যুক্তরাষ্ট্রের ‘সবচেয়ে প্রশংসিত নারী’ মিশেল

সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও ডেমোক্র্যাট নেতা হিলারি ক্লিনটনকে টপকে যুক্তরাষ্ট্রের ‘সবচেয়ে প্রশংসিত নারী’ হলেন সাবেক মার্কিন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা।

গত ১৭ বছর ধরে গ্যালাপের বার্ষিক জরিপে হিলারি প্রথম তাকলেও এ বছর হিলারি ক্লিনটনের অবস্থান তৃতীয়। তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন টকশো উপস্থাপক অপরাহ উইনফ্রে। আর গ্যালাপের ‘সবচেয়ে প্রশংসিত পুরুষের’ তালিকায় এবারও শীর্ষে রয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে প্রশংসিত নারীর তালিকা তৈরি করতে ১৯৪৬ সাল থেকে প্রতি বছর জরিপ চালিয়ে আসছে গ্যালাপ। মাঝে শুধু একটি বছর (১৯৭৬ সাল) বাদ পড়েছিল।

অন্যান্য বছরের ধারাবাহিকতায় এ বছরও জরিপ চালানো হয়। এর অংশ হিসেবে ১,০২৫ জনের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, বিশ্বের যেকোনও জায়গায় বসবাসকারী এমন কোনও নারী ও পুরুষের নাম বলতে যাদেরকে তারা সবচেয়ে শ্রদ্ধা করে। ৩-১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত জরিপটি চালানো হয়।

২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী হিলারি ২২ বার গ্যালাপের তালিকায় শীর্ষস্থানে ছিলেন। আর গত ১৭ বছর ধরে টানা এ স্বীকৃতি পেয়েছেন তিনি। তবে এবারের তালিকায় প্রথম স্থানটি মিশেলের। এ বছর দ্বিতীয় স্থানে থাকা অপরাহ উনফ্রে কখনও তালিকায় শীর্ষস্থানটি নিতে পারেননি। ১৪ বার তার অবস্থান দ্বিতীয় ছিল।

এ বছর ‘সবচেয়ে প্রশংসিত পুরুষের’ তালিকায় শীর্ষে থাকা বারাক ওবামা এ নিয়ে ১১ বার এ স্বীকৃতি পেয়েছেন। আগামী বছরও যদি তিনি তালিকার শীর্ষ স্থানটি ধরে রাখতে পারেন, তবে রেকর্ডের খাতায় নাম লেখাবেন তিনি। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোয়াইট আইসেনহোয়ারের এ রেকর্ড রয়েছে। তিনি ১২ বার ‘সবচেয়ে প্রশংসিত পুরুষ’ এর স্বীকৃতি পেয়েছেন।

বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনও ‘প্রশংসিত পুরুষের’ তালিকায় শীর্ষ স্থান নিতে পারেননি। গত চার বছর ধরে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন তিনি। ক্ষমতাসীন অবস্থায় এ খেতাব না পাওয়া দ্বিতীয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।