বাফেলোতে বাড়ি ক্রয়-বিক্রয়: দাম বাড়ায়-দমকায়!

একদিন একটা কল এলো, দরাজ গলায় প্রশ্ন করলেন ভাই পত্রিকায় দেখলাম আপনার একটা বাড়ি বিক্রি হবে, তাই কি?
জি ভাই
আচ্ছা আমার একজন খুবই কাছের মানুষ এবং খুবই বিশ্বস্ত বন্ধু বাফেলোতে থাকে নাম দমকা। আপনি অনুমতি দিলে একদিন এসে আপনার বাড়িটা দেখবে, খুব বিনয় নিয়ে অনুরোধের সুরে দমকা নামের বন্ধুকে আমি যেনো আমার বাড়িটা দেখাই সে কথাটাই বললেন। আমি ফোনের এ প্রান্ত থেকে মুচকি হেসে বললাম, বাড়ি কি আপনার জন্য নাকি দমকার জন্য?
না না আমার জন্য
তাহলে আপনি-ই আগে দেখেন
কোনো সমস্যা নেই ভাই। তিনি আমার খুব বিশ্বস্ত এবং প্রিয় মানুষ, আমরা কোন এক সময় একই বাসায় ছিলাম পাশাপাশি।
লম্বা একটা দম নিয়ে কথাগুলো বললেন ভদ্রলোক। আমি আবার বললাম, খুবই ভালো লাগলো আপনাদের বন্ধুত্ব এবং বিশ্বস্ততার কথা শুনে, তবুও আমি মনে করি বাড়ি গাড়ি আর বউ নিজে দেখে পছন্দ করা উচিত।
আমার কথা শুনে লোকটি হো হো করে হেসে উঠলেন, তারপর বললেন আপনার কথাটা খুবই মজা লাগলো ভাই আপনি বোধ হয় বেশ রসিক টাইপের মানুষ। রসিক টাইপ মানুষগুলোর মন খুব বড় হয়, উদার হন তারা।
আমি ছোট্ট করে বললাম, পাম দিলেন!!
আবারও হো হো করে হেসে উঠলেন ভদ্রলোক এবং বললেন না-রে ভাই পাম দেয়ার কিছু নেই, সত্যি আপনাকে আমার ভালো লেগেছে, চলে আসেন একদিন, বাড়ী দেখে সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। আমি আবারও আসার অনুরোধ করলাম, ভদ্রলোক দীর্ঘ একটা শ্বাস টেনে বললেন, ভাইরে বললেই তো আসা যায় না, ছুটি ছাটা পরিবার পরিজন, সময় ম্যানেজ করা খুবই টাফ !!
বুঝি ভাই সিটির জীবন খুবই শৃঙ্খল, চেইন এর মতো সময়ের চাঁকা বাঁধা, একটু এদিক সেদিক হলেই চাকা উল্টো দিকে ঘুরে যেতে পারে। আমিও ছিলামতো ওখানে, তাই কিছুটা হলেও জানি। তবুও বলছিলাম…।
এতো টাকা দিয়ে বাড়ি কিনবেন জীবনের অনেক কষ্টের ঘাম ঝরা পয়সা ইনভেস্ট করবেন নিজের পছন্দ অপছন্দের একটা ব্যাপার থাকে না !!
আমার কথা শুনে ভদ্রলোক মৃদু হাসলেন মনে হলো, তারপর বললেন, ভাই বিশ্বাসের উপর আর কোন বড় কিছু আছে কি?
ওহ্! ঠিক বলেছেন, আপনার বিশ্বাস যদি এতোটাই প্রকোট হয় তাহলে তো আমার কিছু বলারও নেই, করারও নেই।
বিশ্বাসে মিলায় বস্তু/ তর্কে বহু দূর।
আমার কথার শেষে বাক্যটা জুড়ে দিতেই ভদ্রলোক বললেন, জানেন! মি. দমকা (ছদ্মনাম) যদি আমাকে এক গ্লাস বিষ দিয়ে বলে ভাই শরবত খান আমি চোখ বন্ধ করে খেতে পারবো।
জি ভাই বুঝতে পেরেছি।
আমি কি মি. দমকাকে আপনার সাথে যোগাযোগ করতে বলবো? প্রশ্ন করলেন ভদ্রলোক। আমি শুধু বললাম সিউর।
ভদ্রলোকের সাথে কথা শেষ করার ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যেই মি. দমকার কল!! আসতে বললাম, আসলেন, বাড়ি দেখলেন, দাম করলেন।
মি. দমকার প্রস্তাব শুনে আমি অবাক! বিস্ময়ে হতবাক [চোখে তার দিকে কতক্ষণ যে তাকিয়ে ছিলাম আমি ঠিক বলতে পারবো না।
বাতাস বেরিয়ে চুপসে যাওয়া বেলুনের মতো নেতিয়ে যাওয়া কণ্ঠে প্রশ্ন করলাম মি. দমকাকে, কি বলেন ভাই! এটা কিভাবে সম্ভব!!
