সন্তানদের জন্য প্রাণভিক্ষা চেয়েছিলেন জর্জ ফ্লয়েড

ঠিকানা ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশি নির্যাতনে নিহত হওয়া মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েড শেষ মুহূর্তে বাঁচার জন্য প্রাণভিক্ষা চেয়েছিলেন। আদালতের নথিপত্রের বরাত দিয়ে এমনটি জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।
গত ২৫ মে দেশটির মিনিয়াপোলিসে পুলিশি হেফাজতে প্রাণ হারান জর্জ ফ্লয়েড। সেইদিনই প্রতারণার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ।
বডি ক্যামেরার ফুটেজ থেকে সংগৃহীত নথিপত্রে বলা হয়, নিরস্ত্র ফ্লয়েড জীবনের শেষ মুহূর্তে তার মৃত মা এবং সন্তানদের জন্য কাঁদতে থাকেন। এরপরেও পুলিশ সদস্যরা তাকে ছাড়েনি।
ফ্লয়েডকে গ্রেপ্তারের পর হাঁটু দিয়ে তার ঘাড়ের পেছনে চেপে ধরেন ডেরেক চাওভিন নামের এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তা। তাকে সাহায্য করেন আরও তিন পুলিশ সদস্য।
অন্তত আট মিনিট ফ্লয়েডকে মাটিতে চেপে ধরে রাখা হয়। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, চাওভিনের হাঁটুর চাপে নিঃশ্বাস না নিতে পেরে ফ্লয়েড কাতরাচ্ছেন এবং বারবার বলছেন, ‘আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না।’
কৃষ্ণাঙ্গ এই যুবককে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত চার পুলিশ সদস্য এখন কারাগারে আছেন। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য চাওভিনসহ চার পুলিশ সদস্যকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।
জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুকে ঘিরে করোনা মহামারির মধ্যেও বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলনে কেঁপে উঠে গোটা যুক্তরাষ্ট্র। বিক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বজুড়ে।