বুয়েট ছাত্র ফারদিন আত্মহত্যা করেছেন : ডিবি

ছবি সংগৃহীত

ঠিকানা অনলাইন : বুয়েট ছাত্র ফারদিন নূর পরশ আত্মহত্যা করেছেন বলে দাবি করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। ডিবির প্রধান হারুন অর রশিদ ১৪ ডিসেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

হারুন অর রশিদ বলেন, বিভিন্ন আলামত পর্যবেক্ষণ করে মনে হচ্ছে, ফারদিন আত্মহত্যা করতে পারেন।

নিখোঁজের ৩ দিন পর গত ৭ নভেম্বর বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ফারদিনের অর্ধগলিত মরদেহ নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়।

এদিকে বুধবার বিকেলে র‍্যাবের গণমাধ্যম শাখা থেকে জানানো হয়—বুয়েট ছাত্র ফারদিনের মৃত্যু-সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এবং অগ্রগতি পেয়েছে র‍্যাব। এর পরই ডিবির পক্ষ থেকে আত্মহত্যার খবর জানানো হলো।

পরে একই দিন সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটার দিকে র‍্যাব থেকে জানানো হয়, কারওয়ান বাজারে সংস্থাটির মিডিয়া সেন্টারে বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের মৃত্যু-সংক্রান্ত প্রেস ব্রিফিং করবেন আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

যদিও ফারদিন নূর পরশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, আঘাতজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। মাথায় ও বুকের পাঁজরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। মূলত মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের ফলেই তার মৃত্যু হয়।

১৭ নভেম্বর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয় নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন এএফএম মশিউর রহমানের কাছে। ময়নাতদন্ত করেন ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালের আরএমও শেখ ফরহাদ।

সিভিল সার্জন এএফএম মশিউর রহমান বলেন, ফারদিনকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তার বুকের দুই পাশে দু-তিনটি ভোঁতা অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন আমরা পেয়েছি। পাশাপাশি তার মাথায় চার-পাঁচটি আঘাতের চিহ্ন ছিল। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে।

ঠিকানা/এনআই