শেখ হাসিনার পরে কে?

শেখ রেহানা, না সায়মা ওয়াজেদ পুতুল, দলের নেতৃত্ব বাছাইয়ে নানা বলয়ে ব্যস্ততা

বিশেষ প্রতিনিধি: আওয়ামী লীগের পরবর্তী নেতৃত্ব বাছাইয়ের নীরব ব্যস্ততা যাচ্ছে শেখ পরিবারে। প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা ও মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলকে সামনে রেখেই এ ব্যস্ততা। পুতুল বা রেহানা দুজনের একজনই হতে যাচ্ছেন দলের পরবর্তী প্রধান- তা নিশ্চিত বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যরা। দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যেও চলছে তাদের মেনে নেওয়ার মানসিক ও রাজনৈতিক প্রস্তুতি। তবে এ নিয়ে গ্রুপিংয়ের কোনো সুযোগ রাখতে চান না প্রধানমন্ত্রী। বিষয়টি নিয়ে তিনি সর্বোচ্চ সতর্ক।
শেখ হাসিনার কাছে তথ্য আছে রেহানা, জয়, পুতুল, শেখ সেলিমসহ কয়েকজনকে ঘিরে দলে কয়েকটি বলয় তৈরি হয়েছে। বিশাল পরিবারের মধ্যেও রয়েছে পছন্দ-অপছন্দের কিছু বিষয়। তাদের শক্তি-সামর্থ্য, তৎপরতা বুঝে দলের কিছু নেতাও উপরোক্তদের সঙ্গে বিশেষ খায়খাতির গড়ে তুলতে সচেষ্ট। সুবিধাবাদী নেতা-কর্মীরা জয়, পুতুল, রেহানা বলয়ে ভিড়ে মতলব হাসিল করেন। পুতুল দেশ-বিদেশে বেশি পরিমাণে শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হওয়ার ঘটনায়ও বার্তা বোধ করার বিষয় রয়েছে। বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডেও বেশি সম্পৃক্ত থাকছেন পুতুল। আর জয়ের বেশি ব্যস্ততা আইটি সেক্টর নিয়ে।
কার হাতে ক্ষমতা বেশি, কে কোন সেক্টরে বেশি সক্ষম-ঘরের চার দেয়াল ছাড়িয়ে এসব প্রচারণা রয়েছে দল ও সরকারের বিভিন্ন স্তরেও। পরিবারে, দলে এমনকি সরকারেও প্রধানমন্ত্রীর পিতৃপক্ষ-মাতৃপক্ষ রেখা টানার চেষ্টার কিছু খবর প্রধানমন্ত্রীকে বেশ আহত করেছে। চাচাতো, মামাতো, ফুফাতো, তাদের শ্বশুরপক্ষ মিলিয়ে সংখ্যায় তার স্বজন অনেক। সম্পর্কের মারপ্যাঁচে তারাও শেখ বা প্রধানমন্ত্রী পরিবারের সদস্য। তাদের ক্ষমতা এবং প্রভাব নানা মহলেই। দলের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব বাছাইয়ে তাদের বিস্তর ভ‚মিকা থাকতে পারে। তাই প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত সতর্ক এ নিয়ে। দলের নেতা-কর্মীদের আয়ত্তে রেখেই ‘সর্বসম্মত’ নামে আওয়ামী লীগে পারিবারিক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চান তিনি। লন্ডন থেকে চিকিৎসা নিয়ে ফেরার পর প্রক্রিয়াটা আগের চেয়ে জোরদার। তার তৎপরতার মধ্যে বিশেষ বার্তা বুঝে নিচ্ছেন শেখ পরিবার ও দলের শীর্ষ নেতৃত্ব বিষয়ে সচেতনরা।
এদিকে শেখ রেহানার কৌশল একেবারেই ভিন্ন। কোনো দিকেই গতিবিধি স্পষ্ট নয় তার। প্রধানমন্ত্রীর ফুফাতো ভাই শেখ সেলিমকে সরকারি কোনো দায়িত্বে রাখা না হলেও বিভিন্ন সেক্টরে তিনি আনপ্যারালাল-আনডিস্টার্বে। তাকে হিসাবে রাখতে হয় সবাইকে। সরাসরি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় না থাকলেও বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন জায়গায় বিশেষ ফ্যাক্টর। সংসদেও রয়েছেন বঙ্গবন্ধু পরিবারের ৯ সদস্য। তারা হলেন শেখ হাসিনা, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, শেখ ফজলে নূর তাপস, শেখ হেলাল উদ্দিন, নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন, আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ, শেখ সারহান নাসের তন্ময় ও শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল। এর বাইরে স্বতন্ত্রভাবে জিতেছেন মুজিবুর রহমান চৌধুরী ওরফে নিক্সন চৌধুরী। তিনি লিটন চৌধুরীর ভাই। নিক্সন নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী জাফর উল্লাহকে হারিয়ে।