সাঁঝের বেলার ঘণ্টা

লাবলু কাজী

ছিল সে বন্ধু মোর জীবন-মরণের সাথি
একদা সে বিলীন হলো ভব নদীর পাড়ে
যায় যায় দিন, বিহীন সঙ্গী মিলেছিল জীবনমেলায়
এ কী খেলা খেলছে মওলা করে আমায় দীন।
নীরব নিশীথিনীর সাক্ষ্য আমি কাটে বিনিদ্র রজনী
এমনি জীবনে অনাকাক্সিক্ষত আমি কহিনু আত্মার সনে
কাঁদে মনপ্রাণ কহে ডাকিয়া আয় ঘরে আয় ফিরে
মনপাখি নাহি দেয় সাড়া ইথারে পাথারে আছড়ে পড়ে নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ
আমি হনু সন্ন্যাসী ভালো না লাগে জগৎ মায়া সংসারে।
কাল এলে স্বপনের রেশে অলোকের লুক্কায়িত ধাম
হাতটি ধরে শুধালাম তোমায় এত দিন পরে এলে?
ছাড়িয়ে হস্তখানি গুটিশুটি হয়ে বসে পড়লে খাটের কোণে
মুখ ভার যেন অমাবস্যার চাঁদ, অন্ধকার মুখায়বে কালো ছায়া
চৈতী হাওয়ার দমকা টানে তুমি চলে গেলে।
ঘুম ভেঙে গেলে মানসী মানসী করে ডাকি বারবার
তুমি তো আর এলে না ফিরে আমার যৌবনের স্বপ্নচারিণী
অশ্রুর সে বন্যা ভিজে বালিশ, অনন্যা হয়ে শুষে নেয় বেদনার ভার
রহিয়া রহিয়া দেখিনু আমি বাজছে বিদায়ের ঘণ্টা সন্ধ্যাবেলার কাল…।
Ñনিউইয়র্ক