রমজানের আগেই নির্বাচনী কার্যক্রম গোছাবে আ’লীগ

রাজনৈতিক ডেস্ক : রমজানের আগেই আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কার্যক্রম আরও গুছিয়ে আনবে আওয়ামী লীগ। এ জন্য দলের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটিকে কার্যকর সহায়তা দিতে বিশেষ কমিটি গঠন করা হবে। সেই সঙ্গে বিভাগ পর্যায়ের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় পর্যায়ে একাধিক উপকমিটি গঠনের উদ্যোগ রয়েছে।
আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই দলের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির বৈঠকে এই কমিটিগুলো গঠন করা হবে বলে দলের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই বৈঠকের মাধ্যমে নির্বাচনসংক্রান্ত বিষয়ে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেবেন। আগামী ১৫ মে অনুষ্ঠেয় গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগেই এই বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চেয়ারম্যান করে ১৩৬ সদস্যের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এইচ টি ইমাম এই কমিটির কো-চেয়ারম্যান। দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের কমিটির সদস্যসচিব। দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, কার্যনির্বাহী সংসদের সব কর্মকর্তা-সদস্য এবং অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা এই কমিটির সদস্য।
আওয়ামী লীগের কয়েকজন নীতিনির্ধারক নেতা জানিয়েছেন, দলের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কার্যক্রম নিয়ে গত ২ মে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলেছেন এইচ টি ইমাম। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নির্বাচনসংক্রান্ত সার্বিক বিষয়ের পাশাপাশি সাংগঠনিক প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এসব আলোচনায় দলের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটিকে সহায়তা দেওয়ার জন্য আরও বেশ কয়েকটি কমিটি গঠনের বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।
এ জন্য রমজানের আগেই দলের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির বৈঠক ডাকা হবে। ওই বৈঠকেই গঠন করা হবে বিশেষ কমিটি। এই কমিটিতে দলের শীর্ষ নেতাদের পাশাপাশি বুদ্ধিজীবীদের রাখা হবে। এই কমিটির আকার হবে ছোট। আর এই কমিটি দলের ঘোষণাপত্রের আলোকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ইশতেহার তৈরি করবে। ওই ইশতেহারে সমাজের সকল শ্রেণিপেশার প্রতিনিধিদের মতামত থাকবে। এ ছাড়াও বিভাগ পর্যায়ে গঠন করা হবে একাধিক বিভাগীয় কমিটি। এর সঙ্গে কমিটিগুলোকে সহায়তা দেওয়ার জন্য গঠিত হবে কয়েকটি উপকমিটি।
আওয়ামী লীগ নেতারা বলেছেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কার্যক্রম গুছিয়ে আনার জন্য রমজানের আগেই বেশ কয়েকটি উদ্যোগ নেওয়া হবে। এর মধ্যে কেন্দ্র ভিত্তিক কমিটি গঠনের কার্যক্রম সম্পৃক্ত থাকবে। এ ছাড়াও ৩০০ সংসদীয় আসনের আওতাধীন আট বিভাগের পাশাপাশি ৬৪টি প্রশাসনিক জেলা ও ৪৯১টি উপজেলায় কমপক্ষে ১১ লাখ ৬২ হাজার ৫০০ কর্মীকে পোলিং এজেন্ট করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। এই পোলিং এজেন্টরা আগামী নির্বাচনে প্রায় দুই লাখ ৩২ হাজার ৫০০টি বুথে দায়িত্ব পালন করবেন।