যুক্তরাজ্যের শিক্ষকদের ধর্মঘটের ঘোষণা

ঠিকানা অনলাইন : নার্স ও রেলওয়ে কর্মীদের পর এবার যুক্তরাজ্যে ধর্মঘট করছেন দেশের শিক্ষকরাও। শিক্ষকদের সংগঠন ন্যাশনাল এডুকেশন ইউনিয়ন (এনইই) ইতোমধ্যে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এনইই সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, বেতন বৃদ্ধির দাবিতে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চের মাঝামাঝি পর্যন্ত ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে শিক্ষকরা সাত দিনের জন্য ধর্মঘটে যাবেন। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি এবং ১৫ ও ১৬ মার্চ তিন দিন সারাদেশে হরতাল পালিত হবে।

এছাড়া আঞ্চলিকভাবে ধর্মঘটের পৃথক তারিখ ঘোষণা করা হবে। এনইইউ ধর্মঘটে সমর্থন দিয়েছেন প্রায় তিন লাখ শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী। যদি সবাই একবারে এই ধর্মঘটে যোগ দেয়, তবে এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় ধর্মঘট হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

সাত দিনের ধর্মঘটের সময় ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের বেশিরভাগ স্কুল বন্ধ থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। এদিকে শিক্ষকদের ধর্মঘটের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনকের সরকারকে বেশ চিন্তিত করে তুলেছে। কর্তৃপক্ষ আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধানের কথা ভাবছে।

সেই উদ্দেশ্যে ব্রিটিশ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, তিনি এই সপ্তাহে শিক্ষকদের শীর্ষ সংস্থা এনইইউ এর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ধর্মঘট চলছে যুক্তরাজ্যে। ১৯ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবিতে ১৫ ডিসেম্বর থেকে ধর্মঘট শুরু হয়।

ইংল্যান্ডের প্রায় এক চতুর্থাংশ হাসপাতাল এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডের সমস্ত স্বাস্থ্য বোর্ড ধর্মঘটে অংশ নেয়। এছাড়া, ওয়েলসের নার্সরাও এই ধর্মঘটে অংশ নেন। তবে স্কটল্যান্ডে এই ধর্মঘট হচ্ছে না। দেশের রেলকর্মীরাও বেতন ভাতা বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন করছেন।

চলতি বছরের শুরুতে (৪ জানুয়ারি) তারা ধর্মঘটের ডাক দেয়। বিষয়টি সমাধানে সরকার ও রেলওয়ে কর্মীদের মধ্যে আলোচনা চলছে। এবার তাতে যোগ দিচ্ছেন শিক্ষকদের ধর্মঘট। এদিকে, প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক জনসমাগম ও বিক্ষোভ ঠেকাতে পুলিশকে আরও ক্ষমতা দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন।

তিনি সংসদে এ বিষয়ে একটি বিল উত্থাপন করতে যাচ্ছেন। ১৬ জানুয়ারি (সোমবার) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। মূলত, নতুন বিলে গত বছর সংসদে পাস হওয়া একটি আইন সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে বিক্ষোভ দমনে পুলিশের ক্ষমতা বাড়বে।

নতুন এ সংশোধনীর পক্ষে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক বলেন, ‘প্রতিবাদ করার অধিকার আমাদের গণতন্ত্রের একটি মৌলিক নীতি কিন্তু এটা একচেটিয়া নয়। নাগরিকদের অধিকার ও পরিশ্রমী সংখ্যাগরিষ্ঠদের দৈনন্দিন জীবন পরিচালনার অধিকারের মধ্যে একটি ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। আমরা একটি ক্ষুদ্র সংখ্যালঘুর নেতৃত্বে বিক্ষোভকে সাধারণ মানুষের জীবনকে ব্যাহত করার অনুমতি দিতে পারি না। এটি গ্রহণযোগ্য নয় এবং আমরা এটি শেষ করতে যাচ্ছি।’

সুনাকের এই প্রস্তাব এমন এক সময়ে এসেছে যখন যুক্তরাজ্যে অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বিভিন্ন শহরে ছোট বড় বিক্ষোভ দেখা গেছে। বিশেষ করে, লন্ডনে সম্প্রতি চিকিৎসা ও রেল কর্মীদের ধর্মঘট ও সমাবেশ দেখা গেছে।

যুক্তরাজ্যে সরকার ও জলবায়ু কর্মীরা সরকারী নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে রাস্তায় নামছেন। এসব বিক্ষোভের বেশিরভাগই হচ্ছে সড়ক অবরোধ করে। এতে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রায়ই বন্ধ থাকে। ঋষি সুনাকের বিল সংসদে পাস হলে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলি এই বিক্ষোভে শক্তি প্রয়োগের আরও ক্ষমতা পাবে।

ঠিকানা/এসআর