প্রবাসে বড়দিন উদযাপন

ঠিকানা রিপোর্ট : উৎসব-আনন্দ আয়োজন আর প্রার্থনার মধ্য দিয়ে প্রবাসে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী বাংলাদেশিরা উদযাপন করেছেন যিশুখ্রিস্টের জন্মতিথি বড়দিন। এ উপলক্ষে বিভিন্ন সংগঠন বিভিন্ন চার্চ ও মিলনায়তনে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বড়দিন উপলক্ষে ফুল, রঙিন কাগজ আর আলোয় আলোয় সাজানো হয়েছিল গির্জাগুলো। ক্রিসমাস ট্রি সাজানো হয়েছিল নানা রঙের আলোয়। খ্রিস্টের জন্মের ঘটনার প্রতীক গোশালাও বানানো হয়েছিল।

নিউইয়র্ক : বেঙ্গলি লুথারেন চার্চে বড়দিনের অনুষ্ঠান। ছবি-ঠিকানা

বড়দিন ছিল ২৫ ডিসেম্বর রোববার। তবে এর আগে শনিবার রাত থেকেই উৎসবে মেতে ওঠেন খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীরা। বাড়ি বাড়ি চলে উৎসব।
যিশুখ্রিস্টের মতে- মানুষের পরিত্রাণের উপায় হল জগতের মাঝে ভালোবাসা, সেবা, ক্ষমা, মমত্ববোধ, সহানুভূতি ও ন্যায় প্রতিষ্ঠাসহ শান্তিপূর্ণ অবস্থান। পূর্ণ অন্তর, মন ও শক্তি দিয়ে তিনি ঈশ্বর ও সব মানুষকে ভালোবাসতে শিক্ষা দিয়েছেন। বড়দিনের এই উৎসবে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির বন্ধনও চোখে পড়েছে।
নিউইয়র্কে বিভিন্ন গির্জা ও উপাসনালয়ে প্রার্থনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় বড়দিনের উদযাপন। সেখানে মঙ্গলবাণী পাঠের মাধ্যমে নিজের পরিশুদ্ধি এবং জগতের সব মানুষের জন্য মঙ্গল কামনা করা হয়। সকালে বিভিন্ন গির্জায় শুরু হয় বড়দিনের প্রার্থনা। সার্বজনীন সে প্রার্থনায় অংশ নেন খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী নারী-পুরুষ ও শিশু। গির্জার পাশাপাশি খ্রিস্টানদের বাড়িতে বাড়িতে চলে নানান অনুষ্ঠান। বড়দিন উপলক্ষে গত ২৫ ডিসেম্বর রোববার উডসাইডের ইউনাইটেড বেঙ্গলি লুথারেন চার্চে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল প্রার্থনা, প্রভুর বাক্য পাঠ ও সঙ্গীতানুষ্ঠান।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল ড. মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম।

নিউইয়র্ক : বেঙ্গলি লুথারেন চার্চে বড়দিনের অনুষ্ঠান। ছবি-ঠিকানা

অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ইউনাইটেড বেঙ্গলি লুথারেন চার্চের সভাপতি ডা. টমাস দুলু রায় এবং সাধারণ সম্পাদক মানিক আরশাদ, সিনিয়র প্যাস্টর জেমস রায়. প্যাস্টর কমল দেব, জেমস নির্মল সরকার, এডওয়ার্ড হালসানা, ওমি প্লাসিড সরকার, এ বাসেদ, জন এস. বাড়ৈ, বাপী অধিকারী, ফ্রান্সিস রোজারিও, প্যাট্রিক বিশ্বাস, টিটু কুইয়া, বাবু প্রমুখ।
এদিকে কাটরিন লাভ ফর বাংলাদেশ ও গ্লোবাল বাংলা মিশনের যৌথ উদ্যোগে গত ২৩ ডিসেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের নবান্ন রেস্টুরেন্ট পার্টি হলে বড়দিন উদযাপিত হয়। অনুষ্ঠানে খ্রিস্টান ধর্মে বিশ্বাসী ও কমিউনিটির সুধীজন ব্যাপক উদ্দীপনা, উচ্ছ্বাস ও আনন্দে বড়দিন উদযাপন করেন।
অনুষ্ঠানের শুরুতে সঞ্চালক রেভারেন্ড যোসেফ ডি. বিশ্বাস অতিথিদের অভ্যর্থনা জানান। বড়দিনের ধর্মীয় গান পরিবেশন করেন জর্জ পিন্টু অধিকারী ও তার দল। বাইবেল পাঠ করেন পিয়ালী বৈদ্য। প্রারম্ভিক প্রার্থনা করেন রেভারেন্ড অ্যালড্রিন পি বৌদ্য। অল ন্যাশন চার্চ বালা গ্রুপ আয়োজকদের পক্ষে স্বাগত জানান। রিচ বালা মিশনের পরিচালক রেভারেন্ড ড. প্রদীপ দাস, পরিচালক, ক্যাটর্না লাভ ফর বাংলাদেশের কেলভিন মন্ডল, গ্লোবাল বাংলা মিশনের রেভারেন্ড যোসেফ ডি বিশ্বাস।
বিজয়ের মাসে দেশের গান পরিবেশন করেন মনিরা দাস। ঢোলক ছিলেন শফিক মিয়া। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সেন্টার রিচ বাইবেল চার্চ মিশন চেয়ারপ্যারসন জন হওয়েল। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডেমোক্রেটিক পার্টির কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট লিডার অ্যাট লার্জ অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী, শোটাইম মিউজিকের কর্ণধার আলমগীর খান আলম, জেএফকে বাংলাদেশি কল্যাণ সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি গফুর খান, জর্জ পিন্টু অধিকারী।

নিউইয়র্ক : কাটরিন লাভ ফর বাংলাদেশ ও গ্লোবাল বাংলা মিশনের যৌথ উদ্যোগে বড়দিনের অনুষ্ঠানে অতিথি ও আয়োজকবৃন্দ। 


সান্তা ক্লোজ সেজেছিলেন গ্লেন গার্থী। সংগীত পরিবেশন করেন মনিকা দাস, শেলী বড়ুয়া, তম কর।