বিদেশিদের ভিড়ে দুই বাংলাদেশি

স্পোর্টস রিপোর্ট : প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে এবারই প্রথম বিদেশিদের ভিড়ে বাংলাদেশের ফুটবলারদের নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। অতীত ফুটবলে দেখা যায় গোলদাতা থেকে শুরু করে সবক্ষেত্রেই বিদেশিদের দখল। এবার আর সেটা হয়নি। বিদেশি ফুটবলারদের সঙ্গে দেশি ফুটবলারদের দখলও রয়েছে। লিগের পারফরম্যান্স বিচারে বিদেশিরা ভালো করেছেন। কিন্তু সেই ভালো করার সংখ্যাটা অন্যান্যবারের মতো দেশিদের ছাড়িয়ে যেতে পারেনি। আবাহনীর ফুটবলার নাইজেরিয়ান সানডে ভালো খেলোয়াড়দের তালিকায় ছিলেন। ছিলেন আবাহনীর আফগান ফুটবলার মাসিহ সাইঘানি। রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলে খেলা কোস্টারিকার ফরোয়ার্ড লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরার ড্যানিয়ের কলিন্দ্রেস। ব্রাজিলের মারকোস ভিনিসিয়াস দারুণ ফুটবল খেলেছেন। হাতেগোনা আরো দু-একজন ফুটবলার পাওয়া যাবে। তবে এদের ভিড়ে দেশি ফুটবলারদের পারফরম্যান্স ছিল সবার আলোচনায়। প্রিমিয়ার লিগ রানার্সআপ আবাহনীর স্ট্রাইকার নাবীব নেওয়াজ জীবনসেরা গোলদাতার তালিকায় এসেছেন। সর্বোচ্চ গোলদাতা না হলেও জীবন জাতীয় দলে আরো আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলতে পারবেন। আগের চেয়ে জীবন এখন অনেক বেশি প্রাণবন্ত একজন স্ট্রাইকার। ১৭ গোল করে এই স্ট্রাইকার দেশের হয়ে এবার গোল করার জন্য মরিয়া। ১০ সেপ্টেম্বর আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের খেলা। সেখানে গোল করতে চান জীবন। গত ৪ আগস্ট বিকেলে আবাহনীর অনুশীলনে আবাহনীর ফুটবলাররা নিজেদের মধ্যে টুকটাক কথা বলেছেন সানডে, জীবন, মাসিহ সাইঘানিরা। সানডে সর্বোচ্চ গোলদাতা না হওয়ায় কোনো আফসোস নেই। জীবন যেমন অভিনন্দন জানিয়েছেন সানডেকে। সানডেও অভিনন্দন জানিয়েছেন জীবনকে। প্রিমিয়ার লিগে এবার সেরা উদীয়মান ফুটবলারের পুরস্কার পেয়েছেন আরামবাগের রবিউল হাসান। এই ফুটবলার সাম্প্রতিক সময়ে জাতীয় দলে দারুণ পারফরম্যান্স করে আসছিলেন। ক্লাব ফুটবলে আক্রমণ ভাগে ছিলেন তিনি। জাতীয় দলে গিয়েও রবিউল গোল করে সবার নজর কেড়ে নিয়েছেন আপন যোগ্যতায়। বয়স মাত্র ১৯ বছর। এর মধ্যেই জাতীয় দলের জার্সি গায়ে সাতটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা হয়ে গেছে তার। জীবনের শুরুতেই বড় স্বীকৃতি পেয়ে গেছেন। গত ৩ আগস্ট রাতে যখন তার নাম ঘোষণা করা হয় তখন রবিউল ছিলেন টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলায়। নিজ হাতে পুরস্কার নিতে পারেননি।

গত ৪ আগস্ট সংবাদ মাধ্যমকে বলছিলেন, ‘তিন বছর ধরে খেলছি আরামবাগে, এবার পুরস্কার পেলাম খুব ভালো লাগছে। এমন একটি দিনের অপেক্ষায়ই ছিলাম।’ গত ৬ জুন ভিয়েনতিয়েনে লাওসের বিপক্ষে গোল করে জিতিয়েছিলেন বাংলাদেশকে। সেই জয়ে ২০২২ বিশ্বকাপ ও ২০২৩ এশিয়ান কাপের বাছাই মঞ্চে এক পা রাখে বাংলাদেশ, পাঁচ দিন পর ঢাকায় ফিরতি ম্যাচে ০-০ ড্র করে স্বপ্নপূরণ। এর আগে ৯ মার্চ রবিউলের দুর্দান্ত শটে স্বাগতিক কম্বোডিয়াকে হারিয়েছে বাংলাদেশ।

লিগের আরেক প্রাপ্তি, সেরা গোলকিপার। শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের গোলকিপার আশরাফুল রানাকে জাতীয় সুযোগ দেয়া হয় খুব কমই। সেই আশরাফুল বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্রথম ধাপের খেলায় সুযোগ পেয়ে দারুণ পারফরম্যান্স করেছিল। ক্লাব ফুটবলে শেখ রাসেলকে তৃতীয় স্থানে রাখতে এই গোলকিপার দারুণ ভূমিকা রাখলেন। আশরাফুল রানার পুরস্কার দেশের অন্যান্য গোলকিপারদের আরো বেশি উজ্জীবিত করবে। আরো ভালো খেলার প্রেরণা দেবে।