মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে প্রবাসে শোক

ঠিকানা রিপোর্ট : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষেরা। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারাও তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানিয়েছেন।
ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা, মূলধারার রাজনীতিক এবং একুশে পদকপ্রাপ্ত লেখক ও বিজ্ঞানী বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. নূরন নবী শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, মওদুদ আহমেদ একজন উচ্চশিক্ষিত ব্যক্তি ছিলেন। একজন সুলেখকও ছিলেন।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ও মূলধারার রাজনীতিক গিয়াস আহমেদ বলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে বাংলাদেশের এক অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে তাঁর অবিস্মরণীয় অবদান রয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, মওদুদ আহমেদ বাংলাদেশের সংবিধানের অন্যতম রচয়িতা ছিলেন।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে তিনি অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে মওদুদ আহমেদের অগ্রণী ভূমিকা ছিল। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ ও শীর্ষস্থানীয় আইনবিদকে হারালো।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মূলধারার রাজনীতিক শরাফত হোসেন বাবু দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বলেন, তাঁর মৃত্যুতে বাংলাদেশের মানুষ একজন যোগ্য ও দক্ষ রাজনীতিবিদকে হারালো। যাঁর অভাব কখনো পূরণ হবার নয়।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক, জিয়া স্মৃতি পাঠাগার কেন্দ্রীয় কমিটি সহ-সভাপতি এবং যুক্তরাষ্ট্রে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব (প্রস্তাবিত) মিজানুর রহমান ভূঁইয়া মিল্টন। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, মওদুদ আহমেদ ছিলেন নোয়াখালীর মাটি ও মানুষের নেতা। তাঁর মৃত্যুতে জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক কোষাধ্যক্ষ ও ফেনী জেলা বিএনপির উপদেষ্টা জসিম ভূঁইয়া এক বিবৃতিতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, তিনি আমার খুব কাছের মানুষ ছিলেন। তাঁর মত নেতা বৃহত্তর নোয়াখালীতে আর কখনোই আসবে না। তিনি মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
বাংলাদেশের খ্যাতনামা আইনজ্ঞ, বৃহত্তর নোয়াখালীর কৃতি সন্তান, বিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশের প্রাক্তন উপ-রাষ্ট্রপতি, উপ-প্রধানমন্ত্রী এবং আইন ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও ফোবানা স্টিয়ারিং কমিটির চেয়ারম্যান জাকারিয়া চৌধুরী। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন শোক প্রকাশ করে বলেন, মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে পুরো জাতি শোকাহত। দেশ ও রাজনীতিতে মওদুদ আহমেদের অবদান জাতি কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করবে।
নিউইয়র্ক সিটি বিএনপির সভাপতি হাবিবুর রহমান সেলিম রেজা এক শোক বিবৃতিতে বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, সংবিধান রচনা ও নানা ইতিহাসের সঙ্গে মওদুদ আহমেদের নাম জড়িয়ে আছে। তার মত জাতীয় রাজনীবিদকে হারিয়ে বাংলাদেশের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল। তিনি মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।
জাতীয়তাবাদী যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা এম এ বাতিন এক বিবৃতিতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বলেন, বাংলাদেশ একজন শুধু বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও আইনজীবীকেই হারায়নি, একজন সত্যিকারের দেশপ্রেমিককেও হারিয়েছে। বিএনপি একজন অভিভাবকে হারিয়েছে।
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফোরাম যুক্তরাষ্ট্র শাখার প্রধান উপদেষ্টা একেএম রফিকুল ইসলাম ডালিম এক বিবৃতিতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, তাঁর মৃত্যুতে জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল। তাঁর মৃত্যুতে রাজনীতিতে যে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে, তা কখনো পূরণ হবার নয়।
নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির সভাপতি মাওলানা অলিউল্যাহ আতিকুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান সাঈদ এক বিবৃতিতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। তারা বলেন, মওদুদ আহমেদ বাংলাদেশের জাতীয় নেতা। তার মৃত্যুতে জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল।