ভাদেশ্বর নাছির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ১০০ বছর পূর্তি উদযাপন কমিটির বনভোজন

ঠিকানা রিপোর্ট : প্রখর রোদ ও তীব্র গরমের মধ্যে এলাকার টানে, স্কুলের টানে ব্র্রঙ্কস, ব্রুকলীন, কুইন্স, লং আইল্যান্ড, নিউ জার্সি, কানেকটিকাট থেকে ভাদেশ্বরবাসী এবং স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী ও আমন্ত্রিত অতিথিদের আগমনে নিউ ইয়র্কের এস্টোরিয়া পার্কের একটি অংশ পরিণত হয় ভাদেশ্বর এবং ভাদেশ্বর পূর্বভাগ নাছিরউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে। দীর্ঘদিন পর দেখা হওয়ায় অনেককেই আনন্দ ও আবেগে আপ্লুত হয়ে অশ্রুসিক্ত হতে দেখা যায়। প্রচণ্ড গরম উপেক্ষা করে সবাই ছিল আনন্দে আত্মহারা।
গত ২১ জুলাই, রোববার, নিউ ইয়র্কের লং আইল্যান্ড সিটি এস্টোরিয়া পার্কে বিপুল সংখ্যক ভাদেশ্বরবাসী ও নিউ ইয়র্কে গঠিত ভাদেশ্বর নাছির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ১০০ বছর পূর্তি উদযাপন কমিটির উদ্যোগে ভাদেশ্বরবাসীর বনভোজন, মিলনমেলা ও সাবেক শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন অনুষ্ঠান।
এতে সভাপতিত্ব করেন নিউ ইয়র্ক উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক সালেহ আহমেদ ছালেক। পরিচালনা করেন যুগ্ম-আহ্বায়ক তুহিন চৌধুরী। মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন প্রধান অতিথি মাছুম চৌধুরী (সভাপতি, শতবর্ষ উদযাপন কমিটি ও গভর্নিং বডি ভাদেশ্বর), বিশেষ অতিথি মো. জিলাল উদ্দিন (চেয়ারম্যান, ভাদেশ্বর ৮নং ইউনিয়ন পরিষদ), আলহাজ ময়নুল হক (সাবেক সভাপতি, গর্ভানিং বডি ভাদেশ্বর নাছির উদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজ), সম্মানিত অতিথি আতাউর রহমান চৌধুরী, আবদুল বাসিত, হাজী হাজিম আলী, রাজ্জাক এ. চৌধুরী, আলহাজ আনছার আহমেদ, মোস্তফা শাহরিয়ার আহমেদ, সিরাজ আহমেদ, আনছার আহমেদ চৌধুরী, আবদুল জলিল জায়গীরদার (খোকন), মনি চৌধুরী, ড. আবদুল মতিন ও শেখ আকতারুল ইসলাম।
পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আবিদ কামাল। জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন সাবেক শিক্ষার্থীরা। সঞ্চালক তুহিন চৌধুরী হাইস্কুলের প্রতিষ্ঠাতা খান বাহাদুর নাছির উদ্দিন চৌধুরীর প্রতি শ্রদ্ধা ও তার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। একঝাঁক বেলুন উড়িয়ে সভাপতি সালেহ আহমেদ ছালেক ও সাবেক শিক্ষার্থীরা রেজিস্ট্রেশন পর্বের শুভ উদ্বোধন করেন।
অনুষ্ঠানের সভাপতি সালেহ আহমেদ ছালেক ও মঞ্চে উপবিষ্ট অতিথিবৃন্দ, প্রবীণ সাবেক শিক্ষার্থী আতাউর রহমান চৌধুরী, ব্যাচ ১৯৫৫ পশ্চিমভাগ (শারীরিক কারণে অনুপস্থিত থাকায় তার পক্ষ থেকে রেজিস্ট্রেশন ফরম জমা দেন তার পুত্রবধূ আমেনা রিমা চৌধুরী), আবদুল বাছিত, ব্যাচ ১৯৫৯ মাইজভাগ; হাজী হাজিম আলী, ব্যাচ ১৯৬৪ পশ্চিম ভাগ নাম নিবন্ধনের সাথে সাথে উক্ত ৩ জন শিক্ষার্থীকে হাততালি ও বেলুন উড়িয়ে অভিনন্দন জানানো হয়। শুরু হয় সাবেক ছাত্রছাত্রীর রেজিস্ট্রেশন, লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে ভিষণ ব্যস্ত হয়ে ফরম পূরণ করতে দেখা যায়।
বিশেষ অতিথি ছিলেন আলহাজ ময়নুল হক, জাহিদ উদ্দিন জাইন, জুনেদ আহমেদ চৌধুরী, আবদুল জলিল জায়গীরদার খোকন, শিরিন আকতার দীবা ও মনি চৌধুরীসহ আরও অনেকে।
মনি চৌধুরী তার ৫০ বছর আগের নাছির উদ্দিনকে উচ্চবিদ্যালয়ের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বার বার কেঁদে ফেলতে দেখা যায়। রেজিস্ট্রেশন ও অনুদান বাবদ মোট ৭ লাখ ৭২ হাজার টাকা আদায় হয়।
এরপর শুরু হয় খেলাধুলার পর্ব। শুরুতেই ছিলো বাচ্চাদের জন্য বিভিন্ন খেলা। মহিলাদের জন্য আকর্ষণীয় খেলা ছিল। মহিলাদের ছিল পাস গেম, পুরুষদের জন্য সবচেয়ে আর্কষণীয় খেলা ছিল ফুটবল। প্রচণ্ড গরম উপেক্ষা করে সবাই ছিল আনন্দে আত্মহারা। এর পরপরই উপস্থিত সবার জন্য দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা।
সবশেষে ছিল পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। শুরু হয় র‌্যাফেল ড্র ও বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ পর্ব। আকর্ষণীয় পুরস্কারসমূহের তালিকায় ছিল- ‘নিউ ইয়র্ক-বাংলাদেশ’ এয়ার টিকেট, টিভি, ল্যাপটপ, ফোন ইত্যাদি।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আলহাজ ময়নুল হক, মো. জিলাল উদ্দিন, আবদুল বাছিত, আলহাজ আনছার আহমেদ, জাহিদ উদ্দিন জাইন, জুনেদ আহমেদ চৌধুরী, জসিম উদ্দিন, মুসলেহ উদ্দিন (এন. জে), শামছুল নাহার ফোজিয়া, শিরিন আকতার দীবা, আবদুল জলিল জায়গীরদার খোকন, মো. তাজ উদ্দিন।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- গৌছুর রহমান গিয়াস, ওলিদ আহমদ, মিছবাউদ্দিন জাহাঙ্গীর, মো. জালাল উদ্দিন, ইকবাল হুসেন, মাছুম আহমেদ, খলিফ আহমেদ চৌধুরী, আবুল আহমদ চৌধুরী, শেখ অলি আহাদ, আশিকুর রহমান চৌধুরী, ছৈয়দ জাবেদ, কালাম আহমেদ, সুমন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, এনাম আহমদ, শেবুল মিয়া, শিপন খান ও আমেনা চৌধুরী।
নিউ জার্সি থেকে উপস্থিত ছিলেন- আলহাজ আনছার আহমদ, সিরাজ আহমদ, তাজ উদ্দিন, আতাউর রহমান, সেলিম আহমদ, আনছার আহমদ চৌধুরী, ড. আবদুল মতিন, ইনজাদ আলী, জামান আহমদ, মনজুল আহমদ, মস্তাক চৌধুরী, বোরহান উদ্দিন বুলু, রুহান আলী, বদরুল আলম, জয়নাল আহমদ, সুমলেহ উদ্দিন, আলাউদ্দিন শফিউল হক সেতু, শেখ আতিকুল ইসলামসহ আরো অনেকে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাছুম চৌধুরী প্রবাসী ভাদেশ^রবাসীদের প্রতি ওয়াদা করেন যে, প্রতিষ্ঠানের খাতে অনুদানের টাকার সম্পূর্ণ হিসাব রাখা হবে এবং খরচের স্বচ্ছতা রক্ষা করাই হবে তার প্রধান দায়িত্ব। কারো কোনো প্রশ্ন থাকলে সরাসরি তিনি তার সাথে যোগাযোগ করার জন্য সবাইকে অনুরোধ করেন।
নাছিরউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন উপলক্ষে নিউ ইয়র্ক প্রবাসী ভাদেশ^রবাসীর মিলনমেলা, বনভোজন, শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন ইত্যাদির জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ এবং অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য দেশে আসার দাওয়াত দেন।
সভাপতি সালেহ আহমেদ ছালেক তার বক্তব্যে এই বনভোজন ও সাবেক শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন অনুষ্ঠানে আগত সবাইকে শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন কমিটির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এবং অনিচ্ছাকৃত কোন প্রকার ভুল-ভ্রান্তি হয়ে থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহ্বান জানান।
আগামীতে ভাদেশ্বরবাসী একত্রিত হবার প্রত্যয় ব্যক্ত করার মধ্য দিয়ে তিনি অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।