যুক্তরাষ্ট্রে নারীদের আয় পুরুষের অর্ধেক

ঠিকানা ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রে নারীদের আয় পুরুষের অর্ধেক। গত ১৫ বছরে নারী-পুরুষের আয়ের ব্যবধান নিয়ে সাম্প্রতিক এক জরিপে এমন তথ্য উঠে এসেছে। এতে পরিবার ও শিশুর রক্ষণাবেক্ষণে নারী যে সময় দেয় তাও ধরা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, নারী-পুরুষের আয়ের যে ব্যবধান তা ধারণার চেয়েও অনেক বেশি।
২০০১ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত সময়ের ওপর পর্যালোচনা করে ওয়াশিংটনভিত্তিক ইনস্টিটিউট ফর উইমেনস পলিসি রিসার্চ দেখতে পায় নারীর আয় পুরুষের চেয়ে ৫১ শতাংশ কম। ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট হেইদি হার্টম্যান বলেন, নারী-পুরুষের আয় ব্যবধান নিয়ে একটি সাধারণ ধারণা হচ্ছে পুরুষের প্রতি ডলার আয়ের বিপরীতে নারী আয় করে ৮০ সেন্ট। কিন্তু এটি অতিরঞ্জিত। আমাদের গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, নারীর আয় এ ধারণার চেয়েও অনেক কম।
‘স্টিল এ ম্যানস লেবার মার্কেট’ শীর্ষক এ গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৯৬৮ সালের পর থেকে নারী-পুরুষের আয় ব্যবধান আগের চেয়ে কমেছে। ২০০১ থেকে ২০১৫ সময়ে নারীর গড় আয় বেড়ে হয়েছে ২৯ হাজার ডলার। যদিও ১৯৬৮ থেকে ১৯৮২ সময়ে গড় আয় ছিল ১৪ হাজার ডলার। কিন্তু চাকরি থেকে অন্তত এক বছরের বিরতিতে ছিল এ রকম নারীর সংখ্যা পুরুষের দ্বিগুণ। এ জন্য তাদের অনেক বড় মূল্য দিতে হয়েছে। কর্মীরা যদি তাদের চাকরি থেকে কোনো কারণে চলে যায় তখন কম্পানিগুলো তাদের কম মজুরি দেয়। এ ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ কোনো বৈষম্য করা হয়নি। তবে বেতন কাটার এ প্রক্রিয়ায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় নারীরা। কারণ নানা কারণে তাদেরই বেশি চাকরি ছাড়তে হয়। রয়টার্স।