মাটির নেশা

গোলাম রহমান

করহানি দ্বারে এলো শতধারে দাদুর জন্মদিন
আয়ুর গগনে মধুর লগনে ২ বছর হল লীন।

দিবস হারালো মাস যে গড়ালো কাটালো দুটি বছর
আধো আধো কথা নিয়ে মুখরতা নাচে ময়ূরী অধর।
হৃদয় জুড়ে গানের পাপিয়া তুলে সুর ঝঙ্কার
লাবণী ছন্দ কাটিয়ে দ্বন্দ্ব ঘুচায় অন্ধকার।

যত কথা মোর খুলে দিয়ে দোর মরমে মরমে বাজে
মনের ভূবনে হৃদয় গহনে মিশার ছবিটা রাজে।
কোন দূর লোকে মিশে আলোকে ছিলো আকাশের গায়
শত বাধা দলি এ নতুন কলি কোলে এসে নিল ঠাঁই।

রামধনু সনে হাসি খুশী মনে অবাধে করত খেলা
আমাদের ডাকে ধরণীর বাঁকে ভিড়ালো জীবন ভেলা।
তারকার দেশে মেঘ সাথে ভেসে গাইত কত না গীতি
ধরণীর গেহ মাটির স্নেহ ভুলালো স্বর্গ প্রীতি।

স্বর্গের নীড়ে হুরীদের ভীড়ে আরামে খাইত দোল
মাটির গরিমা শ্যামল মহিমা বাঁধালো ভীষণ গোল।
এ মাটির নেশা মাদকতা মেশা স্বর্গরে করে হেলা
এথায় আসলো পুলকে হাসলো মায়াবী সাঁঝের বেলা।

এদিন স্মরিয়া পরাণ ভরিয়া খুশিতে পাগলপারা
আজকে সকালে দাদুর কপোলে দিলেম চুমোর ধারা।
সোনালী বেলায় ফুলের মেলায় মাথায় হস্ত ধরি
তিল তিল করি মাধুরি আহরি দোয়ার পাহাড় গড়ি।
আটলান্টা।