সম্ভব অসম্ভব ভাই আপনার ব্যাপার, আপনি আমি ঠিক থাকলে সবই সম্ভব। আর হ্যাঁ আপনার বাড়ি যতো সুন্দরই হোক বা ভালো হোক আমি যদি বলি গোলমাল আছে ভাই, তিনি আপনার বাড়ি মাগনা দিলেও নেবে না। সুতরাং আপনার যদি বাড়ি বিক্রি করার দরকার মনে করেন তাহলে আমার প্রস্তাব মেনে নিতে পারেন। তাই বলে দশ হাজার ডলার বলবো দাম এ আপনি এক দুই হাজারের যায়গায় না হয় তিন চার বা পাঁচ হাজারই খান; কিন্তু একে বারে দশ হাজার ডলার !!!
আপনার সমস্যা কোথায়? আপনার দামতো আপনি পাচ্ছেন, ঐ দশ হাজার ডলার তো আপনার পকেট থেকে যাচ্ছে না। মি দমকা খুব চটজলদি বলে ফেললেন কথাটা। আমি বিনয়ের কণ্ঠে বললাম।
ভাই আমি এতো টাকা ইনভেস্ট করে বাড়ি রেডি করেছি; আমি এখনও শিউর না যে এ বাড়ীতে আমার দশ হাজার লাভ হবে কি না!! আর আপনি জাস্ট মধ্যখানে এসে ঐ ভদ্রলোকের বিশ্বাসটাই খেয়ে ফেলবেন দশ হাজার ডলারে!!
আমার কথাগুলো শুনে মি. দমকা একটা ব্যাখ্যা দাঁড় করানোর চেষ্টা করলো, বললো শোনেন ভাই! ওরা যখন আসবে আমাকে যথেষ্ট সময় দিতে হবে, গাড়ি নিয়ে ঘুরতে হবে, ঘোরাতে হবে, খাওয়াতে হবে, আমার সব কাজ কাম বাদ দিয়ে ওদেরকে সময় দিতে হবে। তাও কি একবার দুবার!! না, তা হবে অনেক বার। এখন যেহেতু বাড়ি কিনবে, নেক্সট টাইমে বাড়ির অছিলায় বাড়ি দেখা, সামার ভেকেশান, উইন্টার ভেকেশান সব এসে থাকবে বাফেলোতে, আমি তো বার বার তাদের কাছ থেকে টাকা নিতে পারবো না। তাই একবারে যা পারছি নিয়ে নিচ্ছি!!!
মি. দমকার দীর্ঘ বক্তৃতা শুনে আমি বললাম, এতে ক্ষতি বা বদনামটা কার জানেন?
কার
আমার
আপনার ক্ষতি হতে যাবে কেনো?
আপনি তো আপনার পুরো দাম নিয়েই যাচ্ছেন।
না নিচ্ছিনা তো, দশ হাজার ডলার এর একটা ঘাপলা আমি আমার মাথায় চাপিয়ে রাখলাম। যা ভুত হয়ে পুরো এলাকায় আমার বদনাম রটাবে।
আপনারই সামনে আপনার বন্ধু যখন বাফেলোতে কারো দ্বারা জিজ্ঞাসিত হবেন, বাড়ির দাম কতো? উনি কিন্তু আপনার (দমকা) খাওয়া দশ হাজার ডলারসহ বলবেন ৭০,০০০ উইএস ডলার। বাড়ির দাম ষাট হাজার, আপনার বন্ধুকে কিনতে হলো সত্তর হাজার দিয়ে। কারণ সে আপনার বন্ধু, আপনার মতো মতো একজন বন্ধু না থাকলে তিনি ষাট হাজার টাকায় এ বাড়িটি কিনতে পারতেন। দুর্ভাগ্য তাঁর !!!
প্রশ্ন হলো এই যে, এখানে আলোচিত ভদ্রলোকের দমকায় খাওয়া দশ হাজার ডলার জালিয়াতির দায়ভার কে নেবে?
যারা বাড়ি কিনতে আসেন তারা। আবার বাড়িওলা বা সেলার এর কথা বিশ্বাস করেন না, বিশ্বাস করেন দমকার কথা, দমকারা মাঝখানে থেকে উল্কার বেগে ঝড় বাড়িয়ে দেয়। আমি গত কয়েক মাস পূর্বে এক মৌলভী সারের মাধ্যমে তার বন্ধুর জন্য দুটো বাড়ি বিক্রি করেছিলাম, বন্ধু আবার তথাকথিত ধার্মিক মানুষ!! দাবি করলেন তাকে পাঁচ হাজার টাকা দিতে হবে। বললাম তিন হাজার দেবো মৌলভী সার এমন চাল চালালেন, আমাকে দিয়ে টাকা বাকী রাখিয়ে ক্লোজিং করালেন এবং আমার টাকা অপরিশোধিত থাকা অবস্থায় মৌলভী এবং তার তথাকথিত ধার্মিক বন্ধু বাড়ি দুটো অন্য আরেক জনের কাছে আরো দশ হাজার ডলার বেশি মূল্যে বিক্রি করে দিলেন।
এসব দেখে আমার এক বন্ধু বলল আপনি একজন বুদ্ধিমান চালাক মানুষ, শিক্ষিত মানুষ, এমনি ছেড়ে দিলেন?
আমি বললাম, বিশ্বাস যেখানে বিক্রি হয় সেখানে কিছু করার থাকে না।
অবশ্যই করব,
কি করবেন- আমার বন্ধুর উৎসাহী গলা, বললাম।
গাই গাইবো,
চেয়ে চেয়ে দেখলাম
বাড়ি চলে গেলো/বাড়ি চলে গেছে
আমার বলার কিছু ছিল না গো
আমার বলার কিছু ছিল না
আমেরিকা।