প্রবাসীদের সঙ্গে দূরত্ব না কমালে রেমিট্যান্স বাড়বে না : পরিকল্পনামন্ত্রী

ছবি সংগৃহীত

ঠিকানা অনলাইন : পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, বৈধ পথে রেমিট্যান্স আনতে সরকারের যারা কাজ করছে, তাদের সঙ্গে প্রবাসীদের দূরত্ব (গ্যাপ) থেকে যাচ্ছে। এটা ভয়ংকর, এটা কমাতে হবে। এটা করতে না পারলে রেমিট্যান্স বাড়ানো যাবে না।

৯ নভেম্বর বুধবার ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এমন অভিমত প্রকাশ করেন।

রাজধানীর পুরানা পল্টনে সংগঠনটির কার্যালয়ে ‘বৈধ পথে সহজে নিরাপদে ডিজিটাল মাধ্যমে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে করণীয়’ শীর্ষক এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে রেমিট্যান্স বাড়াতে অর্থনীতিবিদ, ব্যাংকার ও বিশেষজ্ঞরা নানা সুপারিশ তুলে ধরেন। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ও সানেমের চেয়ারম্যান ড. বজলুল এইচ খন্দকার।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের সাধারণ মানুষ যারা রেমিট্যান্স গ্রহণ করেন, তারা ব্যাংকে গিয়ে একধরনের সামাজিক ও মনস্তাত্ত্বিক ভোগান্তির শিকার হন। ফলে ঘরে বসেই অবৈধ পথে রেমিট্যান্স গ্রহণ করাকেও তারা অপেক্ষাকৃত সহজ মনে করেন।

তিনি আরও বলেন, আমাদের কালচারে ব্যাংকিং চ্যানেলে শুক্রবার, শনিবার ও রোববার বিদেশের সঙ্গে সপ্তাহে তিন দিন লেনদেন বন্ধ থাকছে। এ কারণে হুন্ডিতে লেনদেনের পথ বেছে নিচ্ছেন অনেকেই। প্রবাসী শ্রমিকরা উটের পিঠে উঠে কাজ করেন। আর সরকারের ডিসি, এসপি ও ব্যাংক কর্মকর্তারা অফিসে বসে কাজ করেন। তারা প্রবাসীদের সেভাবে দেখেন না। তবে অনেকে বিদেশ গিয়ে কয়েক দিন পরই ৫ হাজার ডলার পাঠান দেশে। এটা তাদের টাকা হতে পারে না। অন্যদের টাকা। তাই রেমিট্যান্সে প্রণোদনা আড়াই শতাংশ সবাইকে দেওয়া ঠিক হবে না – এটা আমি আগেই বলেছি।

তিনি আরও বলেন, সরকারপ্রধান ইনসাইড-আউটসাইডে কাজ করছেন। প্রথা ভেঙে একটা প্রবণতা চালু করতে চায়। আমি আর্থিক ব্যাপারে কাজ করি না। অর্থ মন্ত্রণালয় দেখে থাকে। তাই এ ব্যাপারটা নিয়ে তারা ও বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, বৈধ পথে রেমিট্যান্স বাড়াতে ডলারের বাজারে ভারসাম্য রাখতে হবে। বৈধ ও অবৈধ পথে ডলারের হারের পার্থক্য বেশি হলে প্রবাসী শ্রমিকরা হুন্ডিতে রেমিট্যান্স পাঠাতে আগ্রহী হন। প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য বিভিন্ন ধরনের সচেতনতামূলক কার্যক্রম নিয়ে তাদের দেশাত্মবোধ বাড়ালে তারা বৈধ পথে ডলার পাঠাতে আগ্রহী হবেন। পাশাপাশি ডিজিটাল সেবা বাড়ানোর ক্ষেত্রে মনোযোগ দিতে হবে।

