লাঙ্গলবন্দে স্নানোৎসবে পুণ্যার্থীর ঢল

নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের লাঙ্গলবন্দে গত ২৪ মার্চ সকালে শুরু হয় স্নানোৎসব। এ উৎসবকে কেন্দ্র করে লাঙ্গলবন্দের তিন কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পুণ্যার্থীদের ঢল নামে।

‘হে মহাভাগ ব্রহ্মপুত্র, হে লৌহিত্য আমার পাপ হরণ কর’ এ মন্ত্র উচ্চারণের মধ্য দিয়ে জগতের সব সংকীর্ণতা ও পঙ্কিলতার আবরণ থেকে মুক্তির বাসনায় হিন্দু পুণ্যার্থীরা ব্রহ্মপুত্র নদে অষ্টমী স্নান শুরু করেছে। হিন্দু ধর্মালম্বীদের তিথি অনুযায়ী গত ২৪ মার্চ সকাল ১০টা ১৪ মিনিটে মহাষ্টমী স্নানোৎসবের লগ্ন শুরু হয়। গত ২৫ মার্চ সকাল ৭টা ৫২ মিনিট পর্যন্ত লগ্ন চলে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি ঘাটে নির্দিষ্ট স্থান পর্যন্ত বাঁশের বেড়া দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি ঘাটে আছে বিআইডাব্লিউটিএ ও ফায়ার সার্ভিসের টহল টিম। যারা সাঁতার জানে না তাদের পানিতে নামতে বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। স্নান উপলক্ষে ৩৩টি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন পুণ্যার্থীদের সেবা দিতে ক্যাম্প স্থাপন করেছে। এসব ক্যাম্প থেকে পুণ্যার্থীদের খাবার ও চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালের উদ্যোগে সেখানে চিকিৎসা ক্যাম্প খোলা হয়েছে।

রাজবাড়ী থেকে আসা নারী পুণ্যার্থী সারথি দাস বলেন, ‘অন্যবারের তুলনায় এবার কড়াকড়ি বেশি। রাস্তার দুই পাশে প্রচুর পুলিশ। শান্তিপূর্ণভাবেই স্নান করেছি।’
নারায়ণগঞ্জ গলাচিপা থেকে আসা শঙ্করী রানী সাহা বলেন, ‘স্নানে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এখানে ভালোভাবেই আসতে পেরিছি। তবে এবার গাড়ি ভাড়া বেশি নেওয়া হচ্ছে।’

লাঙ্গলবন্ধ স্নান উৎসব উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি সরোজ কুমার সাহা বলেন, ‘ভারত, নেপালসহ বিভিন্ন দেশ থেকে এবার প্রচুর বিদেশি পুণ্যার্থী এসেছে। আবহওয়াও ভালো আছে। আশা করছি, এবারও কয়েক লাখ পুণ্যার্থী স্নান করবে।’

লাঙ্গলবন্ধ স্নানোৎসব উদ্যাপন পরিষদের কার্যকরী সদস্য শংকর সাহা বলেন, ‘এ বছর স্নানের তিথি দুই দিন হওয়ায় ভক্তরা শান্তিপূর্ণভাবে স্নান করতে পারছেন।’

নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার মঈনুল হক বলেন, ‘স্নানকে কেন্দ্র করে তিন স্তরে নিরাপত্তাবলয় তৈরি করেছে পুলিশ। এক হাজার ২০০ পুলিশ সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন। এর মধ্যে টহল পুলিশ, সাদা পোশাকের পুলিশ ছাড়াও ট্রাফিক পুলিশ সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করে।’

কর্মশালা : শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ সওজের উদ্যোগে সড়ক নিরাপত্তা ও ট্রাফিক সিগন্যাল-বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ২৪ মার্চ সকালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পশ্চিমপাড়া উচ্চবিদ্যালয়ে এ সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যবিত্ত দেশে উত্তরণ করায় এ কর্মশালার আয়োজন করে নারায়ণগঞ্জ সওজ বিভাগ।

এতে সভাপতিত্ব করেন মিজমিজি পশ্চিমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সাইদুর রহমান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সওজের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আসফিয়া সুলতানা। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) গোলাম মোস্তফা, সওজের উপসহকারী প্রকৌশলী শিশির কুমার বড়াল, ফিরোজ আলম, সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম বাবুল, হোসেন চিশতী সিপলু ও সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. মহিউদ্দিন ভূঁইয়া প্রমুখ। কর্মশালায় বিভিন্ন প্রামাণ্যচিত্র তুলে ধরা হয় এবং পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা রক্ষা, সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধসহ নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়।