ফ্লু মোকাবেলা করণীয়

ঠিকানা রিপোর্ট: অন্যান্য বছরের মত এবারও ফ্লু মৌসুম সমাগত। তাই ফ্লু মৌসুমকে সামনে রেখে সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন আগে-ভাগেই সতর্কতা অবলম্বনের জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।
মূলত শিশু-কিশোর, বয়সী লোকজন এবং শারীরিক নানা সমস্যা কবলিতরাই ফ্লুতে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। সামান্য অযত্ন অবহেলার ফলে ফ্লু কোন কোন ক্ষেত্রে প্রাণ সংহারেরও কারণ হয়ে থাকে। ফ্লুর ক্ষতিকর দিকগুলোর প্রতি সজাগ দৃষ্টি রেখে সিটি প্রশাসন এবং সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন সকল বয়সী আমেরিকানকে অক্টোবরের শেষ ভাগ থেকে ভ্যাক্সিন বা টীকা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে।
শুরুতে ভয়াবহ আকার ধারণ না করলেও প্রতি বছর জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারিতে ফ্লু মহামারির আকার ধারণ করে এবং অনেকেরই প্রাণ নাশের কারণ হয়ে থাকে। স্বাস্থ্য বিভাগের মতামত অনুসারে প্রায় ১৩ সপ্তাহ ফ্লু প্রকট আকার ধারণ করে। এটি অত্যন্ত ছোঁয়াচে রোগ। হাঁচি কাশি, স্পর্শসহ নানা ভাবে এটি বিস্তার লাভ করে। তাই ফ্লুর থেকে বাঁচার জন্য সর্বদা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে। গরম পানিতে হাত ধুতে হবে। এছাড়াও চিকিৎসকদের পরামর্শ মত সকল কাজ করতে হবে। এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ থেকে মের মাঝামাঝি সময়ে ফ্লুর প্রকোপ বিদায় নেয়।