মূল প্রবন্ধে সানেমের চেয়ারম্যান ড. বজলুল এইচ খন্দকার বলেন, ২০১৯ ও ২০২০ সালে দেশে রেমিট্যান্স আসা অনেক বেড়েছিল। ওই সময়ে সরকার প্রণোদনা চালু এবং ডিজিটাল লেনদেন বাড়ানোসহ নানা পদক্ষেপ নিয়েছিল। বর্তমানে রেমিট্যান্স আনতে বৈশ্বিকভাবে গড়ে ৬ শতাংশের বেশি খরচ হচ্ছে। এটা কমিয়ে আনতে হবে। হুন্ডির মাধ্যমে দ্রুত ও অনেক কম খরচে টাকা পাঠানোর সুবিধার কারণেই ওই পথ তারা বেছে নিচ্ছে। এখন থেকে বৈধ পথে আনতে এমএফএসসহ ডিজিটাল মাধ্যমের ব্যবস্থা করতে পারলে খরচ ও সময় অর্ধেক কমানো সম্ভব হবে। এ ক্ষেত্রে রেমিট্যান্স আসার পরেই তা ক্যাশ আউট হয়ে গেলে কিন্তু সর্বোচ্চ সুবিধা পাওয়া যাবে না। বরং ইকোসিস্টেম শক্তিশালী করে ডিজিটাল মাধ্যমেই তা ব্যবহার করলে দেশের অর্থনীতি আরো বেশি শক্তিশালী হবে। এ জন্য দেশেও ডিজিটাল ফাইন্যান্স সেবা বাড়াতে হবে।

পলিসি এক্সচেঞ্জ অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাসরুর রিয়াজ বলেন, রেমিট্যান্স ডিজিটাল মাধ্যমে দ্রুত আনা সম্ভব। অল্প সময়ে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ডিজিটাল মাধ্যমের বিকল্প নেই। এই রেমিট্যান্স বাড়াতে পারলে ব্যালেন্স অব পেমেন্টের ঘাটতি মেটানো সম্ভব হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক শরমিন্দ নিলোর্মি বলেন, শ্রমিকদের জন্য ডিজিটাল পদ্ধতিতে ব্যাংকিং চ্যানেলে সহজে ও দ্রুত টাকা পাঠানোর ব্যবস্থা করা গেলে তারা সেই পথ বেছে নেবে। যারা দেশে থেকেই রেমিট্যান্স আয় করেন, তাদেরও স্বীকৃতি দিতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক নির্বাহী পরিচালক ও বিএফআইইউর সাবেক উপপ্রধান ইস্কান্দার মিয়া বলেন, অবৈধভাবে যে শ্রমিকরা বিদেশে গেছেন, তাদের টাকা কীভাবে বৈধ পথে আনা যায় তার ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে এমএফএস এজেন্টদের সম্পৃক্ত করা যেতে পারে। টাকা পাচারের পথ বন্ধ করতেও উদ্যোগ নেওয়া জরুরি।

বিকাশের চিফ এক্সটার্নাল অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মেজর জেনারেল (অব.) শেখ মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, বৈধপথে তাৎক্ষণিক সরকারি প্রণোদনাসহ বিকাশে রেমিট্যান্স পাঠানোর সেবা দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। এই মুহূর্তে বিশ্বের ৭০টি দেশ থেকে ৭৫টি মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ১২টি বাণিজ্যিক ব্যাংকে সেটেলমেন্ট হয়ে বিকাশ অ্যাকাউন্টে রেমিট্যান্স আসছে। ২০২১ সালে বিকাশে ২ হাজার ৪২৭ কোটি টাকার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। এ বছর শেষে তা প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি পৌঁছে যাবে।

উন্নয়ন সমন্বয়ের ইমেরিটাস ফেলো খন্দকার সাখাওয়াত আলী বলেন, প্রবাসীদের আয় করা ডলার একটি গ্রুপ রেখে দিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে উৎস পর্যায়ে হুন্ডির সমাধান করতে হবে। পাশাপাশি সরাসরি প্রবাসীদের এমএফএসে রেমিট্যান্স পাঠানোর সুবিধা চালু করা সম্ভব হলে বৈধ পথে রেমিট্যান্স বাড়ানো সম্ভব হবে।

ইআরএফ সভাপতি শারমীন রিনভীর সভাপতিত্বে গোলটেবিল বৈঠকটি সঞ্চালনা করেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশিদুল ইসলাম।

ঠিকানা/এনআই