মিজোরামে প্রজাতন্ত্র দিবস বর্জনের ডাক

‘হ্যালো চায়না, বাই বাই ইন্ডিয়া’ স্লোগান

বিশ্বচরাচর ডেস্ক : নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য মিজোরামেও বিক্ষোভ চলছে। বিলটির বিরুদ্ধে শুরু থেকেই প্রতিবাদে একজোট হয়েছে মিজোরামের সব দল ও সংগঠন। গত ২৩ জানুয়ারি মিজোরাম রাজ্যের বিভিন্ন শহরে হাজার হাজার তরুণ এই বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। আর এ দিনের বিক্ষোভগুলোতে দেখা মিলেছে নতুন মাত্রার। অনেক বিক্ষোভকারীকে ভারতকে বিদায় জানিয়ে চীনকে স্বাগত জানানো ‘হ্যালো চায়না, বাই বাই ইন্ডিয়া’ লেখা প্ল্যাকার্ড, ব্যানার ও ফেস্টুন বহন করতে দেখা যায়। অন্য দিকে গত ২৪ জানুয়ারি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ‘চীন জিন্দাবাদ’ স্লোগান সংবলিত পোস্টার নিয়ে মিছিল করেন প্রতিবাদীরা।

মিজোরামের রাজধানী আইজলে গত ২৩ জানুয়ারি বিক্ষোভে পথে নেমে আসে হাজারো মানুষ। বিভিন্ন স্থানে প্রধানমন্ত্রী মোদি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের কুশপতুল পোড়ানো হয়। প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানও বয়কটের হুমকি দেয়া হয় সেখান থেকে। মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা জানান, বিল প্রত্যাহার না করা হলে তার দল ক্ষমতাসীন মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট (এমএনএফ) তাদের শরীক ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্সের (এনডিএ) সাথে জোট ভাঙতে দ্বিধা করবে না।

আইজলে গত ২৩ জানুয়ারি ওই অঞ্চলের ছাত্র সংগঠনগুলোর ফেডারেশন ‘নর্থ ইস্ট স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন’ (নেসো), এমজেডপি, ইয়ং মিজো অ্যাসোসিয়েশনের (ওয়াইএমএ) যৌথ মিছিল বের হয়। সেখানেই অনেকের হাতে ‘হ্যালো চায়না, বাই বাই ইন্ডিয়া’ লেখা পোস্টার ছিল। বেশ কিছু পোস্টারে ছিল চীনা হরফ।

গত ২৪ জানুয়ারির মিছিলে অন্তত ৩০ হাজার মানুষ অংশ নেয়। মিজো জিরলাই পাওলের সাধারণ সম্পাদক লালনুনমাবিয়া পুটু বলেন, আমরা শেষ নিঃশ্বাস থাকা পর্যন্ত বিদেশিদের বিরুদ্ধে মাতৃভ‚মি রক্ষার লড়াই করে যাবো। বিলটি বাতিল করার জন্য আমরা বারবার আহŸান জানানো সত্তে¡ও সরকার যদি কান না দেয় তাহলে মিজোরা চুপচাপ বসে থাকবে না।

গত ৮ জানুয়ারি লোকসভায় বিলটি পাস হয়। এখন রাজ্য সভার আগামী অধিবেশনে এটি পাস করার জন্য পেশ করা হবে।