সাবেক পার্ক সেভয় হোটেলে বাস্তুহারাদের পুরুষদের আশ্রয়কেন্দ্র

ঠিকানা রিপোর্ট: ম্যানহাটানের ঐশ্বর্যশালীদের বসবাসের সারি বা পাড়ায় স্বল্প আয়ের লোকদের বাসা ভাড়া নেয়ার চিন্তাকে এককথায় সকলেই গরিবের ঘোড়া রোগ বলে উপহাস করতেন। অথচ ঐশ্বর্যশালী পাড়ার সাবেক সেভয় হোটেলে বসবাসের সুযোগ পাচ্ছে পুরুষ বাস্তুহারারা।
নিউইয়র্ক সিটির সর্বাপেক্ষা ব্যয়বহুল ওয়ানফিফটী সেভেন এপার্টমেন্ট বিল্ডিংয়ের পিঠে পিঠ ঠেকিয়ে বিদ্যমান ১৫৮ ওয়েস্ট ৫৮ স্ট্রীটের সাবেক সেভয় হোটেলকে ১৫০জন পুরুষ বাস্তুহারার বসবাসের জন্য মার্চে উন্মুক্ত করা হবে বলে সিটি হোমলেস সার্ভিসেস ডিপার্টমেন্ট ১৮ জানুয়ারি জানিয়েছে। সিটি মেয়র বিল ডি ব্লাসিয়ো সিটির ৫টি বরোতে ৯০টি নতুন হোমলেস সেন্টার ( বাস্তুহারা কেন্দ্র) নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন তারই অংশ বিশেষ হিসেবে সাবেক পার্ক সেভয় হোটেলকে বাস্তুহারা সেন্টারে রূপান্তরিত করা হয়েছে।
পার্ক সাউথের ল্যান্ডমার্ক জেডব্লিউ ম্যারিয়ট এক্সেস হাউজ হোটেল অ্যান্ড কন্ডো বিল্ডিংয়ের বাসিন্দা বলেন যে খবরটি শুনে তিনি অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছেন। ওয়েস্ট ফিফটী এইট স্ট্রীটে গত ২ বছর ধরে বসবাসকারী খ্যাতনামা ড্যান্সার ভিক্টোরিয়া বেডার বলেন, আমাদের কোন সতর্কবার্তা না দিয়ে কেমন করে এটি হল? কাছাকাছি মার্কেটিং এবং লাইভসে কর্মরত প্যাট্রিসিয়া জেনকিনস অবাক বিস্ময়ে বলেন, বাস্তুহারা মহামারিতে সিটি বসবাসের অনুপযোগী হয়ে উঠার উপক্রম। বাস্তুহারা সমস্যার কোন সমাধান আমার জানা নেই। তবে আমার বসবাসের এলাকায় আমি বাস্তহারা আশ্রয়কেন্দ্র পছন্দ করিনা।
ওয়ানফিফটী সেভেন এবং সন্নিকটবর্তী পার্ক হায়াত হোটেলের সিকিউরিটি ডাইরেক্টর রিচ মন্টিলা বলেন, উক্ত এলাকায় আমাদের অতিথিদের নিয়ে আমরা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত। আমাদের অতিথি এবং কন্ডোমালিকদের প্রবেশ ও প্রস্থান পথ সেখানে রয়েছে। আমি জানিনা সেখানে আশ্রয় নেয়ারা সহিংস নাকি শান্ত প্রকৃতির। গত বছর মেয়র বিল ডি ব্লাসিয়ো টার্নিং দ্য টাইড অন হোমলেসনেস প্রোগ্রাম ( বাস্তুহারার ¯্রােতের মোড় ঘুরিয়ে দেয়া নামক কর্মসূচি) ঘোষণাকালে বলেছিলেন যে শেল্টার বা আশ্রয়কেন্দ্র খোলার কমপক্ষে ৩০ দিন আগে সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসীকে বিষয়টি জানানো হবে এবং প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে কমিউনিটির উদ্বেগ-উৎকন্ঠার বিষয়ও গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হবে।
এদিকে এক সংবাদ সম্মেলনে মেয়র ডি ব্লাসিয়ো বলেন যে তিনি ৯০টি নতুন আশ্রয়কেন্দ্র খোলার কথা দৃঢ়তার সাথে বলেছিলেন এবং সেগুলো সব ধরনের এলাকায় স্থাপন করা হবে বলেও উল্লেখ করেছিলেন। হাউজিং ডিপার্টমেন্টের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে ওয়েস্টচেস্টার এবং দ্য ব্রঙ্কসে শেল্টারস এবং অ্যাফোর্ড্যবল হাউজিং পরিচালনাকারী ওয়েস্ট হ্যাবই পার্ক সেভয় হাউজিং পরিচালনা করবে। প্রবেশ পথে ২জন সিকিউরিটি গার্ড থাকবে ভবনের ভেতরে ও ৪ দিকে ৫৬টি সার্ভিলেন্স থাকবে। সিটির রেকর্ড থেকে জানা যায় ভবনটির মালিক নিউ হেম্পটন এলএলসি এবং ২০০৪ সালে ৩.৮৭৫ মিলিয়ন দিয়ে এটি ক্রয় করা হয়েছিল। আরও জানা যায় যে সিটিতে বাস্তুহারার সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে সিটি শেল্টারে আশ্রয় নেয়া বাস্তুহারার সংখ্যা ৫৩ হাজার ৬১৫ জন থাকলে চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি এ সংখ্যা ছিল ৬৩ হাজার ১৬৯।