ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মুখে টেঁটা মেরে আ.লীগ নেতাকে হত্যা

ছবি সংগৃহীত

ঠিকানা অনলাইন : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আওয়ামী লীগের এক নেতাকে টেঁটা মেরে হত্যা করা হয়েছে। ২৯ জানুয়ারি রোববার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে উপজেলার ছলিমাবাদ ইউনিয়নের তাতুয়াকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র তাতুয়াকান্দি গ্রামের ইকবাল (৫০) ও সাবেক ইউপি সদস্য অলির (৪০) বিরোধ চলছিল। সেই বিরোধের জেরে রোববার সন্ধ্যায় ইকবালের পক্ষের লোকেরা অলির বাড়িতে টেঁটা ও অন্যান্য দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এতে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় মুখ ও শরীরের বেশ কয়েকটি স্থানে টেঁটার আঘাতে জখম হন অলি। স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অলির স্ত্রী হাসি বেগম বলেন, ‘জাহাঙ্গীর, ইকবাল, মিজানসহ তাদের বাহিনীর সবাই আমার স্বামীকে ঘিরে ফেলে। এরপর তাকে এলোপাতাড়ি কোপানো হয়। আঘাত করা হয় টেঁটা দিয়ে। আমি স্বামী হত্যার বিচার চাই।’

অলির ছেলে মারুফ বলেন, ‘বাবার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। আমি ছোট মানুষ, আমাকে ধরতে পারেনি। আমাকেও টেঁটা দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। আমার চোখের সামনে আমার বাবাকে হত্যা করেছে তারা।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মণিরঞ্জন সাথি বলেন, ‘আমাদের কাছে আনার আগেই তিনি মারা গেছেন। তার পা ও হাতের রগ কেটে গেছে। মুখে ও সারা শরীরে রয়েছে টেঁটার আঘাতের চিহ্ন।’ মুখে একটি টেঁটা বিদ্ধ অবস্থায়ই অলিকে হাসপাতালে আনা হয় বলে জানান ওই চিকিৎসক।

জানতে চাইলে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জালাল মিয়া বলেন, ‘অলি মেম্বার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। পূর্বশত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষ হামলা চালিয়ে থাকতে পারে। কয়েক বছর আগে তাদের ড্রেজার ব্যবসা নিয়েও সংঘর্ষ হয়েছিল।’

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জয়নাল আবেদিন বলেন, ‘আমরা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের খুঁজে বের করব। এ নিয়ে এখনো কেউ আটক আছেন কি না, তা থানা থেকে খোঁজ নিয়ে জানতে হবে।’

ঠিকানা/এনআই