রেমিট্যান্স প্রেরণে সানম্যানের নানা উদ্যোগ

ঠিকানা রিপোর্ট : করোনার কারণে সানম্যান ইনপারসন সেবার পাশাপাশি অনলাইনে তাদের সেবার পরিধি অনেক বাড়িয়েছে। এখন ঘরে বসেই সানম্যানের মাধ্যমে অতি সহজে প্রবাসীরা তাদের প্রিয়জনদের কাছে দেশে টাকা পাঠাতে পারবেন। জ্যাকসন হাইটস, জ্যামাইকাসহ বিভিন্ন অফিসে তারা ইনপারসন সার্ভিস দেওয়ার পাশাপাশি অনলাইনে সেবা দিচ্ছে। এর মধ্যে ‘ই-চেক’, ডেবিট কার্ড, কুইক পে, জেল, পেপলের মাধ্যমেও পেমেন্ট নেওয়া হচ্ছে। যারা ইনপারসন এসে টাকা পাঠাতে চান, তাদের জন্য রয়েছে অফিস চলাকালীন সব সময়ের সুযোগ। পাশাপাশি সার্বক্ষণিক অনলাইন সার্ভিস থাকছে।
সানম্যান গ্লোবাল এক্সপ্রেস করপোরেশনের ইনচার্জ মাসুদ রানা তপন বলেন, সানম্যানের মাধ্যমে দেশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী অর্থ পাঠাচ্ছেন। প্যান্ডামিকের কারণে ২০ মার্চের পর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউনের কারণে কিছুটা সমস্যা হয়েছে। কিন্তু এর পর থেকে কোনো সমস্যা নেই। মে মাসে অফিস খোলার পর মানুষ আসছে অর্থ পাঠাতে। তিনি বলেন, আমরা গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা দিচ্ছি। আমাদের মাধ্যমে কেউ দেশে অর্থ পাঠালে আমরা তাদেরকে ১ ডলারে ৮৫ টাকা ৪০ পয়সা দিচ্ছি। সরকারের ২ শতাংশ প্রণোদনা যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে আমাদের এখান থেকে যারা অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা পাঠান, তারা আরো ১ শতাংশ প্রণোদনা পান। সরকার ২ শতাংশ দেয় আর অগ্রণী ব্যাংক আলাদা করে ব্যাংক থেকে ১ শতাংশ দেয়। তারা মোট ৩ শতাংশ পাচ্ছেন। এর ফলে একজন গ্রাহক ১ ডলারের বিপরীতে ৮৫ টাকা ৪০ পয়সা পাচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা সব ব্যাংকের মাধ্যমেই টাকা পাঠাচ্ছি। আমাদের গ্রাহকেরা দিনের টাকা দিনেই পেয়ে যাচ্ছেন।