রেকর্ড গড়ে দ্রুততম মানব ইসমাইল ও মানবী শিরিন

স্পোর্টস রিপোর্ট : সাতবারের দ্রুততম মানব মেজবাহ আহমেদ ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে তার নিজের প্রিয় ইভেন্ট ১০০ মিটার স্প্রিন্টে লড়বেন না। নিজের সংস্থা নৌবাহিনী থেকে নতুনদের উঠে আসার সুযোগ করে দিতেই ১০০ মিটার স্প্রিন্টে লড়াই না করার সিদ্ধান্ত নেন এই স্প্রিন্টার। মেজবাহ আহমেদের সেই চাওয়াই পূরণ হয়েছে এবারের জাতীয় অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে। তারই সংস্থার আরেক অ্যাথলেট মো. ইসমাইল হোসেন জাতীয় রেকর্ড গড়ে জিতেছেন বাংলাদেশের দ্রুততম মানবের খেতাব। ১০২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে দৌড় শেষ করেন ইসমাইল। এর আগে ১৯৯১ সালে হয়েছিল পুরুষদের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে জাতীয় রেকর্ড। গোলাম আম্বিয়ার হ্যান্ডটাইমিংয়ে রেকর্ডটি ছিল ১০৪০। ১৯৯৯ সালে ইলেকট্রনিক্স টাইমিং ১০৫৪ দৌড়িয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন মাহবুব হোসেন।

দুই রেকর্ড ভেঙে ২৮ বছর পর সেটা ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়লেন ইসমাইল। এ দিকে নারী বিভাগে ১০০ মিটারে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর শিরিন আক্তার। তিনি সময় নিয়েছেন ১১৮ সেকেন্ড। তিনি হারিয়েছেন তারই সংস্থা নৌবাহিনীর আরেক স্প্রিন্টার সোহাগী আক্তারকে।

গত বছর রেকর্ড গড়ার জন্য অ্যাথলেটিক ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে ১০০ মিটার লড়াই করার জন্য নেমেছিলেন মেজবাহ। তাহলেই তিনি পেছনে ফেলে দিতেন ৩৬ বছর আগে রেকর্ড গড়া মোশাররফ হোসেন শামীমকে। সত্তরের দশকে সর্বোচ্চ ৭ বার দ্রæততম মানব হওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছিলেন শামীম। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে এসে সেই মোশাররফ হোসেন শামীমের গড়া রেকর্ডে ভাগ বসিয়ে দেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এই অ্যাথলেট। ২০১৮ সালে তার সামনে সুযোগ ছিল মোশাররফ হোসেন শামীমের রেকর্ডকে পেছনে ফেলার। কিন্তু অষ্টমবারে এসে মেজবাহ নিজেই পেছনে পড়ে গেলেন। কুমিল্লার যুবক হাসান আলি ১০.৮০ সেকেন্ড সময় নিয়ে জিতে নেন দ্রæততম মানবের মুকুট। এবার মেজবাহ নিজেকে সরিয়ে নেয়ার কারণে ফেভারিটের তালিকায় উঠে আসেন ইসমাইল হোসেন। এবং শেষ পর্যন্ত ফেভারিটের মর্যাদা রক্ষা করলেন তিনি। হারিয়েছেন বিকেএসপির স্প্রিন্টার হাসান মিয়াকে। তিনি সময় নিয়েছিলেন ১০৮০ সেকেন্ড। তৃতীয় হয়ে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন নৌবাহিনীরই আরেক দৌড়বিদ রকিবুল হাসান। তিনি সময় নেন ১০৪০ সেকেন্ড। ২৪ জানুয়ারি একই দিনে অনুষ্ঠিত হয়েছে মেয়েদের ১০০ মিটার স্প্রিন্টের লড়াইও। এবারো মুকুট ধরে রেখেছেন নৌবাহিনীর অ্যাথলেট শিরিন আক্তার। ১১৮০ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্রæততম মানবীর খেতাব জয় করলেন এই নারী স্প্রিন্টার। তিনি হারিয়েছেন তারই সংস্থা নৌবাহিনীর আরেক স্প্রিন্টার সোহাগী আক্তারকে। গত বছরও সোহাগী আক্তার হয়েছিলেন রানারআপ। তিনি সময় নিয়েছেন ১১৯০ সেকেন্ড। তৃতীয় হয়ে ব্রোঞ্জ জিতেছেন সেনাবাহিনীর অ্যাথলেট শরিফা খাতুন। তিনি সময় নেন ১২৩০ সেকেন্ড।