বয়স একটু বাড়লেই নায়ক-নায়িকাদের নিয়ে আর ভাবা হয় না

ঢাকাই ছবির প্রিয়দর্শিনীখ্যাত নায়িকা মৌসুমী। ১৯৯৩ সালের ২৫ মার্চ রূপালী পর্দায় যাত্রা তার। ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ দিয়ে বাজিমাত করার পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি। দুই যুগের বেশি সময় ধরে দাপটের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন ঢাকাই চলচ্চিত্রে। তবে এখন কেন্দ্রীয় চরিত্রে তাকে খুব একটা দেখা যায় না। আগামী ১৪ ডিসেম্বর দেশের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে তার অভিনীত ছবি ‘রাত্রির যাত্রী’। ছবিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে দেখা যাবে এ নায়িকাকে।
ছবিটি নিয়ে মৌসুমী বলেন, ‘রাত্রীর যাত্রী দারুণ একটি গল্পের ছবি। এ ধরনের গল্পের ছবি সাধারণত আমাদের দেশে খুব একটা দেখা যায় না। ছবিটি নির্মাণে পরিচালকের কষ্টটা অনেক কাছ থেকে দেখা আমার। আশা করি তার কষ্ট বিফলে যাবে না।’ ছবিটিতে ময়না চরিত্রে অভিনয় করেছেন মৌসুমী। চরিত্রটি নিয়ে অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে মৌসুমী বলেন, ‘বেশ কয়েক বছর আগে অভিনয় করেছি ছবিটিতে। ছবিটির গ্রামের গরিব ঘরের সহজ-সরল শিক্ষিত নারী ফাতেমা পারভীন ময়না চরিত্রে দেখা যাবে আমাকে। আমাদের সমাজের চেনা জানা অনেক নারীর ছায়া রয়েছে। সাধারণ একটি চরিত্রকে অসাধারণ করে তুলেছেন পরিচালক। বাবাহীন ময়না অসুস্থ মাকে থাকেন সংসার চালান। ঢাকা শহরে এসে সে নানা ধরনের অভিজ্ঞতার মুখে পড়েন। পরে নতুন এক ময়না আবিষ্কৃত হয়।’
ছবিটিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে আপনি অভিনয় করেছেন। কিন্তু আপনাকে এখন কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যায় না। এর কারণ কী? প্রশ্ন রাখতেই মৌসুমী বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে একটা কমন কথাই বলতে হবে। আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে নায়ক নায়িকাদের বয়স একটু বাড়লেই তাদের নিয়ে আর ভাবা হয় না। তার যে দীর্ঘ দিনের অভিজ্ঞতা সেটা আর কাজে লাগানো হয় না। সেই জন্যই হয়তো ভালো মানের আর্টিস্টরাও বয়স হয়ে গেলে নিজেদের গুটিয়ে নেন। তবে আমি আশাবাদি এমনটি থাকবে না। পরিবর্তন আসবে।’ এ দিকে প্রেক্ষাগৃহে চলছে মৌসুমী অভিনীত ছবি ‘নায়ক’। ইস্পাহানি আরিফ জাহান পরিচালিত ছবিটিতে মৌসুমী নায়িকা অধরার বড় বোনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন।