মোংলায় ভোটের আগেই নৌকার সব প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত

ঠিকানা অনলাইন : বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগ সমর্থিত ছয় প্রার্থী ছাড়াও বিদ্রোহী হিসেবে অনেক প্রার্থী ছিলেন।

২৪ মার্চ বুধবার ওই ছয়টি ইউনিয়ন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বী সেসব প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিলে একক প্রার্থী হিসেবে টিকে যান নৌকার প্রার্থীরা। মোংলা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লা আল মামুন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এদিন নির্বাচন অফিস আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা না দিলেও বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত উদয় শংকর, সোনাইলতলায় নাজরিনা বেগম, চাঁদপাইয়ে মোল্লা তরিকুল ইসলাম, মিঠাখালীতে উৎপল কুমার মন্ডল, সুন্দরবনে একরাম ইজারাদার ও চিলা ইউনিয়নে গাজী আকবর হোসেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

বিএনপি অংশ না নেওয়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ছয়টি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু বিদ্রোহীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান।

এদিকে ছয়টি ইউনিয়নে এখন নির্বাচন হবে শুধু সাধারণ ও সংরক্ষিত আসনের সদস্যদের মধ্যে। তবে কয়েকজন সদস্যও তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন।

নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লা আল মামুন বলেন, বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়নে সাধারণ সদস্য পদে একজন প্রত্যাহার করেন। এ পদে এখন নির্বাচন হবে ৩৭ জনের মধ্যে। আর সংরক্ষিত আসনে কেউ প্রত্যাহার না করায় ১০ জনই আছেন।

সোনাইলতলা ইউনিয়নে একজন সাধারণ সদস্য পদ থেকে প্রত্যাহার করায় ২৮ জন ও সংরক্ষিত আসনে কেউ প্রত্যাহার না করায় ১১ জন নির্বাচন করছেন।

মিঠাখালী ইউনিয়নে দুজন সাধারণ সদস্য প্রত্যাহার করায় ৩৪ জন ও সংরক্ষিত আসনে কেউ না করায় নির্বাচন করছেন ১১ জন।

চাঁদপাই ইউনিয়নেও দুজন সাধারণ সদস্য প্রত্যাহার করায় ৩৬ জন ও সংরক্ষিত আসনে কেউ প্রত্যাহার না করায় ১৩ জন নির্বাচন করছেন।

সুন্দরবন ইউনিয়নে নয়জন সাধারণ সদস্য প্রত্যাহার করায় ৩১ জন এবং সংরক্ষিত আসনে প্রত্যাহার না করায় ১২ জনই নির্বাচন করছেন।

আর চিলা ইউনিয়নে একজন সাধারণ সদস্য প্রত্যাহার করে নেওয়ায় ৪২ জন ও সংরক্ষিত আসনে দুজন প্রত্যাহার করায় ১৬ জন প্রার্থী আগামী ১১ এপ্রিল নির্বাচন করছেন।

এই ছয় ইউনিয়নে নারী-পুরুষ মিলে মোট ভোটার ৭৯ হাজার ৫৪০ জন।

ঠিকানা/এনআই