হোমল্যান্ড সিকিউরিটি আরো নোট দিয়েছে যে, আইএনএর ডিপোর্টেবিলিটি নিয়ে পৃথক পাবলিক চার্জ গ্রাউন্ড অব ডিপোর্টেবিলিটি রয়েছে।