লেডি অব পারপিচুয়াল ক্রাইসিস

বিশ্বচরাচর ডেস্ক : ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে প্রতিদিন নিজেকে কঠিন রাজনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে আবিষ্কার করেন। ব্রিটেনে গত ১৬ জানুয়ারি প্রভাতী পত্রিকাগুলো নিশ্চিত করে যে, মের ক্যারিয়ার শেষ। তার ব্রেক্সিসট চুক্তি ইতিহাসে সবচেয়ে খারাপভাবে পরাজিত হয়েছে। দুই বছর ছয় মাসের সমঝোতার পরিপ্রেক্ষিতে চুক্তিটি পার্লামেন্টে ২৩০ ভোটে বাতিল হয়। স্ট্রেইট টাইমস।

মিরর ঘোষণা করে, ‘নো ডিল নো হোপ নো ক্লু নো কনফিডেন্স’। দ্য সান তার ছবি এডিট করে ডুডু পাখির দেহে সংযোজন করে ছাপিয়েছে। গত ১৬ জানুয়ারি বিকেলে ‘হেই শি ইজ ব্যাক’ শিরোনাম করেছে। লেবার পার্টি সরকারের পতনের চেষ্টা করেছিল। টোরি দলের কয়েকজন অনুসারীও তাকে অপসারণের জন্য চেষ্টা করেছেন। মের অনুগতদের মধ্যে একজন বলেছেন, তিনি অবিচ্ছেদ্য রূপে তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি একজন দেশপ্রেমিক ও একজন সেবক হয়ে আমাদের দেশের জন্য কাজ করেছেন। অপর একজন বলেছেন, আমরা এ যাবৎকালে যেসব শ্রেষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী পেয়েছি তিনিও তাদের মধ্যে অন্যতম একজন হয়ে থাকবেন। এখনও পর্যন্ত তিনি সবচেয়ে ভালো কাজটিই করে যাচ্ছেন। এটি ব্রিটিশ রাজনীতির এক বিরাট জগৎ। একটি গ্রাউন্ডহগ ডে।

লেবারদের দাবিতে টোরিরাও তাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে সরকারের পতন ঘটানোর চেষ্টা করেছিল। অনাস্থা ভোটে মে মাত্র ১৯ ভোটে জেতেন। যা আবার অসম্ভব মনে হয়েছিল। এটিই তার পালে হাওয়া দিয়েছে। ইন্ডিপেন্ডেন্টে স্কেচ লেখক টম পিক লেখেন, তিনি অবিচ্ছিন্ন। তিনি একটি তামাশা। তিনি শৈবাল যা জলীয় আগ্নেয়গিরি থেকে সালফিউরিক গ্যাসের ওপর বেঁচে থাকে। স্কটিশ লেবার আইনপ্রণেতা স্টুয়ার্ট ম্যাকডোনাল্ড বলেন, তিনি তার ব্রেক্সিসট কৌশল পুনর্বিবেচনার জন্য প্রস্তুত ছিলেন। যে লক্ষণগুলো তার সামনে আগেই স্পষ্ট ছিল। তিনি মেনে চলেন যে ব্রিটিশ জনগণের জন্য ব্রেক্সিসট সরবরাহের জন্য পরিচিত মতো। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী পুরোপুরিই রোবোটিক ফ্যান্টাসি। যে জন্য তিনি তার স্ক্রিপ্টে আঁকে যাচ্ছেন।’

দিনটি ছিল শ্বাসরুদ্ধকর। যা শান্তির জন্য দেশটির প্রশস্ত ক্ষমতা পরীক্ষা করে। এক পর্যায়ে পার্লামেন্ট শেষ হয়ে যাওয়ার পরও অবিচ্ছিন্নভাবে সাংবিধানিক বাকযুদ্ধ চলতে দেখা গেছে। আইনপ্রণেতা ভিকি ফোর্ড ব্যাখ্যা করেন, চিঠিপত্র বিলি করা ব্যক্তিরা অভিযোগ করেছেন যে চিঠির বাগ তাদের পিঠের ব্যথা বাড়িয়ে দিয়েছে। এমনকি হাতের ব্যথাও বাড়িয়েছে। আমি আশা করছি এটিই হচ্ছে ব্রিটিশ রাজনীতির ঐক্যের মুহূর্ত। ১০ মিনিট এবং এটি আবার ব্রিটিশ গণতন্ত্রের পতন ঘটাবে। তাদের বৃত্তটি চতুর্মুখী ছিল, যা গোষ্ঠীগত। আমি অনুভব করি এটি একটি সমান্তরাল মহাবিশ্বের মতো মনে হয়। এটি ঠিক নয়, যেখানে আমরা গত রাতে ছিলাম। ঠিক ২৪ ঘণ্টা আগে। আমি বলতে চাই, শেষ আধাঘণ্টা বা তার চেয়েও কম সময়ে শেষ মুহূর্তের দিকে তাকিয়ে থাকা কি হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই রক্ষণশীলরা সম্ভবত কয়েক মাস ধরে সবচেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।